৫ এর আগে ১০ বসিয়ে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের চেক জালিয়াতি
jugantor
৫ এর আগে ১০ বসিয়ে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের চেক জালিয়াতি

  দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি  

০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:৫০:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

৫ এর আগে ১০ বসিয়ে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে প্রতিবন্ধী বিশেষ শিক্ষা বিদ্যালয়ের চেক জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে সরকারি কলেজ রোড সংলগ্ন দেওয়ানগঞ্জ প্রতিবন্ধী বিশেষ শিক্ষা বিদ্যালয়ের শিক্ষক জালিয়াতি করে ব্যাংক থেকে টাকা তোলার সময় ধরা পড়েছে।

জানা যায়, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া এবং সাবেক সমাজ সেবা কর্মকর্তা স্বর্ণা সাহার স্বাক্ষরিত সোনালী ব্যাংকের চেকে ভাতাভোগীর নাম ফাহমিদা জান্নাত তুবা নামে ৫ হাজার ৪০০ টাকার চেক ২৮ জুলাই স্বাক্ষর করে। প্রতিবন্ধী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলামের চেকের অপর পৃষ্ঠায় স্বাক্ষর রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানের অপর শিক্ষক রজব আলীকে সোনালী ব্যাংক দেওয়ানগঞ্জ বাজার শাখা থেকে টাকা তোলার জন্য চেক দিয়ে পাঠান প্রধান শিক্ষক। চেকে ৫ হাজার ৪০০ টাকা লেখা ছিল। কিন্তু কথায় পাঁচ এর আগে এক লক্ষ এবং অঙ্কে লেখা ৫ এর আগে ১০ বসিয়ে ব্যাংকে টাকা তোলার জন্য চেক জমা দেন। চেকটি সন্দেহ হলে আটকে দেয়া হয়।

জানা যায়, ওই বিদ্যালয় থেকে ১৩ জন প্রতিবন্ধীর ভাতা প্রদান করা হয়। ভাতাভোগীরাই ব্যাংক থেকে ভাতা তোলার নিয়ম থাকলেও শিক্ষকরা ভাতা উত্তোলন করেন।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মিনহাজ উদ্দিন জানান, আমার পূর্বের কর্মকর্তা স্বর্ণা সাহা চেকে স্বাক্ষর করেছেন। চেকে ৫ হাজার ৪০০ টাকা লেখা ছিল। প্রধান শিক্ষক সাইফুল চেকগুলো গ্রহণ করেছিলেন।

প্রধান শিক্ষক সাইফুল বলেন, আমি চেক শিক্ষক রজব আলীকে দিয়েছিলাম সোনালী ব্যাংক বাজার শাখা থেকে উত্তোলনের জন্য।

সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার রাসেল মাহমুদ জানান, বিষয়টি সমাজসেবা কর্মকর্তাকে জানিয়েছি এবং অঙ্গীকারনামা নেয়া হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া জানান, সোনালী ব্যাংককে খোঁজ নেয়ার জন্য কর্মকর্তা পাঠানো হয়েছে। ব্যাংকের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছি।

৫ এর আগে ১০ বসিয়ে প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের চেক জালিয়াতি

 দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি 
০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

৫ এর আগে ১০ বসিয়ে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে প্রতিবন্ধী বিশেষ শিক্ষা বিদ্যালয়ের চেক জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে সরকারি কলেজ রোড সংলগ্ন দেওয়ানগঞ্জ প্রতিবন্ধী বিশেষ শিক্ষা বিদ্যালয়ের শিক্ষক জালিয়াতি করে ব্যাংক থেকে টাকা তোলার সময় ধরা পড়েছে।

জানা যায়, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া এবং সাবেক সমাজ সেবা কর্মকর্তা স্বর্ণা সাহার স্বাক্ষরিত সোনালী ব্যাংকের চেকে ভাতাভোগীর নাম ফাহমিদা জান্নাত তুবা নামে ৫ হাজার ৪০০ টাকার চেক ২৮ জুলাই স্বাক্ষর করে। প্রতিবন্ধী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলামের চেকের অপর পৃষ্ঠায় স্বাক্ষর রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানের অপর শিক্ষক রজব আলীকে সোনালী ব্যাংক দেওয়ানগঞ্জ বাজার শাখা থেকে টাকা তোলার জন্য চেক দিয়ে পাঠান প্রধান শিক্ষক। চেকে ৫ হাজার ৪০০ টাকা লেখা ছিল। কিন্তু কথায় পাঁচ এর আগে এক লক্ষ এবং অঙ্কে লেখা ৫ এর আগে ১০ বসিয়ে ব্যাংকে টাকা তোলার জন্য চেক জমা দেন। চেকটি সন্দেহ হলে আটকে দেয়া হয়।

জানা যায়, ওই বিদ্যালয় থেকে ১৩ জন প্রতিবন্ধীর ভাতা প্রদান করা হয়। ভাতাভোগীরাই ব্যাংক থেকে ভাতা তোলার নিয়ম থাকলেও শিক্ষকরা ভাতা উত্তোলন করেন।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মিনহাজ উদ্দিন জানান, আমার পূর্বের কর্মকর্তা স্বর্ণা সাহা চেকে স্বাক্ষর করেছেন। চেকে ৫ হাজার ৪০০ টাকা লেখা ছিল। প্রধান শিক্ষক সাইফুল চেকগুলো গ্রহণ করেছিলেন।

প্রধান শিক্ষক সাইফুল বলেন, আমি চেক শিক্ষক রজব আলীকে দিয়েছিলাম সোনালী ব্যাংক বাজার শাখা থেকে উত্তোলনের জন্য।

সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার রাসেল মাহমুদ জানান, বিষয়টি সমাজসেবা কর্মকর্তাকে জানিয়েছি এবং অঙ্গীকারনামা নেয়া হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া জানান, সোনালী ব্যাংককে খোঁজ নেয়ার জন্য কর্মকর্তা পাঠানো হয়েছে। ব্যাংকের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন