দাফনের ৫৭ দিন পর যুবকের লাশ উত্তোলন
jugantor
দাফনের ৫৭ দিন পর যুবকের লাশ উত্তোলন

  নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি  

০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:৫৭:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াইহাজারে ময়নাতদন্তের জন্য দাফনের ৫৭ দিন পর কবর থেকে আলম (৩৩) নামের এক যুবকের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উজ্জ্বল হোসেনের উপস্থিতিতে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি কবরস্থান থেকে লাশটি উত্তোলন করা হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ২৭ জুন উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নুরুল হক তালুকদার ওরফে হক মেম্বার এবং জালাল বাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে আইয়ুব নামের এক স্কুলছাত্র নিহত হয়। আইয়ুব ছিল হক মেম্বারের সমর্থক।

অপরদিকে জালালের সমর্থক আলম নামের এক যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৯ জুলাই কাচঁপুরের একটি হাসপাতালে মারা যান। পরে আলমের স্ত্রী জোসনা গত ১৯ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২২ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরও ১০-১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত লাশ উত্তোলন করে পুনরায় ময়নাতদন্ত করার জন্য আদেশ দেন। সেই মোতাবেক বৃহস্পতিবার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উজ্জ্বল হোসেনের উপস্থিতি লাশ উত্তোলন করা হয়।

এ সময় কালাপাহাড়িয়া ফাঁড়ির ইনচার্জ ওসি খন্দকার তবিদুর রহমান ও নিহত আলমের স্ত্রী জোসনা বেগমসহ তার স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

দাফনের ৫৭ দিন পর যুবকের লাশ উত্তোলন

 নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি 
০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াইহাজারে ময়নাতদন্তের জন্য দাফনের ৫৭ দিন পর কবর থেকে আলম (৩৩) নামের এক যুবকের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উজ্জ্বল হোসেনের উপস্থিতিতে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি কবরস্থান থেকে লাশটি উত্তোলন করা হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ২৭ জুন উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নুরুল হক তালুকদার ওরফে হক মেম্বার এবং জালাল বাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে আইয়ুব নামের এক স্কুলছাত্র নিহত হয়। আইয়ুব ছিল হক মেম্বারের সমর্থক।

অপরদিকে জালালের সমর্থক আলম নামের এক যুবক চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৯ জুলাই কাচঁপুরের একটি হাসপাতালে মারা যান। পরে আলমের স্ত্রী জোসনা গত ১৯ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২২ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরও ১০-১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত লাশ উত্তোলন করে পুনরায় ময়নাতদন্ত করার জন্য আদেশ দেন। সেই মোতাবেক বৃহস্পতিবার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উজ্জ্বল হোসেনের উপস্থিতি লাশ উত্তোলন করা হয়।

এ সময় কালাপাহাড়িয়া ফাঁড়ির ইনচার্জ ওসি খন্দকার তবিদুর রহমান ও নিহত আলমের স্ত্রী জোসনা বেগমসহ তার স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন