অবশেষে চৌহালীর আলোচিত সেই ওসির বদলি
jugantor
অবশেষে চৌহালীর আলোচিত সেই ওসির বদলি

  চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি  

০৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:৩১:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস

ছাত্রী ধর্ষণ মামলা না নেয়ায় আলোচিত সিরাজগঞ্জের চৌহালী থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাসকে বদলি করা হয়েছে।

তাকে চৌহালী থানা থেকে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে এ আদেশ কার্যকর হয়েছে। তবে এটা শাস্তিমূলক বদলি নাকি রুটিন বদলি, তা নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে গুঞ্জন চলছে।

একই সঙ্গে এনায়েতপুর থানার ওসি মোল্লা মাসুদ পারভেজকে চৌহালী এবং শাহজাদপুর থানার ওসি আতাউর রহমানকে এনায়েতপুর থানায় বদলি করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, যেহেতু তিনজনই দায়িত্ব পালনকালে নিজ নিজ কর্মস্থলে কিছুটা সমস্যা তৈরি করেছেন, তাই আপাতত তাদের জেলার মধ্যেই বদলি করা হল। এ আদেশ পুলিশের প্রতি স্থানীয় জনসাধারণের অবিচল আস্থা তৈরিতে রুটিন বদলি।

অভিযোগ রয়েছে, গত বছরের ৭ জুলাই চৌহালী থানায় যোগদানের পর থেকে ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস মাদক ও জুয়া কারবারিদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলেন। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করে। বিশেষ করে গত ১০ আগস্ট এক মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় ভুক্তভোগীর পরিবার থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে ওসি মামলা নিতে অস্বীকার করেন।

পরে বাধ্য হয়ে আদালতে মামলা করেন ভিকটিমের পরিবার। এ বিষয়ে ২৩ আগস্ট 'চৌহালীতে ছাত্রী ধর্ষণের মামলা না নেয়ার অভিযোগ' শিরোনামে দৈনিক যুগান্তরে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সংবাদ প্রকাশের পর চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা নিয়ে এলাকাজুড়ে তীব্র সমালোচনা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর চৌহালীর চরাঞ্চলে অবাধে মাদক কেনাবেচার বিষয়ে স্থানীয় এমপি আবদুল মমিন মণ্ডলের কাছে পুলিশের ঢিলেঢালা অভিযানের বিষয়ে আক্ষেপ করেন স্থানীয়রা।

এ কারণে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান নিয়েও এমপির বিরাগভাজন হন ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস। এছাড়া করোনাকালীন নদীভাঙনের অজুহাতে কয়েকজন জনপ্রতিনিধি মিলে সরকারি রাস্তার সওজের শতাধিক গাছ কাটেন। এ নিয়েও দৈনিক যুগান্তরসহ কয়েকটি গণমাধ্যমে সচিত্র সংবাদ প্রকাশ হলেও গাছ চুরির ঘটনায় তদন্তের নামে গড়িমসি ও কালক্ষেপণ করেন ওসি।

এসব একাধিক ঘটনায় রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাসের দক্ষতা ও যোগ্যতা নিয়ে স্থানীয়ভাবে নানা প্রশ্ন দেখা দেয়।

অবশেষে চৌহালীর আলোচিত সেই ওসির বদলি

 চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি 
০৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস
ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস। ছবি: সংগৃহীত

ছাত্রী ধর্ষণ মামলা না নেয়ায় আলোচিত সিরাজগঞ্জের চৌহালী থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাসকে বদলি করা হয়েছে। 

তাকে চৌহালী থানা থেকে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে এ আদেশ কার্যকর হয়েছে। তবে এটা শাস্তিমূলক বদলি নাকি রুটিন বদলি, তা নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে গুঞ্জন চলছে। 

একই সঙ্গে এনায়েতপুর থানার ওসি মোল্লা মাসুদ পারভেজকে চৌহালী এবং শাহজাদপুর থানার ওসি আতাউর রহমানকে এনায়েতপুর থানায় বদলি করা হয়েছে। 

পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, যেহেতু তিনজনই দায়িত্ব পালনকালে নিজ নিজ কর্মস্থলে কিছুটা সমস্যা তৈরি করেছেন, তাই আপাতত তাদের জেলার মধ্যেই বদলি করা হল। এ আদেশ পুলিশের প্রতি স্থানীয় জনসাধারণের অবিচল আস্থা তৈরিতে রুটিন বদলি। 

অভিযোগ রয়েছে, গত বছরের ৭ জুলাই চৌহালী থানায় যোগদানের পর থেকে ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস মাদক ও জুয়া কারবারিদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলেন। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করে। বিশেষ করে গত ১০ আগস্ট এক মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় ভুক্তভোগীর পরিবার থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে ওসি মামলা নিতে অস্বীকার করেন। 

পরে বাধ্য হয়ে আদালতে মামলা করেন ভিকটিমের পরিবার। এ বিষয়ে ২৩ আগস্ট 'চৌহালীতে ছাত্রী ধর্ষণের মামলা না নেয়ার অভিযোগ' শিরোনামে দৈনিক যুগান্তরে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। 

সংবাদ প্রকাশের পর চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা নিয়ে এলাকাজুড়ে তীব্র সমালোচনা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর চৌহালীর চরাঞ্চলে অবাধে মাদক কেনাবেচার বিষয়ে স্থানীয় এমপি আবদুল মমিন মণ্ডলের কাছে পুলিশের ঢিলেঢালা অভিযানের বিষয়ে আক্ষেপ করেন স্থানীয়রা।

এ কারণে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান নিয়েও এমপির বিরাগভাজন হন ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস। এছাড়া করোনাকালীন নদীভাঙনের অজুহাতে কয়েকজন জনপ্রতিনিধি মিলে সরকারি রাস্তার সওজের শতাধিক গাছ কাটেন। এ নিয়েও দৈনিক যুগান্তরসহ কয়েকটি গণমাধ্যমে সচিত্র সংবাদ প্রকাশ হলেও গাছ চুরির ঘটনায় তদন্তের নামে গড়িমসি ও কালক্ষেপণ করেন ওসি। 

এসব একাধিক ঘটনায় রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাসের দক্ষতা ও যোগ্যতা নিয়ে স্থানীয়ভাবে নানা প্রশ্ন দেখা দেয়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন