কোম্পানীগঞ্জে ধান ক্ষেতে বৃদ্ধার লাশ, পুত্রবধূ আটক
jugantor
কোম্পানীগঞ্জে ধান ক্ষেতে বৃদ্ধার লাশ, পুত্রবধূ আটক

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:৫৪:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

কম্পানীগঞ্জ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ধান ক্ষেত থেকে জহুরা খাতুন (৮৫) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের ছেলের বউকে আটক করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে রামপুর ৪নং ওয়ার্ড এনামুল হকের বাড়ির সংলগ্ন ধান ক্ষেত থেকে এ লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত জহুরা খাতুন মুছাপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের তরফ আলী সারেং বাড়ীর মৃত সোনা মিয়ার স্ত্রী।

জানা গেছে, নিহত জহুরা খাতুনের সঙ্গে তার ছেলে ও ছেলের বউদের সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে প্রায় ঝগড়াঝাটি হতো। প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার রাতের খাবার খেয়ে তিনি ঘুমিয়ে পড়েন।

নিহত বৃদ্ধের ছেলে মো. ইলিয়াছ (৫০) জানান, রাতের কোন এক সময়ে তার মা ঘর থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। ঘরের সব সদস্যরা ঘুমিয়ে থাকায় বিষয়টি কেউ টের পায়নি। শনিবার সকাল ৮টার দিকে স্থানীয় লোকজন রামপুরের খালপাড় এলাকায় একটি ধান ক্ষেতে লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। লাশ পাওয়ার খবর পেয়ে তিনি ঘটনা স্থলে গিয়ে মায়ের লাশ শনাক্ত করেন। তবে কিভাবে তার মা মারা গেছেন, তিনি বলতে পারেন না।

পুলিশ জানায়, নিহত নারীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন কানের দুল এবং হাতের আঙ্গুলে থাকা স্বার্ণের আংটি খোয়া গেছে। তবে তার দুই হাতে থাকা ইমিটেশনের তৈরি চুড়ি গুলো রয়েগেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের এক ছেলের বউকে আটক করা হয়েছে।

নোয়াখালী পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। ঘটনায় ওই বৃদ্ধের এক পুত্রবধূকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। শিগগিরই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন হবে।

কোম্পানীগঞ্জে ধান ক্ষেতে বৃদ্ধার লাশ, পুত্রবধূ আটক

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কম্পানীগঞ্জ
মৃত্যু

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ধান ক্ষেত থেকে জহুরা খাতুন (৮৫) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের ছেলের বউকে আটক করা হয়েছে। 

শনিবার দুপুরে রামপুর ৪নং ওয়ার্ড এনামুল হকের বাড়ির সংলগ্ন ধান ক্ষেত থেকে এ লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত জহুরা খাতুন মুছাপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের তরফ আলী সারেং বাড়ীর মৃত সোনা মিয়ার স্ত্রী। 

জানা গেছে, নিহত জহুরা খাতুনের সঙ্গে তার ছেলে ও ছেলের বউদের সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে প্রায় ঝগড়াঝাটি হতো। প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার রাতের খাবার খেয়ে তিনি ঘুমিয়ে পড়েন। 

নিহত বৃদ্ধের ছেলে মো. ইলিয়াছ (৫০) জানান, রাতের কোন এক সময়ে তার মা ঘর থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। ঘরের সব সদস্যরা ঘুমিয়ে থাকায় বিষয়টি কেউ টের পায়নি। শনিবার সকাল ৮টার দিকে স্থানীয় লোকজন রামপুরের খালপাড় এলাকায় একটি ধান ক্ষেতে লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। লাশ পাওয়ার খবর পেয়ে তিনি ঘটনা স্থলে গিয়ে মায়ের লাশ শনাক্ত করেন। তবে কিভাবে তার মা মারা গেছেন, তিনি বলতে পারেন না। 

পুলিশ জানায়, নিহত নারীর গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন কানের দুল এবং হাতের আঙ্গুলে থাকা স্বার্ণের আংটি খোয়া গেছে। তবে তার দুই হাতে থাকা ইমিটেশনের তৈরি চুড়ি গুলো রয়েগেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের এক ছেলের বউকে আটক করা হয়েছে।

নোয়াখালী পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। ঘটনায় ওই বৃদ্ধের এক পুত্রবধূকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। শিগগিরই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন হবে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন