বিজিবির সহযোগিতায় আর্থিক সহায়তা পেল সীমান্তের দরিদ্র জনগোষ্ঠী
jugantor
বিজিবির সহযোগিতায় আর্থিক সহায়তা পেল সীমান্তের দরিদ্র জনগোষ্ঠী

  হাবিব সরোয়ার আজাদ, তাহিরপুর থেকে  

০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:৩১:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন বাংলাদেশের (বিজিবি) সহযোগিতায় সুনামগঞ্জ সীমান্ত জনপদে বসবাসরত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মানুষেরা আর্থিক সহায়তা ও ত্রাণসামগ্রী পেলেন।

সুনামগঞ্জ-২৮ বিজিবি অধিনায়কের ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে সীমান্ত জনপদে বসবাসরত কয়েক হাজার পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

মঙ্গলবার জেলার তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাট বিওপিতে ঘাগটিয়া গ্রামের প্রয়াত জুয়েল আহমদের সদ্য বিধবা স্ত্রী গোলাপি আক্তারকে নগদ ১০ হাজার টাকা, টেকেরঘাটের প্রয়াত শফিকুর রহমানের ছেলে নাজমুল হোসেনকে ১০ হাজার টাকা, একই গ্রামের প্রয়াত অঙ্গদ সরকারের বিধবা স্ত্রী রানী বালা সরকারকে গবাদিপশু দেয়া হয়।

এর আগে উপজেলার চাঁনপুর বিওপিতে বিজিবি সিলেট সেক্টরের উপ মহাপরিচালক (সেক্টর কমান্ডার) কর্ণেল মো. আমিরুল ইসলাম পিএসসি এসব মানবিক কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

পরবর্তীতে জেলার তাহিরপুর, ধর্মপাশার মধ্যনগর,বিশ্বম্ভরপুর,সদর, দোয়ারাবাজার সীমান্ত ও দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠীতে পর্যায়ক্রমে নগদ অর্থ,সেলাই মেশিন,ভ্যান গাড়ি,ব্যবসায়িক পণ্যসামগ্রী, কৃষি উপকরণ, গবাদিপশুসহ সীমান্ত জনপদে বসবাসরত তিন হাজার আটশত পঞ্চাশ পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেনসুনামগঞ্জ ২৮-বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন (বিজিবি) অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মাকসুদুল আলম আর্টিলারী।



আলোকিত সীমান্ত প্রকল্পের আওতায় পর্যায়ক্রমে জেলার ধর্মপাশার মধ্যনগর থানার মাটিরাবন গ্রামের মিলন মিয়ার স্ত্রী রাজিয়া খাতুনকে, তাহিরপুরের বুরুঙ্গাছড়া গ্রামের প্রয়াত জহুর আলী শিকদারের বিধবা স্ত্রী হামেলা শিকদারকে, একই উপজেলার লাউরগড় গ্রামের প্রয়াত গিয়াস উদ্দিনের বিধবা স্ত্রী রাদিফা আক্তারকে ,দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার পূর্ব কলোনির আব্দুল খালেকের স্ত্রী পারভীন আক্তারকে একটি করে সেলাই মেশিন দেয়া হয়। এছাড়া তাহিরপুরের লাউরগড় গ্রামের প্রয়াত নুর মোহাম্মদের ছেলে দুলাল মিয়াকে একটি ভ্যানগাড়ি দেয়া হয়।

সুনামগঞ্জ-২৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন বাংলাদেশ (বিজিবি) অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মাকসুদুল আলম আর্টিলারী যুগান্তরকে বলেন, বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। সীমান্তজনপদে দরিদ্র পীড়িত মানুষজনকে বছরব্যাপী এভাবে আর্থিক সহযোগিতার মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তুলতে সুনামগঞ্জ ব্যাটালিয়নের বিজিবি’র প্রচেষ্টা চলমান থাকবে।,

বিজিবির সহযোগিতায় আর্থিক সহায়তা পেল সীমান্তের দরিদ্র জনগোষ্ঠী

 হাবিব সরোয়ার আজাদ, তাহিরপুর থেকে 
০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:৩১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন বাংলাদেশের (বিজিবি) সহযোগিতায় সুনামগঞ্জ সীমান্ত জনপদে বসবাসরত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মানুষেরা আর্থিক সহায়তা ও ত্রাণসামগ্রী পেলেন।

সুনামগঞ্জ-২৮ বিজিবি অধিনায়কের ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে সীমান্ত জনপদে বসবাসরত কয়েক হাজার পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়। 

মঙ্গলবার জেলার তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাট বিওপিতে ঘাগটিয়া গ্রামের প্রয়াত জুয়েল আহমদের সদ্য বিধবা স্ত্রী গোলাপি আক্তারকে নগদ ১০ হাজার টাকা, টেকেরঘাটের প্রয়াত শফিকুর রহমানের ছেলে নাজমুল হোসেনকে ১০ হাজার টাকা, একই গ্রামের প্রয়াত অঙ্গদ সরকারের বিধবা স্ত্রী রানী বালা সরকারকে গবাদিপশু দেয়া হয়। 

এর আগে উপজেলার চাঁনপুর বিওপিতে বিজিবি সিলেট সেক্টরের উপ মহাপরিচালক (সেক্টর কমান্ডার) কর্ণেল মো. আমিরুল ইসলাম পিএসসি এসব মানবিক কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

পরবর্তীতে জেলার তাহিরপুর, ধর্মপাশার মধ্যনগর,বিশ্বম্ভরপুর,সদর, দোয়ারাবাজার সীমান্ত ও দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠীতে পর্যায়ক্রমে নগদ অর্থ,সেলাই মেশিন,ভ্যান গাড়ি,ব্যবসায়িক পণ্যসামগ্রী, কৃষি উপকরণ, গবাদিপশুসহ সীমান্ত জনপদে বসবাসরত তিন হাজার আটশত পঞ্চাশ পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন সুনামগঞ্জ ২৮-বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন (বিজিবি) অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মাকসুদুল আলম আর্টিলারী। 


  
আলোকিত সীমান্ত প্রকল্পের আওতায় পর্যায়ক্রমে জেলার ধর্মপাশার মধ্যনগর থানার মাটিরাবন গ্রামের মিলন মিয়ার স্ত্রী রাজিয়া খাতুনকে, তাহিরপুরের বুরুঙ্গাছড়া গ্রামের প্রয়াত জহুর আলী শিকদারের বিধবা স্ত্রী হামেলা শিকদারকে, একই উপজেলার লাউরগড় গ্রামের প্রয়াত গিয়াস উদ্দিনের বিধবা স্ত্রী রাদিফা আক্তারকে ,দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার পূর্ব কলোনির আব্দুল খালেকের স্ত্রী পারভীন আক্তারকে একটি করে সেলাই মেশিন দেয়া হয়। এছাড়া তাহিরপুরের লাউরগড় গ্রামের প্রয়াত নুর মোহাম্মদের ছেলে দুলাল মিয়াকে একটি ভ্যানগাড়ি দেয়া হয়। 

সুনামগঞ্জ-২৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন বাংলাদেশ (বিজিবি) অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মাকসুদুল আলম আর্টিলারী যুগান্তরকে বলেন, বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। সীমান্তজনপদে  দরিদ্র পীড়িত মানুষজনকে বছরব্যাপী এভাবে আর্থিক সহযোগিতার মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তুলতে সুনামগঞ্জ ব্যাটালিয়নের বিজিবি’র প্রচেষ্টা চলমান থাকবে।,

 
জেলার খবর