রাজৈরে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু
jugantor
রাজৈরে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

  টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

১০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:২০:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদারীপুরে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

মাদারীপুরের রাজৈরে লাভলী বেগম (২৩) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

গৃহবধূর পরিবারের দাবি, শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হত্যা করেছে।

তবে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দাবি, হত্যা নয়; বরং তার স্বামীর সঙ্গে মোবাইলে ঝগড়ার পর ওড়নার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার সময় উপজেলার টেকেরহাট আবাসিক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ছাগলছিড়া গ্রামের মৃত হাসু মোল্লার মেয়ে লাভলী বেগমের সঙ্গে প্রায় ৬ থেকে ৭ বছর আগে রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট আবাসিক এলাকার মজিবর সরদারের ছেলে প্রবাসী আজাদ সরদারের বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে স্বামীর বাড়ির লোকজনের সঙ্গে পারিবারিক কলহ চলে আসছিল গৃহবধূ লাভলীর। এরই জের ধরে বুধবার রাত সাড়ে ৯টার সময় গৃহবধূ লাভলী বেগম সৌদি প্রবাসী স্বামী আজাদের সঙ্গে মোবাইলে কথা কাটাকাটির একপর্যায় ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে।

পরে বাড়ির লোকজন টের পেয়ে গৃহবধূ লাভলী বেগমকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

এলাকাবাসী জানান, এর আগেও ওই গৃহবধূ দুবার আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

গৃহবধূ লাভলী বেগমের ভাই রাসেল মোল্লা জানান, আমার বোনকে ওর শ্বশুরবাড়ির লোকজন শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হত্যা করেছে। আমি এর সঠিক বিচার চাই।

গৃহবধূর শ্বশুর মজিবর সরদার তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, সৌদি প্রবাসী আমার ছেলে আজাদের সঙ্গে মোবাইলে কথাকাটাকাটির পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে আমি বউকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

রাজৈর থানার ওসি শেখ সাদী জানান, এ ব্যাপারে একটি ইউডি মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর আসল রহস্য জানার পর পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রাজৈরে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

 টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
১০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মাদারীপুরে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু
লাভলী বেগম। ছবি: যুগান্তর

মাদারীপুরের রাজৈরে লাভলী বেগম (২৩) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

গৃহবধূর পরিবারের দাবি, শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হত্যা করেছে।

তবে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দাবি, হত্যা নয়; বরং তার স্বামীর সঙ্গে মোবাইলে ঝগড়ার পর ওড়নার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার সময় উপজেলার টেকেরহাট আবাসিক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ছাগলছিড়া গ্রামের মৃত হাসু মোল্লার মেয়ে লাভলী বেগমের সঙ্গে প্রায় ৬ থেকে ৭ বছর আগে রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট আবাসিক এলাকার মজিবর সরদারের ছেলে প্রবাসী আজাদ সরদারের বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে স্বামীর বাড়ির লোকজনের সঙ্গে পারিবারিক কলহ চলে আসছিল গৃহবধূ লাভলীর। এরই জের ধরে বুধবার রাত সাড়ে ৯টার সময় গৃহবধূ লাভলী বেগম সৌদি প্রবাসী স্বামী আজাদের সঙ্গে মোবাইলে কথা কাটাকাটির একপর্যায় ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে।

পরে বাড়ির লোকজন টের পেয়ে গৃহবধূ লাভলী বেগমকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

এলাকাবাসী জানান, এর আগেও ওই গৃহবধূ দুবার আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

গৃহবধূ লাভলী বেগমের ভাই রাসেল মোল্লা জানান, আমার বোনকে ওর শ্বশুরবাড়ির লোকজন শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হত্যা করেছে। আমি এর সঠিক বিচার চাই।

 গৃহবধূর শ্বশুর মজিবর সরদার তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, সৌদি প্রবাসী আমার ছেলে আজাদের সঙ্গে মোবাইলে কথাকাটাকাটির পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে আমি বউকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

রাজৈর থানার ওসি শেখ সাদী জানান, এ ব্যাপারে একটি ইউডি মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর আসল রহস্য জানার পর পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন