নোয়াখালীতে মা-মেয়েসহ চারজনের লাশ উদ্ধার
jugantor
নোয়াখালীতে মা-মেয়েসহ চারজনের লাশ উদ্ধার

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:১৯:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীতে মা-মেয়েসহ চারজনের লাশ উদ্ধার

নোয়াখালীর হাতিয়া ও সুবর্ণচর উপজেলায় পানিতে ডুবে মা-মেয়েসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। সুবর্ণচরে বিদ্যুৎস্পর্শে মারা গেছেন আরও একজন।

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা, রাত ৮টা ও রাত ৯টার দিকে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন- হাতিয়া উপজেলার জাহাজমারা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ম্যাকপারসন গ্রামের সোহরাব হোসেনের স্ত্রী আকলিমা আক্তার (২৩), আকলিমার মেয়ে মরিয়ম আক্তার সালমা (২), সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের চরমজিদ গ্রাম ভূঁইয়ারহাট এলাকার দিলাল মিয়ার মেয়ে লাইবা জাহান (৫) ও একই ইউনিয়নের হাজীপুর গ্রামের নান্টু সূত্র ধরের ছেলে দেবু সূত্র ধর (৩৫)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে জাহাজমারা ৮নং ওয়ার্ডের সোহরাবের স্ত্রী শিশুসন্তান সালমাকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী বাড়ির একটি পুকুরে গোসল করতে যায়।

এর পর থেকে তারা দুজন আর বাড়ি ফিরে আসেনি। পরিবারের লোকজন পার্শ্ববর্তী বাড়িগুলোসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করে তাদের কোনো সন্ধান পায়নি।

সন্ধ্যার দিকে ওই পুকুরে সালমার মরদেহ ভাসতে দেখেন এক প্রতিবেশী। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় শিশুর মরদেহ উদ্ধার করলেও আকলিমা নিখোঁজ ছিলেন।

পরে পুকুরে জাল ফেলে রাত ৮টার দিকে মা আকলিমার মরদেহ পাওয়া যায়।

হাতিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের বলেন, নিহত মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে পরিবারের লোকজন বলছে- পানিতে ডুবে তাদের মৃত্যু হয়েছে। অভিযোগ না থাকলে ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এদিকে জেলার সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের চরমজিদ গ্রামের ভূঁইয়ারহাট বাজারের পার্শ্ববর্তী দিলালের মেয়ে লাইবা জাহান বিকালে বাড়ির বাচ্চাদের সঙ্গে আঙিনায় খেলছিল। সন্ধ্যার দিকে তাকে ঘরে ফিরতে না দেখে তার বাবা-মা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেন।

পরে রাত ৯টার দিকে বাড়ির পুকুরে লাইবা জাহানের মরদেহ ভাসতে দেখে উদ্ধার করেন পরিবারের লোকজন।

অন্যদিকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সুবর্ণচর উপজেলার পূর্ব চরবাটা ইউনিয়নে হাজীপুর গ্রামের বিদ্যুৎস্পর্শে দেবু সূত্র ধর (৩৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি পেশায় একজন কাঠমিস্ত্রি ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, সন্ধ্যা ৭টার দিকে তার বাড়ির বিদ্যুতের লাইন মেরামত করতে বাড়ির পাশের বিদ্যুতের খুঁটিতে (খাম) ওঠে দেবু। এর কিছুক্ষণ পর খুঁটির ওপর থেকে বিদ্যুৎস্পর্শ হয়ে নিচে পড়ে যায়। পরিবারের লোকজন আহতাবস্থায় দেবুকে উদ্ধার করে সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নোয়াখালীতে মা-মেয়েসহ চারজনের লাশ উদ্ধার

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নোয়াখালীতে মা-মেয়েসহ চারজনের লাশ উদ্ধার
ফাইল ছবি

নোয়াখালীর হাতিয়া ও সুবর্ণচর উপজেলায় পানিতে ডুবে মা-মেয়েসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। সুবর্ণচরে বিদ্যুৎস্পর্শে মারা গেছেন আরও একজন।

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা, রাত ৮টা ও রাত ৯টার দিকে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন- হাতিয়া উপজেলার জাহাজমারা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ম্যাকপারসন গ্রামের সোহরাব হোসেনের স্ত্রী আকলিমা আক্তার (২৩), আকলিমার মেয়ে মরিয়ম আক্তার সালমা (২), সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের চরমজিদ গ্রাম ভূঁইয়ারহাট এলাকার দিলাল মিয়ার মেয়ে লাইবা জাহান (৫) ও একই ইউনিয়নের হাজীপুর গ্রামের নান্টু সূত্র ধরের ছেলে দেবু সূত্র ধর (৩৫)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে জাহাজমারা ৮নং ওয়ার্ডের সোহরাবের স্ত্রী শিশুসন্তান সালমাকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী বাড়ির একটি পুকুরে গোসল করতে যায়।

এর পর থেকে তারা দুজন আর বাড়ি ফিরে আসেনি। পরিবারের লোকজন পার্শ্ববর্তী বাড়িগুলোসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করে তাদের কোনো সন্ধান পায়নি।

সন্ধ্যার দিকে ওই পুকুরে সালমার মরদেহ ভাসতে দেখেন এক প্রতিবেশী। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় শিশুর মরদেহ উদ্ধার করলেও আকলিমা নিখোঁজ ছিলেন।

পরে পুকুরে জাল ফেলে রাত ৮টার দিকে মা আকলিমার মরদেহ পাওয়া যায়।

হাতিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের বলেন, নিহত মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে পরিবারের লোকজন বলছে- পানিতে ডুবে তাদের মৃত্যু হয়েছে। অভিযোগ না থাকলে ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এদিকে জেলার সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের চরমজিদ গ্রামের ভূঁইয়ারহাট বাজারের পার্শ্ববর্তী দিলালের মেয়ে লাইবা জাহান বিকালে বাড়ির বাচ্চাদের সঙ্গে আঙিনায় খেলছিল। সন্ধ্যার দিকে তাকে ঘরে ফিরতে না দেখে তার বাবা-মা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেন।

পরে রাত ৯টার দিকে বাড়ির পুকুরে লাইবা জাহানের মরদেহ ভাসতে দেখে উদ্ধার করেন পরিবারের লোকজন।  

অন্যদিকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সুবর্ণচর উপজেলার পূর্ব চরবাটা ইউনিয়নে হাজীপুর গ্রামের বিদ্যুৎস্পর্শে দেবু সূত্র ধর (৩৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি পেশায় একজন কাঠমিস্ত্রি ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, সন্ধ্যা ৭টার দিকে তার বাড়ির বিদ্যুতের লাইন মেরামত করতে বাড়ির পাশের বিদ্যুতের খুঁটিতে (খাম) ওঠে দেবু। এর কিছুক্ষণ পর খুঁটির ওপর থেকে বিদ্যুৎস্পর্শ হয়ে নিচে পড়ে যায়। পরিবারের লোকজন আহতাবস্থায় দেবুকে উদ্ধার করে সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন