দুর্ভোগ কাটছে না শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট যাত্রীদের
jugantor
দুর্ভোগ কাটছে না শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট যাত্রীদের

  শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৪০:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে বন্ধ রয়েছে ফেরি চলাচল। বুধবার বিকল্প একটি চ্যানেল দিয়ে শিমুলিয়া থেকে কাঁঠালবাড়ী আসতে একটি ফেরির দীর্ঘ আট ঘণ্টা সময় লেগেছিল।

ফলে বৃহস্পতিবার নৌরুটে বিকল্প চ্যানেল দিয়েও কোনো ফেরি চলাচল করেনি। বেশ কিছুদিন ধরে এ নৌরুটে ফেরি চলাচলের এ অচলাবস্থার কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে নৌরুট। কোনোভাবেই যেন দুর্ভোগ কাটছে না পরিবহন চালকসহ যাত্রীদের।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সব ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটের মূল চ্যানেলে নাব্য সংকট থাকায় কোনো ফেরিই চলাচল করতে পারছে না।

এর আগে গত শুক্রবার বিকাল থেকে নৌরুটে কে-টাইপ ও মিডিয়ামসহ ৫টি ফেরি চলাচল শুরু করলেও ২-৩ দিন পরই নতুন করে আবার নাব্য সংকটে তা বন্ধ হয়ে যায়।

ঘাট সূত্রে জানা গেছে, কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌপথে চ্যানেলের এক প্রান্তের চর নদীতে ভেঙে গেলে চ্যানেলমূল বেশ সুরু হয়ে যায়। চ্যানেলের প্রবেশপথে নাব্য সংকট থাকায় ফেরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

এছাড়াও বিকল্প চ্যানেলের দূরত্ব বেশি হওয়ায় ফেরি চলাচলে দীর্ঘ সময় ব্যয় হয়। এজন্য বিকল্প চ্যানেলেও ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় নৌরুটে চলাচলরত পণ্যবাহী পরিবহন, দূরপাল্লার পরিবহনসহ অন্যান্য পরিবহনের যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। অনেক পরিবহন বিকল্প রুট হিসেবে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ব্যবহার করছে।

ঘাটে আটকে থাকা ট্রাকের চালক-শ্রমিকরা জানান, প্রতিবছরই এ সময়টায় এ নৌরুটে নাব্য সংকট তৈরি হয়। ফেরি বন্ধ থাকে। ঘাটে দিনের পর দিন আটকে থেকে ভীষণ দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে আমাদের।

লঞ্চে পার হয়ে আসা বরিশালগামী এক যাত্রী বলেন, পরিবার নিয়ে বাড়ি যেতে হচ্ছে। ফেরি বন্ধ থাকায় ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যেতে পারছি না। শিমুলিয়া পাড়ে গাড়ি রেখে লঞ্চে পার হতে হয়েছে। ফেরি বন্ধ থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে আমাদের।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ফেরিঘাটের টার্মিনাল সুপারিনটেন্ডেন্ট মো.ফারুক হোসেন বলেন, মূল চ্যানেলের প্রবেশপথে নাব্য সংকট আর বিকল্প চ্যানেলে ৮ ঘণ্টার মতো সময় লাগে। এ কারণে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে কোনো ফেরি চলাচল করেনি। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে ফেরি চলাচল।

বিআইডব্লিউটিসির মেরিন কর্মকর্তা (শিমুলিয়া ঘাট) মোহাম্মদ আলী বলেন, চ্যানেলের প্রবেশ পথেই নাব্য সংকট। ফলে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

দুর্ভোগ কাটছে না শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট যাত্রীদের

 শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে বন্ধ রয়েছে ফেরি চলাচল। বুধবার বিকল্প একটি চ্যানেল দিয়ে শিমুলিয়া থেকে কাঁঠালবাড়ী আসতে একটি ফেরির দীর্ঘ আট ঘণ্টা সময় লেগেছিল।

ফলে বৃহস্পতিবার নৌরুটে বিকল্প চ্যানেল দিয়েও কোনো ফেরি চলাচল করেনি। বেশ কিছুদিন ধরে এ নৌরুটে ফেরি চলাচলের এ অচলাবস্থার কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে নৌরুট। কোনোভাবেই যেন দুর্ভোগ কাটছে না পরিবহন চালকসহ যাত্রীদের। 

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সব ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটের মূল চ্যানেলে নাব্য সংকট থাকায় কোনো ফেরিই চলাচল করতে পারছে না। 

এর আগে গত শুক্রবার বিকাল থেকে নৌরুটে কে-টাইপ ও মিডিয়ামসহ ৫টি ফেরি চলাচল শুরু করলেও ২-৩ দিন পরই নতুন করে আবার নাব্য সংকটে তা বন্ধ হয়ে যায়।

ঘাট সূত্রে জানা গেছে, কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌপথে চ্যানেলের এক প্রান্তের চর নদীতে ভেঙে গেলে চ্যানেলমূল বেশ সুরু হয়ে যায়। চ্যানেলের প্রবেশপথে নাব্য সংকট থাকায় ফেরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

এছাড়াও বিকল্প চ্যানেলের দূরত্ব বেশি হওয়ায় ফেরি চলাচলে দীর্ঘ সময় ব্যয় হয়। এজন্য বিকল্প চ্যানেলেও ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় নৌরুটে চলাচলরত পণ্যবাহী পরিবহন, দূরপাল্লার পরিবহনসহ অন্যান্য পরিবহনের যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। অনেক পরিবহন বিকল্প রুট হিসেবে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ব্যবহার করছে।

ঘাটে আটকে থাকা ট্রাকের চালক-শ্রমিকরা জানান, প্রতিবছরই এ সময়টায় এ নৌরুটে নাব্য সংকট তৈরি হয়। ফেরি বন্ধ থাকে। ঘাটে দিনের পর দিন আটকে থেকে ভীষণ দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে আমাদের।

লঞ্চে পার হয়ে আসা বরিশালগামী এক যাত্রী বলেন, পরিবার নিয়ে বাড়ি যেতে হচ্ছে। ফেরি বন্ধ থাকায় ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যেতে পারছি না। শিমুলিয়া পাড়ে গাড়ি রেখে লঞ্চে পার হতে হয়েছে। ফেরি বন্ধ থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে আমাদের।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ফেরিঘাটের টার্মিনাল সুপারিনটেন্ডেন্ট মো.ফারুক হোসেন বলেন, মূল চ্যানেলের প্রবেশপথে নাব্য সংকট আর বিকল্প চ্যানেলে ৮ ঘণ্টার মতো সময় লাগে। এ কারণে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে কোনো ফেরি চলাচল করেনি। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে ফেরি চলাচল।

বিআইডব্লিউটিসির মেরিন কর্মকর্তা (শিমুলিয়া ঘাট) মোহাম্মদ আলী বলেন, চ্যানেলের প্রবেশ পথেই নাব্য সংকট। ফলে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন