বরগুনায় জরায়ু অপারেশন, অজ্ঞান অবস্থাতেই গৃহবধূর মৃত্যু
jugantor
বরগুনায় জরায়ু অপারেশন, অজ্ঞান অবস্থাতেই গৃহবধূর মৃত্যু

  যুগান্তর রিপোর্ট, বরগুনা  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:০৫:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনা শহরের কলেজ রোডে মর্ডান সেন্ট্রাল হাসপাতালে বুধবার সন্ধ্যায় বিউটি বেগম নামের এক গৃহবধূকে জরায়ু অপারেশন করা হয়। কিন্তু অজ্ঞান অবস্থায়ই তার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

বিউটি বেগম বরগুনা পৌর শহরের চরকলোনি এলাকার মৃত নজরুল ইসলামের স্ত্রী।

জানা যায়, বিউটি বেগমের জরায়ু অপারেশনের জন্য বুধবার দুপুরে ওই হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সন্ধ্যা ৭টার দিকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে ডা. খায়রুল ইসলাম তাকে ইনজেকশন (এ্যানেসথিয়া) দিয়ে অজ্ঞান করেন। পরে বরগুনার সিভিল সার্জন ডা. হুমাউন শাহিন খান বিউটি বেগমের জরায়ু অপারেশন করেন। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পরেও বিউটি বেগমের জ্ঞান ফিরে না আসায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন ডা. হুমাউন শাহিন খান বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। আমার মনে হয় অজ্ঞান অবস্থায়ই তার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ রাত সাড়ে ৮টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।

বিউটি বেগমের পরিবার এ সময় পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছে বলেন, বিউটি বেগম আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন।

বিউটি বেগমের পুত্রবধূ নার্স ইভা আক্তার বলেন, আমার শাশুড়ি অসুস্থ ছিলেন। অপারেশনের সময় আমিও অপারেশন থিয়েটারে উপস্থিত ছিলাম।

বরগুনা থানার ওসি কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, সংবাদ পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে জানতে পারি অপারেশনের জন্য অজ্ঞান করার পরে বিউটি বেগমের জ্ঞান ফিরে আসেনি। লাশ উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে দেয়া হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে বিউটি বেগমের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

বরগুনায় জরায়ু অপারেশন, অজ্ঞান অবস্থাতেই গৃহবধূর মৃত্যু

 যুগান্তর রিপোর্ট, বরগুনা 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনা শহরের কলেজ রোডে মর্ডান সেন্ট্রাল হাসপাতালে বুধবার সন্ধ্যায় বিউটি বেগম নামের এক গৃহবধূকে জরায়ু অপারেশন করা হয়। কিন্তু অজ্ঞান অবস্থায়ই তার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

বিউটি বেগম বরগুনা পৌর শহরের চরকলোনি এলাকার মৃত নজরুল ইসলামের স্ত্রী।

জানা যায়, বিউটি বেগমের জরায়ু অপারেশনের জন্য বুধবার দুপুরে ওই হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সন্ধ্যা ৭টার দিকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে ডা. খায়রুল ইসলাম তাকে ইনজেকশন (এ্যানেসথিয়া) দিয়ে অজ্ঞান করেন। পরে বরগুনার সিভিল সার্জন ডা. হুমাউন শাহিন খান বিউটি বেগমের জরায়ু অপারেশন করেন। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পরেও বিউটি বেগমের জ্ঞান ফিরে না আসায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন ডা. হুমাউন শাহিন খান বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। আমার মনে হয় অজ্ঞান অবস্থায়ই তার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ রাত সাড়ে ৮টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।

বিউটি বেগমের পরিবার এ সময় পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছে বলেন, বিউটি বেগম আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন।

বিউটি বেগমের পুত্রবধূ নার্স ইভা আক্তার বলেন, আমার শাশুড়ি অসুস্থ ছিলেন। অপারেশনের সময় আমিও অপারেশন থিয়েটারে উপস্থিত ছিলাম।

বরগুনা থানার ওসি কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, সংবাদ পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে জানতে পারি অপারেশনের জন্য অজ্ঞান করার পরে বিউটি বেগমের জ্ঞান ফিরে আসেনি। লাশ উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে দেয়া হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে বিউটি বেগমের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন