সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় মায়ের ওপর এ কেমন নির্যাতন
jugantor
সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় মায়ের ওপর এ কেমন নির্যাতন

  গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:৪০:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বৃদ্ধ মা মরিয়ম বেগম (৬৫)। দুই ছেলে ও এক মেয়ে। কয়েক বছর আগে স্বামী আজাদ প্রাং মারা যান। বিধবা মরিয়ম বেগম অনেক কষ্টে ছেলেমেয়েদের মানুষ করেন। মেয়ে বিয়ে দেয়ার কিছুদিন পর ছেলে সোনা মিয়াকে বিয়ে দেন। এরপর তার জীবনে নেমে আসে অশনিসংকেত।

দুই ছেলে ওই বিধবা মায়ের সম্পত্তি লিখে নিতে চাপ দিতে থাকে। একপর্যায়ে শুরু হয় তার ওপর অত্যাচার নির্যাতন, মারপিট। স্থানীয় মেম্বার কয়েকবার সালিশও করেছেন। সর্বশেষ জুন মাসে মারপিট করে বাড়ি থেকে বেড় করে দিলে সালিশ করে তার ঘরে তুলে দেন স্থানীয় মেম্বার কামরুল ইসলাম।

এরপর বুধবার সন্ধ্যায় রান্নার চুলা ভেঙে দিয়ে মারপিট করে টেনেহিঁচড়ে বাড়ি থেকে বেড় করে দেয়। রাতে অন্যের বাড়িতে থাকেন। ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার চরকাদহ কান্দপাড়া গ্রামে।

এ ঘটনায় তার দুই ছেলে সোনা মিয়া ও স্বপন আলী এবং তার দেবর সৈয়দ আলীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ওই বিধবা।

বৃহস্পতিবার সকালে থানার সামনে কেঁদে কেঁদে চরম আক্ষেপের সঙ্গে অসহায় বৃদ্ধ মা মরিয়ম বেগম বলেন, পেটে করে বহন করেছি। নাম রেখেছি সোনা ও স্বপন। হায়রে উদরের ধন। সম্পত্তির জন্য আমাকে মারপিট করে ঘর থেকে বেড় করে দিলি।

স্থানীয় মেম্বার কামরুল ইসলাম জানান, ইতোপূর্বে অনেকবার সালিশ করে সমাধান করে দেয়া হয়েছে। মাঝে মধ্যেই তার মাকে মারপিট করে।

গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় মায়ের ওপর এ কেমন নির্যাতন

 গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বৃদ্ধ মা মরিয়ম বেগম (৬৫)। দুই ছেলে ও এক মেয়ে। কয়েক বছর আগে স্বামী আজাদ প্রাং মারা যান। বিধবা মরিয়ম বেগম অনেক কষ্টে ছেলেমেয়েদের মানুষ করেন। মেয়ে বিয়ে দেয়ার কিছুদিন পর ছেলে সোনা মিয়াকে বিয়ে দেন। এরপর তার জীবনে নেমে আসে অশনিসংকেত।

দুই ছেলে ওই বিধবা মায়ের সম্পত্তি লিখে নিতে চাপ দিতে থাকে। একপর্যায়ে শুরু হয় তার ওপর অত্যাচার নির্যাতন, মারপিট। স্থানীয় মেম্বার কয়েকবার সালিশও করেছেন। সর্বশেষ জুন মাসে মারপিট করে বাড়ি থেকে বেড় করে দিলে সালিশ করে তার ঘরে তুলে দেন স্থানীয় মেম্বার কামরুল ইসলাম।

এরপর বুধবার সন্ধ্যায় রান্নার চুলা ভেঙে দিয়ে মারপিট করে টেনেহিঁচড়ে বাড়ি থেকে বেড় করে দেয়। রাতে অন্যের বাড়িতে থাকেন। ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার চরকাদহ কান্দপাড়া গ্রামে।

এ ঘটনায় তার দুই ছেলে সোনা মিয়া ও স্বপন আলী এবং তার দেবর সৈয়দ আলীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ওই বিধবা।

বৃহস্পতিবার সকালে থানার সামনে কেঁদে কেঁদে চরম আক্ষেপের সঙ্গে অসহায় বৃদ্ধ মা মরিয়ম বেগম বলেন, পেটে করে বহন করেছি। নাম রেখেছি সোনা ও স্বপন। হায়রে উদরের ধন। সম্পত্তির জন্য আমাকে মারপিট করে ঘর থেকে বেড় করে দিলি।

স্থানীয় মেম্বার কামরুল ইসলাম জানান, ইতোপূর্বে অনেকবার সালিশ করে সমাধান করে দেয়া হয়েছে। মাঝে মধ্যেই তার মাকে মারপিট করে। 

গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন