সেতুর নিচে চা বিক্রেতার লাশ
jugantor
সেতুর নিচে চা বিক্রেতার লাশ

  গোপালপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:২৯:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে সেতুর নিচ থেকে ইসমাইল হোসেন (৩৬) নামে এক চা বিক্রেতার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার সকালে উপজেলার ঝাওয়াইল বাজার এলাকায় একটি ছোট সেতুর নিচ থেকে তার ভাসমান লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ইসমাইল হোসেন ঝাওয়াইল গ্রামের আজিবর রহমানের ছেলে। তিনি ওই বাজারে ছোট্ট একটি দোকান দিয়ে চা বিক্রি করতেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শনিবার সারাদিন চা বিক্রি করেছেন তিনি। সন্ধ্যায় দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফিরেননি। স্বজনরা অনেক খোঁজাখুঁজি করেও কোনো সন্ধান পাননি।রোববার সকালে ওই সেতুর নিচে ভাসমান অবস্থায় তার লাশ দেখতে পাওয়া যায়। লাশের পা ভাঙা ও মাথায় ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে স্বজনরা দাবি করছেন, রাতে তাকে খুন করে সেতুর নিচে লাশ ফেলা হয়েছে। তবে নিহত ইসমাইল নেশার সাথে জড়িত ছিল বলেও নিশ্চিত করেছেন তারা।

ঝাওয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, লাশের প্রাথমিক সুরতহাল দেখে সড়কে বড় কোনো গাড়ির সাথে ধাক্কা লেগে বা চাপা পড়ে মারাত্মক আঘাত পেয়ে সেতুর নিচে পড়ে গিয়ে তার মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গোপালপুর থানার ওসি (তদন্ত) কাইয়ুম সিদ্দিকী জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশের বাম পা ভাঙা, শরীরে থেঁতলানোর চিহ্ন ও মাথায় জখম আছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করা যাবে।

সেতুর নিচে চা বিক্রেতার লাশ

 গোপালপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে সেতুর নিচ থেকে ইসমাইল হোসেন (৩৬) নামে এক চা বিক্রেতার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার সকালে উপজেলার ঝাওয়াইল বাজার এলাকায় একটি ছোট সেতুর নিচ থেকে তার ভাসমান লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ইসমাইল হোসেন ঝাওয়াইল গ্রামের আজিবর রহমানের ছেলে। তিনি ওই বাজারে ছোট্ট একটি দোকান দিয়ে চা বিক্রি করতেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শনিবার সারাদিন চা বিক্রি করেছেন তিনি। সন্ধ্যায় দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফিরেননি। স্বজনরা অনেক খোঁজাখুঁজি করেও কোনো সন্ধান পাননি।রোববার সকালে ওই সেতুর নিচে ভাসমান অবস্থায় তার লাশ দেখতে পাওয়া যায়। লাশের পা ভাঙা ও মাথায় ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে স্বজনরা দাবি করছেন, রাতে তাকে খুন করে সেতুর নিচে লাশ ফেলা হয়েছে। তবে নিহত ইসমাইল নেশার সাথে জড়িত ছিল বলেও নিশ্চিত করেছেন তারা।

ঝাওয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, লাশের প্রাথমিক সুরতহাল দেখে সড়কে বড় কোনো গাড়ির সাথে ধাক্কা লেগে বা চাপা পড়ে মারাত্মক আঘাত পেয়ে সেতুর নিচে পড়ে গিয়ে তার মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

গোপালপুর থানার ওসি (তদন্ত) কাইয়ুম সিদ্দিকী জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশের বাম পা ভাঙা, শরীরে থেঁতলানোর চিহ্ন ও মাথায় জখম আছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করা যাবে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন