স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন যশোরের অগ্নি-রবিউল
jugantor
স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন যশোরের অগ্নি-রবিউল

  যশোর ব্যুরো  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২৩:০০:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) অঙ্গ সংগঠন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন যশোরের ইফতেখার সেলিম অগ্নি ও রবিউল ইসলাম। তারা দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রদলের সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

রবিউল বর্তমানে যশোর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

সোমবার জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

১৯ সেপ্টেম্বর জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের আংশিক কেন্দ্রীয় কমিটি (১৪৯ সদস্য) ঘোষণা করা হয়। এ কমিটি অনুমোদন দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

জানা যায়, ইফতেখার সেলিম অগ্নি মনিরামপুর উপজেলার ঢাকুরিয়া ইউনিয়নের বলিয়ানপুর গ্রামের ভাষাসৈনিক প্রয়াত নুরুল হকের ছোট ছেলে। ইফতেখার সেলিম অগ্নি ১৯৮৮ সালে এসএসসি পাস করে যশোর এমএম কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হন। এরপর যুক্ত হন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে। তিনি ওই সময় ছাত্রদলের এমএম কলেজ শাখার প্রচার সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর তিনি ১৯৯০ সালে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সালে তিনি স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের সঙ্গে থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি জেলা ছাত্রদলের দফতর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও অগ্নি ১৯৯৬ সালে জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। ১৯৯৯ সালে তিনি জেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে তিনি স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি সদস্য নির্বাচিত হন। সর্বশেষ শনিবার তিনি কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হলেন।

রবিউল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রদলের সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি যশোর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি হিসেবে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি যশোর সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের নির্বাচিত এজিএস, জিএস ও ভিপির দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯৫ সালে তিনি যশোর পৌর ৩নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতির দায়িত্ব পান। এরপর যশোর সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট ছাত্রদলের সভাপতি, যশোর নগর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব পান।

২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর সদ্য প্রয়াত শফিউল বারী বাবুকে সভাপতি ও আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭ সদস্যের আংশিক কমিটি অনুমোদন করে বিএনপি। গত ২৮ জুলাই ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান শফিউল বারী বাবু। এরপর ওই পদে সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিয়োগ দেয়া হয়।

আংশিক কমিটির সদস্যদের নিয়ে নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ৩০ জন সহ-সভাপতি, ২১ জন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ২৮ জন সহ-সাধারণ সম্পাদক এবং ৫২ জনকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন যশোরের অগ্নি-রবিউল

 যশোর ব্যুরো 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) অঙ্গ সংগঠন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন যশোরের ইফতেখার সেলিম অগ্নি ও রবিউল ইসলাম। তারা দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রদলের সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

রবিউল বর্তমানে যশোর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

সোমবার জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

১৯ সেপ্টেম্বর জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের আংশিক কেন্দ্রীয় কমিটি (১৪৯ সদস্য) ঘোষণা করা হয়। এ কমিটি অনুমোদন দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

জানা যায়, ইফতেখার সেলিম অগ্নি মনিরামপুর উপজেলার ঢাকুরিয়া ইউনিয়নের বলিয়ানপুর গ্রামের ভাষাসৈনিক প্রয়াত নুরুল হকের ছোট ছেলে। ইফতেখার সেলিম অগ্নি ১৯৮৮ সালে এসএসসি পাস করে যশোর এমএম কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হন। এরপর যুক্ত হন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে। তিনি ওই সময় ছাত্রদলের এমএম কলেজ শাখার প্রচার সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর তিনি ১৯৯০ সালে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সালে তিনি স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের সঙ্গে থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি জেলা ছাত্রদলের দফতর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও অগ্নি ১৯৯৬ সালে জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি এবং ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। ১৯৯৯ সালে তিনি জেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে তিনি স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি সদস্য নির্বাচিত হন। সর্বশেষ শনিবার তিনি কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হলেন।

রবিউল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রদলের সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি যশোর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি হিসেবে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি যশোর সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের নির্বাচিত এজিএস, জিএস ও ভিপির দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯৫ সালে তিনি যশোর পৌর ৩নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতির দায়িত্ব পান। এরপর যশোর সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট ছাত্রদলের সভাপতি, যশোর নগর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব পান।

২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর সদ্য প্রয়াত শফিউল বারী বাবুকে সভাপতি ও আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭ সদস্যের আংশিক কমিটি অনুমোদন করে বিএনপি। গত ২৮ জুলাই ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান শফিউল বারী বাবু। এরপর ওই পদে সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিয়োগ দেয়া হয়।

আংশিক কমিটির সদস্যদের নিয়ে নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ৩০ জন সহ-সভাপতি, ২১ জন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ২৮ জন সহ-সাধারণ সম্পাদক এবং ৫২ জনকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন