চিকিৎসা করাতে গিয়ে মাকে হারিয়ে দিশাহারা ছেলে
jugantor
চিকিৎসা করাতে গিয়ে মাকে হারিয়ে দিশাহারা ছেলে

  রাজশাহী ব্যুরো  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:০৬:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

মাকে চিকিৎসা করাতে রাজশাহী আসার পথে হারিয়ে ফেলেছেন ছেলে

মাকে চিকিৎসা করাতে রাজশাহী আসার পথে হারিয়ে ফেলেছেন ছেলে।

গত দুদিন ধরে মাকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন তিনি। হারিয়ে যাওয়া মায়ের নাম মেরিনা পারভীন (৪০)। তার ছেলের নাম তারিকুল ইসলাম ওরফে সোহাগ। তাদের বাড়ি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার নওটিকা গ্রামে।

বুধবার পর্যন্ত কোথাও খুঁজে না পেয়ে দিশাহারা হয়ে পড়েছেন ছেলে সোহাগ।

সোহাগ জানান, তার মায়ের মানসিক সমস্যা রয়েছে। এ জন্য গত সোমবার মাকে নিয়ে রাজশাহীতে চিকিৎসা করাতে এসেছিলেন তিনি। আসার পথে পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বরে এসে তার মা হারিয়ে যান। ওই দিনই তার বাবা মফিজউদ্দিন জেলার পুঠিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। এর পর গত দুদিন থেকে ছেলে রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকায় মাকে খুঁজে ফিরছেন।

ছেলে আরও জানান, এর আগেও তার মাকে রাজশাহীতে মনরোগ বিশেষজ্ঞ মামুন হুসাইনের কাছে চিকিৎসা করানো হয়েছে। ওষুধ খেলে ভালো থাকেন। কিন্তু তিনি ওষুধ খেতে চান না। জোর করে ওষুধ খাওয়াতে হয়।

এ জন্য তিনি বাড়ির লোকজনের ওপরে সবসময় বিরক্ত থাকেন। সুযোগ পেলেই পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। গত সোমবার বেলা ২টার দিকে বানেশ্বরে তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে তার মা হারিয়ে যান।

সোহাগ সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, হারিয়ে যাওয়ার সময় মায়ের সঙ্গে আমার বাবা মফিজউদ্দিন ও নানি রোকেয়া বেগম ছিলেন। ভিড়ের মধ্যে সবার দৃষ্টি এড়িয়ে তিনি হারিয়ে যান। এই দুদিনে তার মায়ের নিশ্চয়ই খুব কষ্ট হচ্ছে।

কোনো সহৃদয় ব্যক্তি তার খোঁজ পেলে মোবাইল ফোনে জানানোর অনুরোধ করছি। আমার নম্বর ০১৭৫১-১০০৩৭১।

চিকিৎসা করাতে গিয়ে মাকে হারিয়ে দিশাহারা ছেলে

 রাজশাহী ব্যুরো 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মাকে চিকিৎসা করাতে রাজশাহী আসার পথে হারিয়ে ফেলেছেন ছেলে
ফাইল ছবি

মাকে চিকিৎসা করাতে রাজশাহী আসার পথে হারিয়ে ফেলেছেন ছেলে।

গত দুদিন ধরে মাকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন তিনি। হারিয়ে যাওয়া মায়ের নাম মেরিনা পারভীন (৪০)। তার ছেলের নাম তারিকুল ইসলাম ওরফে সোহাগ। তাদের বাড়ি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার নওটিকা গ্রামে।

বুধবার পর্যন্ত কোথাও খুঁজে না পেয়ে দিশাহারা হয়ে পড়েছেন ছেলে সোহাগ।
 
সোহাগ জানান, তার মায়ের মানসিক সমস্যা রয়েছে। এ জন্য গত সোমবার মাকে নিয়ে রাজশাহীতে চিকিৎসা করাতে এসেছিলেন তিনি। আসার পথে পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বরে এসে তার মা হারিয়ে যান। ওই দিনই তার বাবা মফিজউদ্দিন জেলার পুঠিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। এর পর গত দুদিন থেকে ছেলে রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকায় মাকে খুঁজে ফিরছেন।

ছেলে আরও জানান, এর আগেও তার মাকে রাজশাহীতে মনরোগ বিশেষজ্ঞ মামুন হুসাইনের কাছে চিকিৎসা করানো হয়েছে। ওষুধ খেলে ভালো থাকেন। কিন্তু তিনি ওষুধ খেতে চান না। জোর করে ওষুধ খাওয়াতে হয়।

এ জন্য তিনি বাড়ির লোকজনের ওপরে সবসময় বিরক্ত থাকেন। সুযোগ পেলেই পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। গত সোমবার বেলা ২টার দিকে বানেশ্বরে তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে তার মা হারিয়ে যান।

সোহাগ সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, হারিয়ে যাওয়ার সময় মায়ের সঙ্গে আমার বাবা মফিজউদ্দিন ও নানি রোকেয়া বেগম ছিলেন। ভিড়ের মধ্যে সবার দৃষ্টি এড়িয়ে তিনি হারিয়ে যান। এই দুদিনে তার মায়ের নিশ্চয়ই খুব কষ্ট হচ্ছে।

কোনো সহৃদয় ব্যক্তি তার খোঁজ পেলে মোবাইল ফোনে জানানোর অনুরোধ করছি। আমার নম্বর ০১৭৫১-১০০৩৭১।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন