ভাণ্ডারিয়ার সেই মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় মিলেছে, আটক ৬
jugantor
ভাণ্ডারিয়ার সেই মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় মিলেছে, আটক ৬

  ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:০৭:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ভাণ্ডারিয়ার সেই মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় মিলেছে, আটক ৬

পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় উপজেলার পৈকখালী গ্রামের খাল থেকে উদ্ধারকৃত মস্তকবিহীন অজ্ঞাত যুবকের মরদেহের পরিচয় মিলেছে। তার নাম আলতাফ হোসেন (৪০)। তিনি উপজেলার উত্তর পৈকখালী গ্রামের মৃত খালেক হাওলাদারের ছেলে।

মরদেহ উদ্ধারের একদিন পর বুধবার রাতে তার বোন খাদিজা বেগম এবং ভাই ফোরকান হাওলাদার তার মরদেহ শনাক্ত করেন। পুলিশ এ ঘটনায় ছয়জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

নিহতের ভাই ফোরকান হাওলাদার জানান, আলতাফ তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে চট্টগ্রামে বসবাস করতেন। শুক্রবার তিনি বাড়ি (পৈকখালী গ্রামে) ফেরেন। এর পর সোমবার প্রথম পক্ষের শ্বশুরবাড়ি থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার উদ্দেশে বের হয়ে তিনি আর ফিরে আসেননি। তবে স্বজনরা মনে করেন তিনি চট্টগ্রামে ফিরে গেছেন।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, একই গ্রামে আলতাফের দুটি শ্বশুরবাড়ি এবং দুই স্ত্রী রয়েছে। দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে তিনি চট্টগ্রামে বসবাস করতেন। প্রথম পক্ষের স্ত্রীর চার ছেলেমেয়ে রয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, আলতাফ হত্যা, চুরি-ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। উপজেলার চড়াইলে ডাকাতিসহ ইউসুফ মোল্লাকে গুলি করে হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে বাড়িতে এসে এ হত্যাকাণ্ডের শিকার হন।

পুলিশ দুই শ্বশুর-শ্বাশুড়িসহ ছয়জনকে থানায় আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে।

ভাণ্ডারিয়া থানার ওসি এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন ও আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তবে চট্টগ্রামে নিহতের বিরুদ্ধে একটি অস্ত্র আইনে মামলা আছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দুপুরে ভাণ্ডারিয়া থানা পুলিশ পৈকখালী গ্রামের ভারানী খালের কাওসার ফরাজির মসজিদের ঘাটের পাশে ভাসমান আলতাফের মাথাবিহীন মরদেহ উদ্ধার করে।

মরদেহের বাম হাতের রগ কাটা, বিবস্ত্র এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।

ভাণ্ডারিয়ার সেই মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় মিলেছে, আটক ৬

 ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভাণ্ডারিয়ার সেই মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় মিলেছে, আটক ৬
ফাইল ছবি

পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় উপজেলার পৈকখালী গ্রামের খাল থেকে উদ্ধারকৃত মস্তকবিহীন অজ্ঞাত যুবকের মরদেহের পরিচয় মিলেছে। তার নাম আলতাফ হোসেন (৪০)। তিনি উপজেলার উত্তর পৈকখালী গ্রামের মৃত খালেক হাওলাদারের ছেলে।

মরদেহ উদ্ধারের একদিন পর বুধবার রাতে তার বোন খাদিজা বেগম এবং ভাই ফোরকান হাওলাদার তার মরদেহ শনাক্ত করেন। পুলিশ এ ঘটনায় ছয়জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

নিহতের ভাই ফোরকান হাওলাদার জানান, আলতাফ তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে চট্টগ্রামে বসবাস করতেন। শুক্রবার তিনি বাড়ি (পৈকখালী গ্রামে) ফেরেন। এর পর সোমবার প্রথম পক্ষের শ্বশুরবাড়ি থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার উদ্দেশে বের হয়ে তিনি আর ফিরে আসেননি। তবে স্বজনরা মনে করেন তিনি চট্টগ্রামে ফিরে গেছেন।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, একই গ্রামে আলতাফের দুটি শ্বশুরবাড়ি এবং দুই স্ত্রী রয়েছে। দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে তিনি চট্টগ্রামে বসবাস করতেন। প্রথম পক্ষের স্ত্রীর চার ছেলেমেয়ে রয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, আলতাফ হত্যা, চুরি-ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। উপজেলার চড়াইলে ডাকাতিসহ ইউসুফ মোল্লাকে গুলি করে হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে বাড়িতে এসে এ হত্যাকাণ্ডের শিকার হন।

পুলিশ দুই শ্বশুর-শ্বাশুড়িসহ ছয়জনকে থানায় আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে।

ভাণ্ডারিয়া থানার ওসি এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন ও আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তবে চট্টগ্রামে নিহতের বিরুদ্ধে একটি অস্ত্র আইনে মামলা আছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দুপুরে ভাণ্ডারিয়া থানা পুলিশ পৈকখালী গ্রামের ভারানী খালের কাওসার ফরাজির মসজিদের ঘাটের পাশে ভাসমান আলতাফের মাথাবিহীন মরদেহ উদ্ধার করে।

মরদেহের বাম হাতের রগ কাটা, বিবস্ত্র এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন