খাগড়াছড়িতে প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৭
jugantor
খাগড়াছড়িতে প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৭

  খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:৪৫:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

খাগড়াছড়িতে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোর রাতে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ও আকবর শাহ এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে খাগড়াছড়ি সদর থানা পুলিশ। বাকি দুই আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ জানায়, বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার গোলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন বলপেয়ে আদম এলাকায় গভীর রাতে দরজা ভেঙে বাড়িতে ডুকে এক প্রতিবন্ধীকে (২৬) গণধর্ষণ করে আসামিরা। এ সময় তারা ঘরের ভিতরে ঢুকে বাড়ির মালিক, তার স্ত্রী ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে হাত মুখ বেঁধে ফেলে। পরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণ করে। তারা তিন ভরি স্বর্ণ, নগদ টাকা, মোবাইল ফোন লুট করে বাইরে থেকে বাড়িতে দরজা বন্ধ করে চলে যায়। পরে প্রতিবেশীরা এসে তাদের উদ্ধার করে পুলিশে খবর দেয়।

পুলিশঘটনাস্থল থেকে ধর্ষণের শিকার নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালের ভর্তি করে।

ধর্ষিতার পিতা জানান,তারা রাত ২টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত আমাদের উপর নানা নির্যাতন চালায়। আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে।

প্রতিবেশী তপন জ্যোতি চাকমা জানান,‘ তাদের চিৎকার শুনে আমরা ভোর বেলায় এসেছি। এ সময় প্রত্যেকের হাত-পা-মুখ বাঁধা ছিল। পুলিশকে খবর দেওয়ার পর তারা এসে সবাইকে উদ্ধার করে।

ঘটনার পরদিন বৃহস্পতিবার এই ঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে খাগড়াছড়ি সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকে পুলিশ আসামিদের ধরতে অভিযান শুরু করে। খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি মোহাম্মদ রশীদ বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত ৭ জনকে গ্রেফতার করেছি। বাকি ২ আসামিকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আজিজ আহমেদ বলেন,‘ বিষয়টি আমরা সর্বোচ্চ গুরত্ব দিয়ে দেখছি। খুব দ্রুত সব আসামিকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

খাগড়াছড়িতে প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৭

 খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ধর্ষণ
গণধর্ষণ

খাগড়াছড়িতে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোর রাতে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী ও আকবর শাহ এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে খাগড়াছড়ি সদর থানা পুলিশ। বাকি দুই আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ জানায়, বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার গোলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন বলপেয়ে আদম এলাকায় গভীর রাতে দরজা ভেঙে বাড়িতে ডুকে এক প্রতিবন্ধীকে (২৬) গণধর্ষণ করে আসামিরা। এ সময় তারা ঘরের ভিতরে ঢুকে বাড়ির মালিক, তার স্ত্রী ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে হাত মুখ বেঁধে ফেলে। পরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণ করে। তারা তিন ভরি স্বর্ণ, নগদ টাকা, মোবাইল ফোন লুট করে বাইরে থেকে বাড়িতে দরজা বন্ধ করে চলে যায়। পরে প্রতিবেশীরা এসে তাদের উদ্ধার করে পুলিশে খবর দেয়।

পুলিশঘটনাস্থল থেকে ধর্ষণের শিকার নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালের ভর্তি করে।

ধর্ষিতার পিতা জানান,তারা রাত ২টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত আমাদের উপর নানা নির্যাতন চালায়। আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে।

প্রতিবেশী তপন জ্যোতি চাকমা জানান,‘ তাদের চিৎকার শুনে আমরা ভোর বেলায় এসেছি। এ সময় প্রত্যেকের হাত-পা-মুখ বাঁধা ছিল। পুলিশকে খবর দেওয়ার পর তারা এসে সবাইকে উদ্ধার করে।

ঘটনার পরদিন বৃহস্পতিবার এই ঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে খাগড়াছড়ি সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকে পুলিশ আসামিদের ধরতে অভিযান শুরু করে। খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি মোহাম্মদ রশীদ বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত ৭ জনকে গ্রেফতার করেছি। বাকি ২ আসামিকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আজিজ আহমেদ বলেন,‘ বিষয়টি আমরা সর্বোচ্চ গুরত্ব দিয়ে দেখছি। খুব দ্রুত সব আসামিকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন