ঘরের ভেতর গৃহবধূর গলাকাটা লাশ
jugantor
ঘরের ভেতর গৃহবধূর গলাকাটা লাশ

  কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:২০:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

ফাতেমা আক্তার বাবলী (৩০)

কেরানীগঞ্জের খোলামোড়া জিয়ানগর এলাকায় নিজ বাসা থেকে ফাতেমা আক্তার বাবলী (৩০) নামের এক গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সকালে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের স্বামীর নাম আ: সামাদ। তিনি পেশায় সেদ্ধ ডিম বিক্রেতা। তাদের ১২ বছরের এক ছেলে রয়েছে। ছেলে বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি মাদ্রাসায় থেকে পড়াশুনা করে। বাড়িতে স্বামী-স্ত্রী বসবাস করেন।

স্থানীয়রা জানান, ঘটনার সময় গৃহবধূ একা বাসায় ছিলেন। স্বামী সেদ্ধ ডিম বিক্রির জন্য বাইরে ছিলেন। শনিবার রাত ১টার দিকে স্বামী বাড়িতে ফিরে ঘরের দরজা খোলা দেখতে পান। ভেতরে ঢুকে মেঝেতে স্ত্রীর গলাকাটা লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর এলাকাবাসী ঘটনাটি জেনে পুলিশে খবর দেন। সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।
রোববার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন কেরানীগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এছাড়াও সিআইডির ক্রাইমসিন ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছেন।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এসআই দিদার হোসেন জানান, রাত ১টায় স্বামী ঘরে ফিরে স্ত্রীর গলাকাটা লাশ দেখতে পান। এতে ধারণা করা হচ্ছে শনিবার রাত ১টার আগে যেকোনো সময় ওই গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে। কে বা কারা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সেটা জানতে তদন্ত চলছে। তবে দরজা খোলা থাকায় মনে হচ্ছে পরিচিত কেউ এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। এ ঘটনায় নিহতের বাবা মো. বাবুল বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা দায়ের করেছেন।

ঘরের ভেতর গৃহবধূর গলাকাটা লাশ

 কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ফাতেমা আক্তার বাবলী (৩০)
ফাতেমা আক্তার বাবলী (৩০)

কেরানীগঞ্জের খোলামোড়া জিয়ানগর এলাকায় নিজ বাসা থেকে ফাতেমা আক্তার বাবলী (৩০) নামের এক গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সকালে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের স্বামীর নাম আ: সামাদ। তিনি পেশায় সেদ্ধ ডিম বিক্রেতা। তাদের ১২ বছরের এক ছেলে রয়েছে। ছেলে বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি মাদ্রাসায় থেকে পড়াশুনা করে। বাড়িতে স্বামী-স্ত্রী বসবাস করেন।

স্থানীয়রা জানান, ঘটনার সময় গৃহবধূ একা বাসায় ছিলেন। স্বামী সেদ্ধ ডিম বিক্রির জন্য বাইরে ছিলেন। শনিবার রাত ১টার দিকে স্বামী বাড়িতে ফিরে ঘরের দরজা খোলা দেখতে পান। ভেতরে ঢুকে মেঝেতে স্ত্রীর গলাকাটা লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর এলাকাবাসী ঘটনাটি জেনে পুলিশে খবর দেন। সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।
রোববার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন কেরানীগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এছাড়াও সিআইডির ক্রাইমসিন ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছেন।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এসআই দিদার হোসেন জানান, রাত ১টায় স্বামী ঘরে ফিরে স্ত্রীর গলাকাটা লাশ দেখতে পান। এতে ধারণা করা হচ্ছে শনিবার রাত ১টার আগে যেকোনো সময় ওই গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে। কে বা কারা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সেটা জানতে তদন্ত চলছে। তবে দরজা খোলা থাকায় মনে হচ্ছে পরিচিত কেউ এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। এ ঘটনায় নিহতের বাবা মো. বাবুল বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা দায়ের করেছেন।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন