যশোরে মুন্না হত্যা মামলায় ৪ জনের নামে চার্জশিট
jugantor
যশোরে মুন্না হত্যা মামলায় ৪ জনের নামে চার্জশিট

  যশোর ব্যুরো  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২৩:১০:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোর শহরের বড়বাজারের মাছ বাজারে ব্যবসায়ী শেখ ইমরান হোসেন মুন্না হত্যা মামলায় চারজনের নামে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। রোববার আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) শরিফুল ইসলাম।

অভিযুক্ত আসামিরা হলেন শহরের ঘোপ হলুদ মিলের পাশের শহিদুল ইসলামের ছেলে শরিফুল ইসলাম পলাশ, লোন অফিস পাড়ার বস্তির মৃত দুলালের ছেলে শিমুল, লোন অফিস পাড়ার যশোর ক্লথ স্টোরের পুরনো বাড়ির ভাড়াটিয়া আলমাসের ছেলে রাকিব ও বড়বাজার কাঠেরপোল এলাকার হাসিনার বাড়ির ভাড়াটিয়া রনির ছেলে ছোট হৃদয়।

জানা যায়, ইমরান হোসেন মুন্না বড়বাজারে তার চাচা শেখ রেজাউল ইসলাম রেজুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতেন। চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকাল পৌনে ৫টার দিকে মুন্না বাজারের আদমের চায়ের দোকানে চায়ের কথা বলে তিন রাস্তার মোড়ে অবস্থান করছিল। ওই সময় পূর্ব শত্রুতার জেরে আসামিরা মুন্নার ওপর হামলা করে।

এসময় এলোপাথাড়ি ছুরিকাঘাতে মুন্না গুরুতর জখম হয়। মুন্নার চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহতের চাচা শেখ রেজাউল ইসলাম রেজু চারজনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা করেন। আটক আসামিদের দেয়া তথ্য ও সাক্ষীদের বক্তব্যে যাচাই বাছাইয়ে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকায় ওই চারজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

যশোরে মুন্না হত্যা মামলায় ৪ জনের নামে চার্জশিট

 যশোর ব্যুরো 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোর শহরের বড়বাজারের মাছ বাজারে ব্যবসায়ী শেখ ইমরান হোসেন মুন্না হত্যা মামলায় চারজনের নামে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। রোববার আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) শরিফুল ইসলাম।

অভিযুক্ত আসামিরা হলেন শহরের ঘোপ হলুদ মিলের পাশের শহিদুল ইসলামের ছেলে শরিফুল ইসলাম পলাশ, লোন অফিস পাড়ার বস্তির মৃত দুলালের ছেলে শিমুল, লোন অফিস পাড়ার যশোর ক্লথ স্টোরের পুরনো বাড়ির ভাড়াটিয়া আলমাসের ছেলে রাকিব ও বড়বাজার কাঠেরপোল এলাকার হাসিনার বাড়ির ভাড়াটিয়া রনির ছেলে ছোট হৃদয়।

জানা যায়, ইমরান হোসেন মুন্না বড়বাজারে তার চাচা শেখ রেজাউল ইসলাম রেজুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতেন। চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকাল পৌনে ৫টার দিকে মুন্না বাজারের আদমের চায়ের দোকানে চায়ের কথা বলে তিন রাস্তার মোড়ে অবস্থান করছিল। ওই সময় পূর্ব শত্রুতার জেরে আসামিরা মুন্নার ওপর হামলা করে।

এসময় এলোপাথাড়ি ছুরিকাঘাতে মুন্না গুরুতর জখম হয়। মুন্নার চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহতের চাচা শেখ রেজাউল ইসলাম রেজু চারজনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা করেন। আটক আসামিদের দেয়া তথ্য ও সাক্ষীদের বক্তব্যে যাচাই বাছাইয়ে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকায় ওই চারজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন