রিকশাচালককে হত্যার দায়ে দুই সহোদরের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন
jugantor
রিকশাচালককে হত্যার দায়ে দুই সহোদরের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন

  জামালপুর প্রতিনিধি  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২৩:১২:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের ইসলামপুরে রিকশাচালক রাসেল হত্যা মামলার রায়ে সহোদর ভুট্টু ও খালেককে মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড এবং চারজন আসামিকে বেকসুর খালাসের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার দুপুরে জামালপুরের দায়রা জজ মো. জুলফিকার আলী খান এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি ভুট্টু ও খালেক ইসলামপুর উপজেলার পূর্ব শশারিয়াবাড়ী গ্রামের বুদুর ছেলে। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামিরা হলেন- একই গ্রামের ছামিউল, জহিজল, রশিদ, মো. কাশি, ফুলু মিয়া, বিদ্যুৎ ও বাবুল।

এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত মামলার আসামি হুচ্চু, ফেক্কু, ইয়া মণ্ডল ও সাহেব আলীকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার পূর্ব শশারিয়াবাড়ী গ্রামের মৃত মইন উদ্দিনের ছেলে মো. রাসেল পেশায় ছিলেন রিকশাচালক। এলাকায় বন্ধুদের সঙ্গে জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে ২০০৭ সালের ২৭ ডিসেম্বর রাতে খুন হন রিকশাচালক রাসেল।

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহত রাসেলের মা আছিয়া খাতুন বাদী হয়ে প্রতিবেশী ভুট্টু ও খালেকসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে ইসলামপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পিপি নির্মল কান্তি ভদ্র এবং আসামিপক্ষে ছিলেন মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ ও মো. আনোয়ারুল করিম শাহজাহান।

রিকশাচালককে হত্যার দায়ে দুই সহোদরের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন

 জামালপুর প্রতিনিধি 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের ইসলামপুরে রিকশাচালক রাসেল হত্যা মামলার রায়ে সহোদর ভুট্টু ও খালেককে মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড এবং চারজন আসামিকে বেকসুর খালাসের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার দুপুরে জামালপুরের দায়রা জজ মো. জুলফিকার আলী খান এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি ভুট্টু ও খালেক ইসলামপুর উপজেলার পূর্ব শশারিয়াবাড়ী গ্রামের বুদুর ছেলে। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামিরা হলেন- একই গ্রামের ছামিউল, জহিজল, রশিদ, মো. কাশি, ফুলু মিয়া, বিদ্যুৎ ও বাবুল।

এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত মামলার আসামি হুচ্চু, ফেক্কু, ইয়া মণ্ডল ও সাহেব আলীকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার পূর্ব শশারিয়াবাড়ী গ্রামের মৃত মইন উদ্দিনের ছেলে মো. রাসেল পেশায় ছিলেন রিকশাচালক। এলাকায় বন্ধুদের সঙ্গে জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে ২০০৭ সালের ২৭ ডিসেম্বর রাতে খুন হন রিকশাচালক রাসেল।

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহত রাসেলের মা আছিয়া খাতুন বাদী হয়ে প্রতিবেশী ভুট্টু ও খালেকসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে ইসলামপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পিপি নির্মল কান্তি ভদ্র এবং আসামিপক্ষে ছিলেন মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ ও মো. আনোয়ারুল করিম শাহজাহান।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন