কাশবনে তরুণীর শ্লীলতাহানির ভিডিও ভাইরাল, যুবক আটক
jugantor
কাশবনে তরুণীর শ্লীলতাহানির ভিডিও ভাইরাল, যুবক আটক

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:০১:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তরুণীকে শ্লীলতাহানির ভিডিও ভাইরালের ঘটনায় জুনায়েদ (২৪) নামের এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এর আগে রোববার রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। আটক জুনায়েদ জেলা শহরের দক্ষিণ পৈরতলার আবদুল আওয়ালের ছেলে।


বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ শাহজাহান জানান, আটক জুনায়েদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল। সে মূলহোতা রহিমের বন্ধু। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে আটক করা হয়েছে।

তিনি জানান, জুনায়েদ ঘটনার সময় উপস্থিত যারা ছিল তাদের নাম জানিয়েছে। এ ঘটনার ভিডিও ধারণ করে শাকিল নামের তাদের এক বন্ধু। আটকের পর জুনায়েদ আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পুলিশকে জানিয়েছে। কিন্তু তদন্তের স্বার্থে এখন এ বিষয়ে কিছু জানানো যাচ্ছে না।

পুলিশ পরিদর্শক শাহজাহান আরও বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেছে। এতে প্রধান আসামি রহিমসহ পাঁচজনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৫-৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফেসবুকভিত্তিক সংগঠন আমরাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া তাদের গ্রুপ “উইশ ফর বেটার ব্রাহ্মণবাড়িয়া” একটি ভিডিও পোস্ট করে। ওই ভিডিওতে শ্লীলতাহানির শিকার যুবতীর পরিচয় গোপন রাখা হয়।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, কালো বোরকা পরিহিত এক যুবতী জেলা শহরের পুনিয়াউটের কাশবনে বেড়াতে যান। সেখানে তরুণীকে উত্ত্যক্ত করা হচ্ছে। এ অবস্থায় ওই তরুণী তাদের পায়ে ধরে বড়ভাই ডেকে কাকুতি-মিনতি করছে কিন্তু তারা মেয়েটির বোরকা খোলার চেষ্টা করছে। তাদের মধ্য এক যুবক মেয়েটির সঙ্গে অশ্লীল আচরণ করে গালিগালাজ করছে। ভিডিওটি ভাইরাল হলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে।

কাশবনে তরুণীর শ্লীলতাহানির ভিডিও ভাইরাল, যুবক আটক

 ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তরুণীকে শ্লীলতাহানির ভিডিও ভাইরালের ঘটনায় জুনায়েদ (২৪) নামের এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এর আগে রোববার রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। আটক জুনায়েদ জেলা শহরের দক্ষিণ পৈরতলার আবদুল আওয়ালের ছেলে।


বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ শাহজাহান জানান, আটক জুনায়েদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল। সে মূলহোতা রহিমের বন্ধু। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে আটক  করা হয়েছে।

তিনি জানান, জুনায়েদ ঘটনার সময় উপস্থিত যারা ছিল তাদের নাম জানিয়েছে। এ ঘটনার ভিডিও ধারণ করে শাকিল নামের তাদের এক বন্ধু। আটকের পর জুনায়েদ আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পুলিশকে জানিয়েছে। কিন্তু তদন্তের স্বার্থে এখন এ বিষয়ে কিছু জানানো যাচ্ছে না।

পুলিশ পরিদর্শক শাহজাহান আরও বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেছে। এতে প্রধান আসামি রহিমসহ পাঁচজনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৫-৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফেসবুকভিত্তিক সংগঠন আমরাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া তাদের গ্রুপ “উইশ ফর বেটার ব্রাহ্মণবাড়িয়া” একটি ভিডিও পোস্ট করে। ওই ভিডিওতে শ্লীলতাহানির শিকার যুবতীর পরিচয় গোপন রাখা হয়।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, কালো বোরকা পরিহিত এক যুবতী জেলা শহরের পুনিয়াউটের কাশবনে বেড়াতে যান। সেখানে তরুণীকে উত্ত্যক্ত করা হচ্ছে। এ অবস্থায় ওই তরুণী তাদের পায়ে ধরে বড়ভাই ডেকে কাকুতি-মিনতি করছে কিন্তু তারা মেয়েটির বোরকা খোলার চেষ্টা করছে। তাদের মধ্য এক যুবক মেয়েটির সঙ্গে অশ্লীল আচরণ করে গালিগালাজ করছে। ভিডিওটি ভাইরাল হলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন