পদ্মায় নিখোঁজ ভাইবোনের সন্ধান মেলেনি, উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত
jugantor
পদ্মায় নিখোঁজ ভাইবোনের সন্ধান মেলেনি, উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত

  রাজশাহী ব্যুরো  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:২৪:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর পদ্মা নদীতে নৌকাডুবিতে নিখোঁজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী সাদিয়া ইসলাম সূচনা ও তার ফুফাতো ভাই রিমনের সন্ধান পাওয়া যায়নি। তারা আর জীবিত নেই বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

গত শুক্রবার বিকালে নৌকাডুবির পর থেকে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। রোববার সন্ধ্যায় তারা অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করে। ডুবুরি দল নদী থেকে উঠে যায়।

নিখোঁজ সাদিয়া আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের (এআইইউবি) বিবিএ তৃতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী ছিলেন। তিনি ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় বসবাস করেন। রাজশাহীর পবা উপজেলার খোলাবোনা এলাকায় চাচা জালাল উদ্দিনের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন তিনি। আর নিখোঁজ স্কুলছাত্র রিমনের বাড়ি নওগাঁ। সম্পর্কে তারা মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন।

রাজশাহী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন বলেন, সাধারণত ২৪ ঘণ্টা পর লাশ পানিতে ভেসে ওঠে। কিন্তু দুই দিন চেষ্টা করেও নিখোঁজ দুইজনকে আমরা পাইনি। তাই আমাদের ডুবুরি দল নদী থেকে উঠে গেছে। এখন আমরা অপেক্ষা করছি- কোথাও ভেসে উঠলে আমাদের খবর দেয়া হবে। তখন আমরা লাশ উদ্ধার করব।

এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এখনও কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। গত শনিবার দুপুরে দামকুড়া থানায় রাজশাহী নৌ-পুলিশের কনস্টেবল শরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে নৌকার দুই মালিকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজশাহী নৌ-পুলিশের পরিদর্শক মেহেদি মাসুদ জানান, ঘটনার পর থেকে আসামিরা পলাতক। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ১৩ জন যাত্রী নিয়ে রাজশাহী নগরীর নবগঙ্গা এলাকায় পদ্মায় একটি নৌকা ডুবে যায়। পরে ১১ জনকে উদ্ধার করা হলেও দুজন এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

পদ্মায় নিখোঁজ ভাইবোনের সন্ধান মেলেনি, উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত

 রাজশাহী ব্যুরো 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর পদ্মা নদীতে নৌকাডুবিতে নিখোঁজ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী সাদিয়া ইসলাম সূচনা ও তার ফুফাতো ভাই রিমনের সন্ধান পাওয়া যায়নি। তারা আর জীবিত নেই বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

গত শুক্রবার বিকালে নৌকাডুবির পর থেকে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। রোববার সন্ধ্যায় তারা অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করে। ডুবুরি দল নদী থেকে উঠে যায়।

নিখোঁজ সাদিয়া আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের (এআইইউবি) বিবিএ তৃতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী ছিলেন। তিনি ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় বসবাস করেন। রাজশাহীর পবা উপজেলার খোলাবোনা এলাকায় চাচা জালাল উদ্দিনের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন তিনি। আর নিখোঁজ স্কুলছাত্র রিমনের বাড়ি নওগাঁ। সম্পর্কে তারা মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন।

রাজশাহী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন বলেন, সাধারণত ২৪ ঘণ্টা পর লাশ পানিতে ভেসে ওঠে। কিন্তু দুই দিন চেষ্টা করেও নিখোঁজ দুইজনকে আমরা পাইনি। তাই আমাদের ডুবুরি দল নদী থেকে উঠে গেছে। এখন আমরা অপেক্ষা করছি- কোথাও ভেসে উঠলে আমাদের খবর দেয়া হবে। তখন আমরা লাশ উদ্ধার করব।

এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এখনও কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। গত শনিবার দুপুরে দামকুড়া থানায় রাজশাহী নৌ-পুলিশের কনস্টেবল শরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে নৌকার দুই মালিকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজশাহী নৌ-পুলিশের পরিদর্শক মেহেদি মাসুদ জানান, ঘটনার পর থেকে আসামিরা পলাতক। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ১৩ জন যাত্রী নিয়ে রাজশাহী নগরীর নবগঙ্গা এলাকায় পদ্মায় একটি নৌকা ডুবে যায়। পরে ১১ জনকে উদ্ধার করা হলেও দুজন এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন