বরের মা পছন্দ না করায় গায়েহলুদের দিন কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা
jugantor
বরের মা পছন্দ না করায় গায়েহলুদের দিন কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা

  ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:১০:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসা হল না কলেজছাত্রী মুনিয়া আক্তার মিমির। বরের মা তাকে পছন্দ না করায় এবং অপবাদ দেয়ায় রাগে ক্ষোভে অভিমানে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার হাতকোড়া গ্রামে নিজ ঘরের ভেতর থেকে ওই কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

মুনিয়া আক্তার মিমি উপজেলার গাংগুটিয়া ইউনিয়নের হাতকোড়া গ্রামের মো. আবদুল মোমেন মিয়ার মেয়ে। তিনি সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী ছিলেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পাশের বেলীশ্বর গ্রামের ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সে চাকরিরত এক যুবকের সঙ্গে ওই তরুণীর পারিবারিকভাবে বিয়ে ঠিক হয়। সোমবার গায়েহলুদ আর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিয়ে। এদিকে বরের মা ওই কলেজছাত্রীকে পছন্দ না হওয়ার কথা জানিয়ে তাকে নানা ধরনের অপবাদ দেয়। এতে রাগে ক্ষোভে অভিমানে রোববার দিনগত রাতে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে দিয়ে আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন ওই তরুণী।

ওই কলেজছাত্রীর পিতা মো. আবদুল মোমেন মিয়া বলেন, সকালে তার উঠতে বিলম্ব ও ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ দেখে পরিবারের লোকজনের মনে সন্দেহ হয়। তাকে অনেক ডাকাডাকি করে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ঘরের ভেতরে ঢুকে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান স্থানীয়রা।

এ ব্যাপারে ধামরাই থানার এসআই শেখ সেকেন্দার আলী বলেন, খবর পেয়ে ওই কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের নির্দেশ অনুযায়ী এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বরের মা পছন্দ না করায় গায়েহলুদের দিন কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা

 ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসা হল না কলেজছাত্রী মুনিয়া আক্তার মিমির। বরের মা তাকে পছন্দ না করায় এবং অপবাদ দেয়ায় রাগে ক্ষোভে অভিমানে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার হাতকোড়া গ্রামে নিজ ঘরের ভেতর থেকে ওই কলেজছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

মুনিয়া আক্তার মিমি উপজেলার গাংগুটিয়া ইউনিয়নের হাতকোড়া গ্রামের মো. আবদুল মোমেন মিয়ার মেয়ে। তিনি সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী ছিলেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পাশের বেলীশ্বর গ্রামের ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সে চাকরিরত এক যুবকের সঙ্গে ওই তরুণীর পারিবারিকভাবে বিয়ে ঠিক হয়। সোমবার গায়েহলুদ আর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিয়ে। এদিকে বরের মা ওই কলেজছাত্রীকে পছন্দ না হওয়ার কথা জানিয়ে তাকে নানা ধরনের অপবাদ দেয়। এতে রাগে ক্ষোভে অভিমানে রোববার দিনগত রাতে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে দিয়ে আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন ওই তরুণী।

ওই কলেজছাত্রীর পিতা মো. আবদুল মোমেন মিয়া বলেন, সকালে তার উঠতে বিলম্ব ও ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ দেখে পরিবারের লোকজনের মনে সন্দেহ হয়। তাকে অনেক ডাকাডাকি করে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ঘরের ভেতরে ঢুকে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান স্থানীয়রা।

এ ব্যাপারে ধামরাই থানার এসআই শেখ সেকেন্দার আলী বলেন, খবর পেয়ে ওই কলেজছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের নির্দেশ অনুযায়ী এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন