নবীনগরে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ উদ্ধার
jugantor
নবীনগরে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:০৭:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

নবীনগরে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় নাসরিন আক্তার (২২) নামে এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

নিহত নাসরিন জেলার সদর উপজেলার নাটাই ইউপি পয়াগ গাছতলা গ্রামের ওসমান মিয়ার মেয়ে।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, গত তিন বছর আগে নবীনগর উপজেলার শিবপুর খায়েরবাড়ির মো. আবুল খায়েরের ছেলে আতিকুর রহমানের (২৭) সঙ্গে বিয়ে হয় নাসরিনের।

তাদের একটি কন্যাসন্তানও রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময় তাকে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল।

বিষয়টি একাধিকবার পারিবারিকভাবে মীমাংসা করা হলেও কোনো সুফল পাওয়া যায়নি।

গত কিছু দিন আগেও আতিকুর তার স্ত্রীর কাছে ১০ হাজার টাকা দাবি করে। সোমবার সন্ধ্যায় নাসরিনের শ্বশুরবাড়ির কাছ থেকে খবর আসে নাসরিন আক্তারের ফাঁস দেয়া মরদেহ ঝুলছে।

গৃহবধূর পরিবারের অভিযোগ, নাসরিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তারা এ ঘটনার তদন্তসাপেক্ষে নিরপেক্ষ বিচারের দাবি জানান।

এ বিষয়ে ওসির দায়িত্বে থাকা নবীনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, পারিবারিক কলহের কারণে ওই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

নবীনগরে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

 ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নবীনগরে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ উদ্ধার
ফাইল ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় নাসরিন আক্তার (২২) নামে এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

নিহত নাসরিন জেলার সদর উপজেলার নাটাই ইউপি পয়াগ গাছতলা গ্রামের ওসমান মিয়ার মেয়ে।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, গত তিন বছর আগে নবীনগর উপজেলার শিবপুর খায়েরবাড়ির মো. আবুল খায়েরের ছেলে আতিকুর রহমানের (২৭) সঙ্গে বিয়ে হয় নাসরিনের।

তাদের একটি কন্যাসন্তানও রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময় তাকে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল।

বিষয়টি একাধিকবার পারিবারিকভাবে মীমাংসা করা হলেও কোনো সুফল পাওয়া যায়নি।

গত কিছু দিন আগেও আতিকুর তার স্ত্রীর কাছে ১০ হাজার টাকা দাবি করে। সোমবার সন্ধ্যায় নাসরিনের শ্বশুরবাড়ির কাছ থেকে খবর আসে নাসরিন আক্তারের ফাঁস দেয়া মরদেহ ঝুলছে।

গৃহবধূর পরিবারের অভিযোগ, নাসরিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তারা এ ঘটনার তদন্তসাপেক্ষে নিরপেক্ষ বিচারের দাবি জানান।  

এ বিষয়ে ওসির দায়িত্বে থাকা নবীনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, পারিবারিক কলহের কারণে ওই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন