নির্বাচনের পর বিএনপি নেতা হাবিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা
jugantor
নির্বাচনের পর বিএনপি নেতা হাবিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা

  ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:২৫:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

সদ্যসমাপ্ত পাবনা-৪ উপনির্বাচনের দিন ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে চ্যানেল আইয়ে বিএনপি প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের শিষ্টাচারবহির্ভূত আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়ে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা অব্যাহত রয়েছে।

নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা নূরুজ্জামান বিশ্বাস এমপির পক্ষে মঙ্গলবার দুপুরে ঈশ্বরদী প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ঈশ্বরদীর সব সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে হাবিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইছাহক আলী মালিথা বলেন, নির্বাচনে বিএনপির তৃণমূলের কোনো নেতাকর্মী মাঠে ছিলেন না। হাবিব পোস্টার লাগাননি, মাইক বের করেননি এবং কারও কাছে ভোটও চাননি। কিন্তু সাংবাদিকদের ডেকে একের পর এক অভিযোগ করে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করেছেন।

অথচ শনিবার অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে ভোট অনুষ্ঠানের পর রাতে চ্যানেল আইয়ের সরাসরি ‘টু দ্য পয়েন্ট’ অনুষ্ঠানে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের আলোচনার এক পর্যায়ে নবনির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা নূরুজ্জামান বিশ্বাসকে উদ্দেশ করে কটূক্তিপূর্ণ বক্তব্য ও শিষ্টাচারবহির্ভূতভাবে ‘থু-তু নিক্ষেপ’ করে ন্যক্কারজনক আচরণ করেছেন হাবিব। এ ঘটনায় আমরা হাবিবের প্রতি চরম ঘৃণা প্রকাশ করছি।

এ সময় ঈশ্বরদী উপজেলা কৃষক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক ভিপি মুরাদ মালিথা বলেন, হাবিব আওয়ামী লীগের সঙ্গেই শুধু বেইমানি করেনি, দুইবার বিরোধী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে দাঁড়িয়ে বিএনপির সঙ্গেও বেইমানি করেছে। নূরুজ্জামান বিশ্বাস এলাকার সর্বজন শ্রদ্ধেয় এবং তিনবারের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন। সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে বিশ্বাস সাহেব ত্যাগী, নির্যাতিত ও একজন সৎ নেতা হিসেবে এলাকায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি হিসেবে তিনি পরিচিত।

এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাদ আহমেদ, সাংগাঠনিক সম্পাদক জহুরুল হক পুনো, জেলা পরিষদের সদস্য শফিউল আলম বিশ্বাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচনের পর বিএনপি নেতা হাবিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা

 ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সদ্যসমাপ্ত পাবনা-৪ উপনির্বাচনের দিন ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে চ্যানেল আইয়ে বিএনপি প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের শিষ্টাচারবহির্ভূত আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়ে তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা অব্যাহত রয়েছে।

নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা নূরুজ্জামান বিশ্বাস এমপির পক্ষে মঙ্গলবার দুপুরে ঈশ্বরদী প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ঈশ্বরদীর সব সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে হাবিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ঈশ্বরদী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইছাহক আলী মালিথা বলেন, নির্বাচনে বিএনপির তৃণমূলের কোনো নেতাকর্মী মাঠে ছিলেন না। হাবিব পোস্টার লাগাননি, মাইক বের করেননি এবং কারও কাছে ভোটও চাননি। কিন্তু সাংবাদিকদের ডেকে একের পর এক অভিযোগ করে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করেছেন।

অথচ শনিবার অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে ভোট অনুষ্ঠানের পর রাতে চ্যানেল আইয়ের সরাসরি ‘টু দ্য পয়েন্ট’ অনুষ্ঠানে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের আলোচনার এক পর্যায়ে নবনির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা নূরুজ্জামান বিশ্বাসকে উদ্দেশ করে কটূক্তিপূর্ণ বক্তব্য ও শিষ্টাচারবহির্ভূতভাবে ‘থু-তু নিক্ষেপ’ করে ন্যক্কারজনক আচরণ করেছেন হাবিব। এ ঘটনায় আমরা হাবিবের প্রতি চরম ঘৃণা প্রকাশ করছি।

এ সময় ঈশ্বরদী উপজেলা কৃষক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক ভিপি মুরাদ মালিথা বলেন, হাবিব আওয়ামী লীগের সঙ্গেই শুধু বেইমানি করেনি, দুইবার বিরোধী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে দাঁড়িয়ে বিএনপির সঙ্গেও বেইমানি করেছে। নূরুজ্জামান বিশ্বাস এলাকার সর্বজন শ্রদ্ধেয় এবং তিনবারের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন। সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে বিশ্বাস সাহেব ত্যাগী, নির্যাতিত ও একজন সৎ নেতা হিসেবে এলাকায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি হিসেবে তিনি পরিচিত।

এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাদ আহমেদ, সাংগাঠনিক সম্পাদক জহুরুল হক পুনো, জেলা পরিষদের সদস্য শফিউল আলম বিশ্বাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন