ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রামবাসীর সংঘর্ষে ২ যুবক নিহত
jugantor
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রামবাসীর সংঘর্ষে ২ যুবক নিহত

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি  

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:৫০:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে দু’দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে ২ যুবক নিহত এবং কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার লালপুর ইউনিয়নের লামা বায়েক গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার লালপুর লামা বায়েক গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে ইশান (২২) ও সিরাজুল ইসলামের ছেলে মনির হোসেন (২৪)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার সন্ধ্যায় দোকানে আড্ডা দেয়ার সময় বাদশা মিয়ার বাড়ির আহমদ আলীর ছেলে আলী আজম ও বেপারিবাড়ির মতলব মিয়ার ছেলে দুলাল মিয়ার কথাকাটাকাটি হয়। এ সময় আলী আজম দুলালকে চর-থাপ্পড় মারে। এরই সূত্র ধরে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় বেপারিবাড়ির মিলন মিয়ার ছেলে ইশান ঘটনাস্থলেই নিহত হন। একই বাড়ির সিরাজুল ইসলামের ছেলে মনিরকে গুরুতর আহত অবস্থায় জেলা সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যুবরণ করেন। বাকি আহতদের স্থানীয় ও জেলা সদর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গ্রামবাসীর সংঘর্ষে ২ যুবক নিহত

 ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি 
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে দু’দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে ২ যুবক নিহত এবং কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার লালপুর ইউনিয়নের লামা বায়েক গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার লালপুর লামা বায়েক গ্রামের মিলন মিয়ার ছেলে ইশান (২২) ও সিরাজুল ইসলামের ছেলে মনির হোসেন (২৪)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, সোমবার সন্ধ্যায় দোকানে আড্ডা দেয়ার সময় বাদশা মিয়ার বাড়ির আহমদ আলীর ছেলে আলী আজম ও বেপারিবাড়ির মতলব মিয়ার ছেলে দুলাল মিয়ার কথাকাটাকাটি হয়। এ সময় আলী আজম  দুলালকে চর-থাপ্পড় মারে। এরই সূত্র ধরে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় বেপারিবাড়ির মিলন মিয়ার ছেলে ইশান ঘটনাস্থলেই নিহত হন। একই বাড়ির সিরাজুল ইসলামের ছেলে মনিরকে গুরুতর আহত অবস্থায় জেলা সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যুবরণ করেন। বাকি আহতদের স্থানীয় ও জেলা সদর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন