‘টেকনাফ থানায় অতীতের মতো কোনো কর্মকাণ্ড হবে না’
jugantor
‘টেকনাফ থানায় অতীতের মতো কোনো কর্মকাণ্ড হবে না’

  টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৯:০০:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

‘টেকনাফ থানায় অতীতের মতো কোনো কর্মকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি হবে না, অতীতে যা হয়েছে তা আর দেখা যাবে না। কোনো অবৈধ লেনদেন হবে না, খারাপ লোকের স্থান থানায় হবে না।’

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন বুধবার সকালে টেকনাফ থানা পরিদর্শনকালে বরখাস্ত সাবেক ওসি প্রদীপ দাশের সময়ের অনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু পুলিশ সদস্যরা সবাই নতুন, তাই কারা মাদক ব্যবসায়ী সেটা জানতে হবে এবং মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা যাচাই-বাছাই করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সম্পূর্ণ পেশাদারিত্বের সঙ্গে মাদকসহ সব অপরাধের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে পুলিশ। মাদক সেবনকারী ও মাদক ব্যবসায়ী সবার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডিআইজি বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরসহ অন্যান্য সংস্থা মাদক নিয়ে কাজ করছে। সবার সঙ্গে সমন্বয় করে মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করা হবে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বিষয়ে তিনি বলেন, সেখানে এপিবিএনের দুইটি ব্যাটালিয়ন কাজ করছে। তাছাড়া শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার সেখানে দায়িত্বে আছেন; সবার সঙ্গে সমন্বিতভাবে মাদক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে।

এ সময় কক্সবাজার পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান বলেন, অতীতে কী হয়েছে আমাদের জানা নেই। আমাদের নতুন মিশন। সর্বোত্তম সেবার প্রত্যয় নিয়ে পেশাদারিত্বের সঙ্গে আমরা কাজ করব। ভালো লোকের মর্যাদা দেয়া হবে। খারাপ টাউট-বাটপাড়দের চিহ্নিত করা হবে, থানায় কোনোভাবেই তাদের জায়গা হবে না। এ সময় যোগদানকৃত পুলিশ সদস্যদের বিভিন্ন বিষয়ে নির্দেশনা দেন তিনি।

ডিআইজি মঙ্গলবার কক্সবাজার যান। সেখানে নতুন যোগদানকৃত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি কক্সবাজার সদর মডেল থানা, রামু থানা, চকরিয়া থানা ও উখিয়া থানা পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তিনি পুলিশ সদস্যদের সুনাম ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দেন।

‘টেকনাফ থানায় অতীতের মতো কোনো কর্মকাণ্ড হবে না’

 টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

‘টেকনাফ থানায় অতীতের মতো কোনো কর্মকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি হবে না, অতীতে যা হয়েছে তা আর দেখা যাবে না। কোনো অবৈধ লেনদেন হবে না, খারাপ লোকের স্থান থানায় হবে না।’

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন বুধবার সকালে টেকনাফ থানা পরিদর্শনকালে বরখাস্ত সাবেক ওসি প্রদীপ দাশের সময়ের অনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু পুলিশ সদস্যরা সবাই নতুন, তাই কারা মাদক ব্যবসায়ী সেটা জানতে হবে এবং মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা যাচাই-বাছাই করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সম্পূর্ণ পেশাদারিত্বের সঙ্গে মাদকসহ সব অপরাধের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে পুলিশ। মাদক সেবনকারী ও মাদক ব্যবসায়ী সবার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডিআইজি বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরসহ অন্যান্য সংস্থা মাদক নিয়ে কাজ করছে। সবার সঙ্গে সমন্বয় করে মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করা হবে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বিষয়ে তিনি বলেন, সেখানে এপিবিএনের দুইটি ব্যাটালিয়ন কাজ করছে। তাছাড়া শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার সেখানে দায়িত্বে আছেন; সবার সঙ্গে সমন্বিতভাবে মাদক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে।

এ সময় কক্সবাজার পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান বলেন, অতীতে কী হয়েছে আমাদের জানা নেই। আমাদের নতুন মিশন। সর্বোত্তম সেবার প্রত্যয় নিয়ে পেশাদারিত্বের সঙ্গে আমরা কাজ করব। ভালো লোকের মর্যাদা দেয়া হবে। খারাপ টাউট-বাটপাড়দের চিহ্নিত করা হবে, থানায় কোনোভাবেই তাদের জায়গা হবে না। এ সময় যোগদানকৃত পুলিশ সদস্যদের বিভিন্ন বিষয়ে নির্দেশনা দেন তিনি।

ডিআইজি মঙ্গলবার কক্সবাজার যান। সেখানে নতুন যোগদানকৃত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি কক্সবাজার সদর মডেল থানা, রামু থানা, চকরিয়া থানা ও উখিয়া থানা পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তিনি পুলিশ সদস্যদের সুনাম ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন