মা-মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার দুই যুবকের স্বীকারোক্তি
jugantor
মা-মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার দুই যুবকের স্বীকারোক্তি

  হবিগঞ্জ ও চুনারুঘাট প্রতিনিধি  

০৫ অক্টোবর ২০২০, ২১:২৫:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে রাতভর মা ও মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার দুই লম্পট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। সোমবার বিকালে তারা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ জবানবন্দি দেয়। পরে তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে তারা জবানবন্দি দেয়। একইদিন নির্যাতনের শিকার মা ও মেয়ের জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন বিচারক।

চুনারুঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চম্পক দাম জানিয়েছেন, সোমবার বেলা ১২টা থেকে একটা পর্যন্ত ভিকটিম মা-মেয়ের জবানবন্দি গ্রহণ করেন বিচারক। এরপর দুপুর ১টা থেকে পৌনে ৩টা পর্যন্ত গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার শাকিল আহমেদ ও হারুন মিয়া তাদের অপরাধ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে ওই উপজেলার জিদর গ্রামের শফিক মিয়ার ছেলে মামলার প্রধান আসামি শাকিল মিয়া ও একই গ্রামের রেজ্জাক মিয়ার ছেলে হারুন মিয়া। এর আগে রোববার বিকালে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাতে চুনারুঘাট উপজেলার রানীগাঁও ইউনিয়নের পাহাড়ি এলাকা গরমছড়ি ফরেস্ট মাজারসংলগ্ন একটি বাড়িতে আসে একদল যুবক। প্রথমে যুবকরা দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে মা ও মেয়েকে জিম্মি করে স্বর্ণালংকার ও গরু নিয়ে যায়।

তারা ডাকাতি করে চলে যাওয়ার সময় মা ও মেয়ের মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে। এতে অজ্ঞান হয়ে পড়েন মা ও মেয়ে। কিছুক্ষণ পর জ্ঞান ফিরলে তারা চিৎকার করেন। পরে প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে ইউপি সদস্যকে জানান।

চুনারুঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চম্পক ধাম জানান, এ ঘটনায় শনিবার রাতে তিনজনের নাম উল্লেখসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ভুক্তভোগী মা। পুলিশ রোববার সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামিসহ ২ জনকে গ্রেফতার করে। অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ভিকটিমদের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে তিনি জানান।

মা-মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার দুই যুবকের স্বীকারোক্তি

 হবিগঞ্জ ও চুনারুঘাট প্রতিনিধি 
০৫ অক্টোবর ২০২০, ০৯:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে রাতভর মা ও মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার দুই লম্পট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। সোমবার বিকালে তারা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ জবানবন্দি দেয়। পরে তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে তারা জবানবন্দি দেয়। একইদিন নির্যাতনের শিকার মা ও মেয়ের জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন বিচারক।

চুনারুঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চম্পক দাম জানিয়েছেন, সোমবার বেলা ১২টা থেকে একটা পর্যন্ত ভিকটিম মা-মেয়ের জবানবন্দি গ্রহণ করেন বিচারক। এরপর দুপুর ১টা থেকে পৌনে ৩টা পর্যন্ত গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার শাকিল আহমেদ ও হারুন মিয়া তাদের অপরাধ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে ওই উপজেলার জিদর গ্রামের শফিক মিয়ার ছেলে মামলার প্রধান আসামি শাকিল মিয়া ও একই গ্রামের রেজ্জাক মিয়ার ছেলে হারুন মিয়া। এর আগে রোববার বিকালে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাতে চুনারুঘাট উপজেলার রানীগাঁও ইউনিয়নের পাহাড়ি এলাকা গরমছড়ি ফরেস্ট মাজারসংলগ্ন একটি বাড়িতে আসে একদল যুবক। প্রথমে যুবকরা দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে মা ও মেয়েকে জিম্মি করে স্বর্ণালংকার ও গরু নিয়ে যায়।

তারা ডাকাতি করে চলে যাওয়ার সময় মা ও মেয়ের মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে। এতে অজ্ঞান হয়ে পড়েন মা ও মেয়ে। কিছুক্ষণ পর জ্ঞান ফিরলে তারা চিৎকার করেন। পরে প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে ইউপি সদস্যকে জানান।

চুনারুঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চম্পক ধাম জানান, এ ঘটনায় শনিবার রাতে তিনজনের নাম উল্লেখসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ভুক্তভোগী মা। পুলিশ রোববার সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামিসহ ২ জনকে গ্রেফতার করে। অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ভিকটিমদের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে তিনি জানান।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন