বেতন-বোনাসের দাবিতে ২৩ বাগানে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি
jugantor
বেতন-বোনাসের দাবিতে ২৩ বাগানে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

  কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি  

০৭ অক্টোবর ২০২০, ১৫:১৭:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বেতন-বোনাসের দাবিতে ২৩ বাগানে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজার আগে দৈনিক মজুরি বৃদ্ধি ও উৎসব বোনাসের দাবিতে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মনু-ধলই ভ্যালির (অঞ্চলের) ২৩টি চা বাগানে ২ ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করেন চা শ্রমিকরা।

বুধবার সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত মিছিলে মুখরিত ছিল চা বাগানগুলো।

কর্মসূচি পালনকালে চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রতিদিন মাত্র ১০২ টাকার মজুরিতে একেকটি পরিবারের ৬ থেকে ৭ সদস্যের জীবনযাপন খুবই কষ্টকর। প্রতি দুই বছর অন্তর চা শ্রমিক ইউনিয়ন ও চা বাগান মালিক পক্ষের সংগঠন বাংলাদেশি চা সংসদের মধ্যে বৈঠক করে মজুরি বৃদ্ধি করা হয়।

মজুরি বৃদ্ধির মেয়াদ শেষে আরও কয়েক মাস অতিক্রম করলে নতুন করে চা শ্রমিকদের মজুরি এখনও বৃদ্ধি হয়নি। ফলে চা শ্রমিক পরিবারগুলো মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তাই এখন বাধ্য হয়ে একযোগে দেশের ২৩টি চা বাগানে ২ ঘণ্টার কর্মবিরতি পালনসহ বিক্ষোভ মিছিল চলছে।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাম ভজন কৈরী বলেন, চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি বৃদ্ধি একটি নিয়মতান্ত্রিক বিষয়। চা বাগানের মালিকপক্ষের সংগঠন বাংলাদেশি চা সংসদ সময়ের মধ্যে মজুরি বৃদ্ধি না করায় চা শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে।

তিনি জোর দাবি জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি করে ও সঙ্গে সঙ্গে উৎসব বোনাস প্রদান করতে হবে।

বেতন-বোনাসের দাবিতে ২৩ বাগানে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

 কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি 
০৭ অক্টোবর ২০২০, ০৩:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বেতন-বোনাসের দাবিতে ২৩ বাগানে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি
ছবি: যুগান্তর

আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজার আগে দৈনিক মজুরি বৃদ্ধি ও উৎসব বোনাসের দাবিতে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মনু-ধলই ভ্যালির (অঞ্চলের) ২৩টি চা বাগানে ২ ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করেন চা শ্রমিকরা।

বুধবার সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত মিছিলে মুখরিত ছিল চা বাগানগুলো।

কর্মসূচি পালনকালে চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রতিদিন মাত্র ১০২ টাকার মজুরিতে একেকটি পরিবারের ৬ থেকে ৭ সদস্যের জীবনযাপন খুবই কষ্টকর। প্রতি দুই বছর অন্তর চা শ্রমিক ইউনিয়ন ও চা বাগান মালিক পক্ষের সংগঠন বাংলাদেশি চা সংসদের মধ্যে বৈঠক করে মজুরি বৃদ্ধি করা হয়।

মজুরি বৃদ্ধির মেয়াদ শেষে আরও কয়েক মাস অতিক্রম করলে নতুন করে চা শ্রমিকদের মজুরি এখনও বৃদ্ধি হয়নি। ফলে চা শ্রমিক পরিবারগুলো মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তাই এখন বাধ্য হয়ে একযোগে দেশের ২৩টি চা বাগানে ২ ঘণ্টার কর্মবিরতি পালনসহ বিক্ষোভ মিছিল চলছে।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাম ভজন কৈরী বলেন, চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি বৃদ্ধি একটি নিয়মতান্ত্রিক বিষয়। চা বাগানের মালিকপক্ষের সংগঠন বাংলাদেশি চা সংসদ সময়ের মধ্যে মজুরি বৃদ্ধি না করায় চা শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে।

তিনি জোর দাবি জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি করে ও সঙ্গে সঙ্গে উৎসব বোনাস প্রদান করতে হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন