ধর্ষণের অভিযোগে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার
jugantor
ধর্ষণের অভিযোগে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

  হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

০৮ অক্টোবর ২০২০, ২১:০৪:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার হোমনায় বিয়ের প্রলোভনে চার বছর ধরে তালাকপ্রাপ্ত নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিপন সরকারকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার রাতে হোমনা থানার এসআই আশিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বাঞ্ছারামপুর উপজেলাধীন বাঞ্ছারামপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রিপন সরকার বাঞ্ছারামপুর গ্রামের মৃত ফজলুল হকের ছেলে।

জানা গেছে, হোমনা উপজেলার তালাকপ্রাপ্ত এক নারীর সঙ্গে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিপন সরকার নিজেকে অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে ২০১৭ সাল থেকে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলেন। হোমনা উপজেলা সদরে বাসা ভাড়া করে বসবাস করেন তারা। পরে রিপন বিবাহিত এবং সন্তানের জনক জানতে পেরে তাকে বিবাহের জন্য চাপ দিলে তিনি টালবাহানা করে সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন। এ নিয়ে হোমনায় একাধিক বৈঠক হয়েছে। কিন্তু রিপন বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় ওই নারী কুমিল্লা জেলা নারী ও শিশু দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন।

হোমনা থানার ওসি মো. আবুল কায়েস আকন্দ যুগান্তরকে জানান, ওই নারী বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগে কোর্টে মামলা করেন। কোর্টের নির্দেশে আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ধর্ষণের অভিযোগে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

 হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
০৮ অক্টোবর ২০২০, ০৯:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার হোমনায় বিয়ের প্রলোভনে চার বছর ধরে তালাকপ্রাপ্ত নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিপন সরকারকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

বুধবার রাতে হোমনা থানার এসআই  আশিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বাঞ্ছারামপুর উপজেলাধীন বাঞ্ছারামপুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রিপন সরকার বাঞ্ছারামপুর গ্রামের মৃত ফজলুল হকের ছেলে।

জানা গেছে, হোমনা উপজেলার তালাকপ্রাপ্ত এক নারীর সঙ্গে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিপন সরকার নিজেকে অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে ২০১৭ সাল থেকে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলেন। হোমনা উপজেলা সদরে বাসা ভাড়া করে বসবাস করেন তারা। পরে রিপন বিবাহিত এবং সন্তানের জনক জানতে পেরে তাকে বিবাহের জন্য চাপ দিলে তিনি টালবাহানা করে সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন। এ নিয়ে হোমনায় একাধিক বৈঠক হয়েছে। কিন্তু রিপন বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় ওই নারী কুমিল্লা জেলা নারী ও শিশু দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন।

হোমনা থানার ওসি মো. আবুল কায়েস আকন্দ যুগান্তরকে জানান, ওই নারী বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগে কোর্টে মামলা করেন। কোর্টের নির্দেশে  আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন