দুই পায়ের রগ কেটে ফেলে যাওয়া সেই শিক্ষকের মৃত্যু
jugantor
দুই পায়ের রগ কেটে ফেলে যাওয়া সেই শিক্ষকের মৃত্যু

  বগুড়া ব্যুরো  

০৯ অক্টোবর ২০২০, ২২:২১:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে দুই পায়ের রগ কেটে ও মাথায় আঘাত করে ফেলে যাওয়া স্কুলশিক্ষক সাইফুল ইসলাম ওরফে শফিকুল মাস্টার (৫৫) মারা গেছেন। প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর তিনি শুক্রবার দুপুরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে মারা যান।

সারিয়াকান্দি থানার ওসি আল আমিন জানান, স্কুলে নিয়োগ ও গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। বিকাল পর্যন্ত মামলা হয়নি। ঘাতকদের চিহ্নিত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ ও স্বজনরা জানান, সাইফুল ইসলাম ওরফে শফিকুল মাস্টার সারিয়াকান্দির উপজেলার মাঝবাড়ি গ্রামের মৃত হাইতুল্যা প্রামাণিকের ছেলে। তিনি গাবতলীর দুর্গাহাটা বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। তিনি ৭ অক্টোবর বুধবার সকালে বগুড়া শহরের নারুলীর বাড়ি থেকে বের হয়ে স্কুলে যান। রাতে বাড়ি না ফেরায় পরিবারের সদস্যরা সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজ করে ব্যর্থ হন।

বৃহস্পতিবার সকালে পথচারীরা মাঝবাড়ি গ্রামের তালদহ মাঠে রাস্তার পাশে তাকে পড়ে থাকতে দেখেন। দুর্বৃত্তরা তার দুই পায়ের রগ কেটে ও মাথায় আঘাত করে মৃত ভেবে সেখানে ফেলে যায়। পুলিশ তাকে উদ্ধার করে প্রথমে সারিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থার অবনতি হলে তাকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বগুড়ার সিলিমপুর মেডিকেল ফাঁড়ির এসআই আবদুল আজিজ মণ্ডল জানান, শিক্ষক শফিকুল শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। লাশ একই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সারিয়াকান্দি থানার ওসি আল আমিন জানান, রাতে কিছু সময়ের জন্য তার জ্ঞান ফিরলেও ঘাতকদের পরিচয় বলতে পারেননি। বিকাল পর্যন্ত কেউ মামলা করতে আসেনি।

তিনি আরও বলেন, ঘাতকদের শনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
নিহতের স্ত্রী পাপিয়া সুলতানা জানান, স্কুলে নিয়োগ নিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে ও গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এসব নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন আছে।

তিনি দাবি করেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরে তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি ঘাতকদের ফাঁসি দাবি করেছেন।

দুই পায়ের রগ কেটে ফেলে যাওয়া সেই শিক্ষকের মৃত্যু

 বগুড়া ব্যুরো 
০৯ অক্টোবর ২০২০, ১০:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে দুই পায়ের রগ কেটে ও মাথায় আঘাত করে ফেলে যাওয়া স্কুলশিক্ষক সাইফুল ইসলাম ওরফে শফিকুল মাস্টার (৫৫) মারা গেছেন। প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর তিনি শুক্রবার দুপুরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে মারা যান।

সারিয়াকান্দি থানার ওসি আল আমিন জানান, স্কুলে নিয়োগ ও গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। বিকাল পর্যন্ত মামলা হয়নি। ঘাতকদের চিহ্নিত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ ও স্বজনরা জানান, সাইফুল ইসলাম ওরফে শফিকুল মাস্টার সারিয়াকান্দির উপজেলার মাঝবাড়ি গ্রামের মৃত হাইতুল্যা প্রামাণিকের ছেলে। তিনি গাবতলীর দুর্গাহাটা বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। তিনি ৭ অক্টোবর বুধবার সকালে বগুড়া শহরের নারুলীর বাড়ি থেকে বের হয়ে স্কুলে যান। রাতে বাড়ি না ফেরায় পরিবারের সদস্যরা সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজ করে ব্যর্থ হন।

বৃহস্পতিবার সকালে পথচারীরা মাঝবাড়ি গ্রামের তালদহ মাঠে রাস্তার পাশে তাকে পড়ে থাকতে দেখেন। দুর্বৃত্তরা তার দুই পায়ের রগ কেটে ও মাথায় আঘাত করে মৃত ভেবে সেখানে ফেলে যায়। পুলিশ তাকে উদ্ধার করে প্রথমে সারিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থার অবনতি হলে তাকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বগুড়ার সিলিমপুর মেডিকেল ফাঁড়ির এসআই আবদুল আজিজ মণ্ডল জানান, শিক্ষক শফিকুল শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। লাশ একই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সারিয়াকান্দি থানার ওসি আল আমিন জানান, রাতে কিছু সময়ের জন্য তার জ্ঞান ফিরলেও ঘাতকদের পরিচয় বলতে পারেননি। বিকাল পর্যন্ত কেউ মামলা করতে আসেনি।

তিনি আরও বলেন, ঘাতকদের শনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
নিহতের স্ত্রী পাপিয়া সুলতানা জানান, স্কুলে নিয়োগ নিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে ও গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এসব নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন আছে।

তিনি দাবি করেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরে তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি ঘাতকদের ফাঁসি দাবি করেছেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন