মোবাইলে প্রেম করে বিয়ে, ৪ মাস পর আত্মহত্যা
jugantor
মোবাইলে প্রেম করে বিয়ে, ৪ মাস পর আত্মহত্যা

  মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

১০ অক্টোবর ২০২০, ২২:০২:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মিতু আক্তার (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রী মোবাইলে প্রেম করে বিয়ে করে। বিয়ের ৪ মাস পর বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।

পুলিশ শুক্রবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে শনিবার ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর জেলা মর্গে প্রেরণ করেছে। মিতু উপজেলার খেতাছিঁড়া গ্রামের চান মিয়ার মেয়ে ও স্থানীয় হাজিগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মিতু বাকেরগঞ্জের বালিপাড়া গ্রামের মৃত আনোয়ার মোল্লার ছেলে তানজিল মোল্লার সঙ্গে মোবাইলে প্রেমের সম্পর্কে চার মাস পূর্বে পালিয়ে বিয়ে করে। মিতু ওই বাড়িতে গিয়ে জানতে পারে তানজিলের আগেও স্ত্রী ও সন্তান আছে।

একপর্যায়ে বাকেরগঞ্জ থেকে তানজিলের সঙ্গে মিতু চট্টগ্রামে গিয়ে দুজনে গার্মেন্টসে চাকরি নেয়। কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পর তানজিল মিতুকে রেখে পালিয়ে বাকেরগঞ্জের বাড়িতে আসে। মিতু চট্টগ্রামের ঘরমালিকের সহায়তায় ৪-৫ দিন আগে বাবার বাড়িতে আসে।

বৃহস্পতিবার মিতুর সঙ্গে তানজিল মোবাইল ফোনে পুনরায় কথা বলে। শুক্রবার সকালে পরিবারের লোকজনের অগোচরে বাড়িসংলগ্ন বেড়িবাঁধের পাশে গিয়ে মিতু বিষপান করে। পথচারীরা দেখে পরিবারের লোকজনকে অবহিত করলে তারা মিতুকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে আসেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে মিতুর লাশ উদ্ধার করে।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মোবাইলে প্রেম করে বিয়ে, ৪ মাস পর আত্মহত্যা

 মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
১০ অক্টোবর ২০২০, ১০:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মিতু আক্তার (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রী মোবাইলে প্রেম করে বিয়ে করে। বিয়ের ৪ মাস পর বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।

পুলিশ শুক্রবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে শনিবার ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর জেলা মর্গে প্রেরণ করেছে। মিতু উপজেলার খেতাছিঁড়া গ্রামের চান মিয়ার মেয়ে ও স্থানীয় হাজিগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মিতু বাকেরগঞ্জের বালিপাড়া গ্রামের মৃত আনোয়ার মোল্লার ছেলে তানজিল মোল্লার সঙ্গে মোবাইলে প্রেমের সম্পর্কে চার মাস পূর্বে পালিয়ে বিয়ে করে। মিতু ওই বাড়িতে গিয়ে জানতে পারে তানজিলের আগেও স্ত্রী ও সন্তান আছে।

একপর্যায়ে বাকেরগঞ্জ থেকে তানজিলের সঙ্গে মিতু চট্টগ্রামে গিয়ে দুজনে গার্মেন্টসে চাকরি নেয়। কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পর তানজিল মিতুকে রেখে পালিয়ে বাকেরগঞ্জের বাড়িতে আসে। মিতু চট্টগ্রামের ঘরমালিকের সহায়তায় ৪-৫ দিন আগে বাবার বাড়িতে আসে।

বৃহস্পতিবার মিতুর সঙ্গে তানজিল মোবাইল ফোনে পুনরায় কথা বলে। শুক্রবার সকালে পরিবারের লোকজনের অগোচরে বাড়িসংলগ্ন বেড়িবাঁধের পাশে গিয়ে মিতু বিষপান করে। পথচারীরা দেখে পরিবারের লোকজনকে অবহিত করলে তারা মিতুকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে আসেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে মিতুর লাশ উদ্ধার করে।

মঠবাড়িয়া থানার ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন