মায়ের পরকীয়া জেনে ফেলায় ছেলেকে হত্যা, গ্রেফতার ৫ 
jugantor
মায়ের পরকীয়া জেনে ফেলায় ছেলেকে হত্যা, গ্রেফতার ৫ 

  ময়মনসিংহ ব্যুরো  

১৫ অক্টোবর ২০২০, ২০:০০:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে চাঞ্চল্যকর পারভেজ হত্যার রহস্য উদঘাটন এবং ওই মামলার প্রধান আসামিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে র্যাব-১৪। বুধবার রাতে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- নিহত পারভেজের মা মোছা. রোজিনা আক্তার (৩২), প্রধান আসামি মরিচারচর গ্রামের এমদাদুল হক (৩৮), একই গ্রামের মো. গনি (৪৫), সুলতান উদ্দিন (৪০) ও রুহুল আমিন (৫৮)।

মায়ের সঙ্গে এমদাদুলের পরকীয়ার খবর জেনে যাওয়ায় পারভেজকে হত্যার পরিকল্পনা করে মা রোজিনা আক্তার ও এমদাদুল হক। পরে অর্থের বিনিময়ে পারভেজকে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের নামাপাড়া এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ে ফেলে রাখে বলে র্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে গ্রেফতারকৃতরা।

বৃহস্পতিবার বিকালে র্যাব-১৪ এর মিডিয়া অফিসার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

তিনি জানান, নিহত স্কুলছাত্র পারভেজ মিয়ার মা মোছা. রোজিনা আক্তারের সঙ্গে স্থানীয় প্রতিবেশী এমদাদুল হকের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি তার ছেলে পারভেজ জানতে পারলে তার মা ও এমদাদুল হক হত্যার পরিকল্পনা করে। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী ১১ অক্টোবর অর্থের বিনিময়ে অন্য আসামিদের ভাড়া করে পারভেজকে হত্যা করে এবং লাশ ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ে ফেলে রাখে।

এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা রুজু হয়। এরপর র্যাব তদন্ত করে মামলার রহস্য উদঘাটন করে আসামিদের গ্রেফতার করে।

মায়ের পরকীয়া জেনে ফেলায় ছেলেকে হত্যা, গ্রেফতার ৫ 

 ময়মনসিংহ ব্যুরো 
১৫ অক্টোবর ২০২০, ০৮:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে চাঞ্চল্যকর পারভেজ হত্যার রহস্য উদঘাটন এবং ওই মামলার প্রধান আসামিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে র্যাব-১৪। বুধবার রাতে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- নিহত পারভেজের মা মোছা. রোজিনা আক্তার (৩২), প্রধান আসামি মরিচারচর গ্রামের এমদাদুল হক (৩৮), একই গ্রামের মো. গনি (৪৫), সুলতান উদ্দিন (৪০) ও রুহুল আমিন (৫৮)। 

মায়ের সঙ্গে এমদাদুলের পরকীয়ার খবর জেনে যাওয়ায় পারভেজকে হত্যার পরিকল্পনা করে মা রোজিনা আক্তার ও এমদাদুল হক। পরে অর্থের বিনিময়ে পারভেজকে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের নামাপাড়া এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ে ফেলে রাখে বলে র্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে গ্রেফতারকৃতরা।

বৃহস্পতিবার বিকালে র্যাব-১৪ এর মিডিয়া অফিসার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

তিনি জানান, নিহত স্কুলছাত্র পারভেজ মিয়ার মা মোছা. রোজিনা আক্তারের সঙ্গে স্থানীয় প্রতিবেশী এমদাদুল হকের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি তার ছেলে পারভেজ জানতে পারলে তার মা ও এমদাদুল হক হত্যার পরিকল্পনা করে। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী ১১ অক্টোবর অর্থের বিনিময়ে অন্য আসামিদের ভাড়া করে পারভেজকে হত্যা করে এবং লাশ ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ে ফেলে রাখে। 

এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা রুজু হয়। এরপর র্যাব তদন্ত করে মামলার রহস্য উদঘাটন করে আসামিদের গ্রেফতার করে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন