রাজৈরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ
jugantor
রাজৈরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ

  টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

১৮ অক্টোবর ২০২০, ২২:১৫:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদারীপুর

মাদারীপুরের রাজৈরে এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। এ সংঘর্ষে পুলিশের এক এএসআইসহ উভয় পক্ষের অন্তত অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।

শনিবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের মাচ্চর বাজিতপুর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আহতদের রাজৈর, মাদারীপুর ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৭ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ৮৫ জন নামীয়সহ ও অজ্ঞাত ৯০০ জনকে আসামি করে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, পূর্বশত্রুতা ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের মাচ্চর বাজিতপুর গ্রামের বিবদমান দুটি পক্ষ শুক্রবার জুমার পর ওবায়দুর রহমান সান্টু খালাশী ও গাউস শেখের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। এক পর্যায় গাউস শেখকে মসজিদ থেকে বের করে মারধর করা হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শনিবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত দুই পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের এএসআই এনায়েত হোসেন, কনস্টেবল আবুল খায়ের, বিপ্লব হোসেন, আবু সবুরসহ অন্তত অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। মারাত্মক আহত মোতালেব খালাশী (৬৫), আবু খালাশী (৫৫), আরিফ বয়াতী (২৫), হবি খালাশী (৫৫), মতিউর খালাশী (৪৫), শামীম হোসেন (২৫), সজল খালাশী (২০), জাহাঙ্গীর বয়াতী (৪০), বিল্লাল খালাশী (৬০), সহিদ তালুকদার (২১), ইব্রাহিম খান (৩০), জাহিদ খান (২১), গাফফার খান (৪০), সামাদ খান (৩০), রিপন খান (২৮), নান্নু খালাশী (৩৫), অনিক খান (২০), শাহাদাত খানকে (৩২) রাজৈর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে ।
রাজৈর থানার ওসি শেখ সাদি জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৭ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলিবর্ষণ করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় একজন এএসআইসহ ৪ পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। পুলিশ বাদী হয়ে এ ব্যাপারে ৮৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৯০০ থেকে ১০০০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রাজৈরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ

 টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
১৮ অক্টোবর ২০২০, ১০:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মাদারীপুর
মাদারীপুর

মাদারীপুরের রাজৈরে এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। এ সংঘর্ষে পুলিশের এক এএসআইসহ উভয় পক্ষের অন্তত অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। 

শনিবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত  প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের মাচ্চর বাজিতপুর  গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আহতদের রাজৈর, মাদারীপুর ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। 

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৭ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে। এলাকায়  অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে  ৮৫ জন নামীয়সহ ও অজ্ঞাত ৯০০ জনকে আসামি করে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। 

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, পূর্বশত্রুতা ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের মাচ্চর বাজিতপুর  গ্রামের বিবদমান দুটি পক্ষ শুক্রবার জুমার পর ওবায়দুর রহমান সান্টু খালাশী ও গাউস শেখের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়।  এক পর্যায় গাউস শেখকে মসজিদ থেকে বের করে মারধর করা হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শনিবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত দুই পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। 

প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের এএসআই এনায়েত হোসেন, কনস্টেবল আবুল খায়ের, বিপ্লব হোসেন, আবু সবুরসহ অন্তত অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। মারাত্মক আহত মোতালেব খালাশী (৬৫), আবু খালাশী (৫৫), আরিফ বয়াতী (২৫), হবি খালাশী (৫৫), মতিউর খালাশী (৪৫), শামীম হোসেন (২৫), সজল খালাশী (২০), জাহাঙ্গীর বয়াতী (৪০), বিল্লাল খালাশী (৬০), সহিদ তালুকদার (২১), ইব্রাহিম খান (৩০), জাহিদ খান (২১), গাফফার খান (৪০), সামাদ খান (৩০), রিপন খান (২৮), নান্নু খালাশী (৩৫), অনিক খান (২০), শাহাদাত খানকে (৩২) রাজৈর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে । 
রাজৈর থানার ওসি শেখ সাদি জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৭ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলিবর্ষণ  করা হয়েছে। সংঘর্ষের সময় একজন এএসআইসহ ৪ পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন।  পুলিশ বাদী হয়ে এ ব্যাপারে ৮৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৯০০ থেকে ১০০০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন