রাস্তা থেকে তুলে চরে নিয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ
jugantor
রাস্তা থেকে তুলে চরে নিয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ

  গোপালপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২০ অক্টোবর ২০২০, ১৭:৩৩:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে কলেজছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে চরে নিয়ে রাতভর পালাক্রমে গণধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার কাগুজিআটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে ওই তরুণীকে নদীর পারে ফেলে রেখে চলে যায় লম্পটরা।

ওই ছাত্রী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা, কামরুজ্জামান। তিনি আরও জানান, ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের আলামত আছে।

ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী জানান, সোমবার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার নুটুরচর এলাকার স্থানীয় বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে মির্জাপুর ইউনিয়নের পূর্বমোহনপুর ও নুটুর চর এলাকার একটি ব্রিজের কাছে পৌঁছালে পার্শ্ববর্তী কাগুজী আটা গ্রামের সাইফুল, এনামুল, খালেদ, জালাল ও আলতাফ তার পথরোধ করে। তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে চরের ভিতরে পরিত্যক্ত একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে রাতভর তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ভোরে নদীর পাড়ে ফেলে রেখে যায়।

অসুস্থ অবস্থায় ওই ছাত্রী বাড়ি ফিরে পরিবারকে জানালে স্বজনরা তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে ওই ছাত্রী।

এ বিষয়ে গোপালপুর থানার ওসি মোশারফ হোসেন জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ বিষয়ে কেউ এখনও অভিযোগ করেননি।

রাস্তা থেকে তুলে চরে নিয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ

 গোপালপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২০ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে কলেজছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে চরে নিয়ে রাতভর পালাক্রমে গণধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার কাগুজিআটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে ওই তরুণীকে নদীর পারে ফেলে রেখে চলে যায় লম্পটরা।

ওই ছাত্রী টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা, কামরুজ্জামান। তিনি আরও জানান, ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের আলামত আছে।

ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী জানান, সোমবার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার নুটুরচর এলাকার স্থানীয় বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে মির্জাপুর ইউনিয়নের পূর্বমোহনপুর ও নুটুর চর এলাকার একটি ব্রিজের কাছে পৌঁছালে পার্শ্ববর্তী কাগুজী আটা গ্রামের সাইফুল, এনামুল, খালেদ, জালাল ও আলতাফ তার পথরোধ করে। তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে চরের ভিতরে পরিত্যক্ত একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে রাতভর তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ভোরে নদীর পাড়ে ফেলে রেখে যায়।

অসুস্থ অবস্থায় ওই ছাত্রী বাড়ি ফিরে পরিবারকে জানালে স্বজনরা তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে ওই ছাত্রী।

এ বিষয়ে গোপালপুর থানার ওসি মোশারফ হোসেন জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ বিষয়ে কেউ এখনও অভিযোগ করেননি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন