ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত কলেজছাত্র রাজিব বাঁচতে চায়
jugantor
ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত কলেজছাত্র রাজিব বাঁচতে চায়

  আমানুল হক আমান, বাঘা (রাজশাহী)  

২১ অক্টোবর ২০২০, ২২:৪৭:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের আহসান আলীর ছেলে রাজিব হোসেন ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত। তিনি বাঁচতে চান।

রাজিব স্বপ্ন দেখতেন লেখাপড়া শেষে চাকরি করে দরিদ্র পরিবারে সচ্ছলতা আনবেন, বাবা-মার মুখে হাসি ফোটাবেন। হঠাৎ সেই স্বপ্ন এখন দুঃস্বপ্ন। এখন বেঁচে থাকতে পারাটাই যেন তার স্বপ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে! ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত রাজিবের শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতি হচ্ছে। কিন্তু অর্থাভাবে আটকে আছে তার চিকিৎসা।

বাঘা উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের মেধাবী ছাত্র রাজিব হোসেন। সংসারের টানাপোড়েনে অনেক প্রতিকূলতা পাড়ি দিয়ে ২০১৭ সালে সারদা ডিগ্রি মহাবিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে অনার্সে ভর্তি হন, কিন্তু বিধি বাম।

এই সাধারণ পরিবারটির পক্ষে চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। রাজিবের পিতা আহসান আলী জানান, গত সেপ্টেম্বর মাসে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে আমার ছেলে। তারপর ডাক্তার দেখাতে গিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষায় তার ক্যান্সার ধরা পড়ে। রাজশাহী শহরের ফাতেমা হেমাটোলজি ক্লিনিকের ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডা. মইনুদ্দীনের কাছে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তার পরামর্শে দ্রুত ভারতে নিয়ে চিকিৎসা করালে সুস্থ জীবনে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি জানান, ছেলের চিকিৎসার জন্য যে টাকার প্রয়োজন, তা তার পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব না। তাই ছেলে রাজিবকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীসহ বিত্তবানদের কাছে সাহায্য চেয়েছেন তার বাবা আহসান আলী।

ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত কলেজছাত্র রাজিব বাঁচতে চায়

 আমানুল হক আমান, বাঘা (রাজশাহী) 
২১ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের আহসান আলীর ছেলে রাজিব হোসেন ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত। তিনি বাঁচতে চান।

রাজিব স্বপ্ন দেখতেন লেখাপড়া শেষে চাকরি করে দরিদ্র পরিবারে সচ্ছলতা আনবেন, বাবা-মার মুখে হাসি ফোটাবেন। হঠাৎ সেই স্বপ্ন এখন দুঃস্বপ্ন। এখন বেঁচে থাকতে পারাটাই যেন তার স্বপ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে! ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত রাজিবের শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতি হচ্ছে। কিন্তু অর্থাভাবে আটকে আছে তার চিকিৎসা।

বাঘা উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের মেধাবী ছাত্র রাজিব হোসেন। সংসারের টানাপোড়েনে অনেক প্রতিকূলতা পাড়ি দিয়ে ২০১৭ সালে সারদা ডিগ্রি মহাবিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে অনার্সে ভর্তি হন, কিন্তু বিধি বাম।

এই সাধারণ পরিবারটির পক্ষে চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। রাজিবের পিতা আহসান আলী জানান, গত সেপ্টেম্বর মাসে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে আমার ছেলে। তারপর ডাক্তার দেখাতে গিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষায় তার ক্যান্সার ধরা পড়ে। রাজশাহী শহরের ফাতেমা হেমাটোলজি ক্লিনিকের ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডা. মইনুদ্দীনের কাছে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তার পরামর্শে দ্রুত ভারতে নিয়ে চিকিৎসা করালে সুস্থ জীবনে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি জানান, ছেলের চিকিৎসার জন্য যে টাকার প্রয়োজন, তা তার পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব না। তাই ছেলে রাজিবকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীসহ বিত্তবানদের কাছে সাহায্য চেয়েছেন তার বাবা আহসান আলী।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন