মুন্সীগঞ্জে ইয়াবা নগদ টাকাসহ ৭ রোহিঙ্গা গ্রেফতার
jugantor
মুন্সীগঞ্জে ইয়াবা নগদ টাকাসহ ৭ রোহিঙ্গা গ্রেফতার

  যুগান্তর রিপোর্ট, মুন্সীগঞ্জ  

২৫ অক্টোবর ২০২০, ১৮:৩৩:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মুন্সিগঞ্জ

মুন্সীগঞ্জে ৯শ' পিস ইয়াবা ও ৯০ হাজার টাকাসহ ৬ রোহিঙ্গা নারী ও এক রোহিঙ্গা পুরুষসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ। শুক্রবার রাতে শহরের উপকণ্ঠ মুক্তাপুরের একটি ভাড়া বাসা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত রোহিঙ্গারা হচ্ছে- আজু বেগম (৩৫), নুরজাহান (রোমানা আক্তার) (১৯), নুর বেগম (৫০), জিয়াবল (৩০), সাকিলা রুমা (২৫) ও নুরকায়দা (১৫)। রোহিঙ্গাদের সহযোগিতার অভিযোগে জেলার লৌহজং উপজেলার গোয়ালিমান্দ্রা গ্রামের মো. রাদেশ (রাজেশ) নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছে ৯শ' ইয়াবা, নগদ ৯০ হাজার টাকাসহ ৩টি মোবাইল ফোন পাওয়া যায়।

তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও দেশের আদেশ অমান্য করে শরণার্থী আইন লঙ্ঘনের দায়ে মামলা দিয়ে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
রোববার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আনিচুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত ৬ রোহিঙ্গা নারী ও এক পুরুষ মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা শরণার্থী হিসেবে কক্সবাজারের টেকনাফ শরণার্থী শিবির থাকে। সেখান থেকে দীর্ঘদিন যাবত কৌশলে ইয়াবা চোরাচালান করে আসছিল।
শুক্রবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্ররেণ করা হয়েছে। এর সাথে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা- এ বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জে ইয়াবা নগদ টাকাসহ ৭ রোহিঙ্গা গ্রেফতার

 যুগান্তর রিপোর্ট, মুন্সীগঞ্জ 
২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মুন্সিগঞ্জ
মুন্সিগঞ্জ

মুন্সীগঞ্জে ৯শ' পিস ইয়াবা ও ৯০ হাজার টাকাসহ ৬ রোহিঙ্গা নারী ও এক রোহিঙ্গা পুরুষসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ। শুক্রবার রাতে শহরের উপকণ্ঠ মুক্তাপুরের একটি ভাড়া বাসা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত রোহিঙ্গারা হচ্ছে-  আজু বেগম (৩৫), নুরজাহান (রোমানা আক্তার) (১৯), নুর বেগম (৫০), জিয়াবল (৩০), সাকিলা রুমা (২৫) ও  নুরকায়দা (১৫)। রোহিঙ্গাদের সহযোগিতার অভিযোগে জেলার লৌহজং উপজেলার গোয়ালিমান্দ্রা গ্রামের মো. রাদেশ (রাজেশ) নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কাছে ৯শ' ইয়াবা, নগদ ৯০ হাজার টাকাসহ ৩টি মোবাইল ফোন পাওয়া যায়।

তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও দেশের আদেশ অমান্য করে শরণার্থী আইন লঙ্ঘনের দায়ে মামলা দিয়ে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
রোববার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব তথ্য নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আনিচুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত ৬ রোহিঙ্গা নারী ও এক পুরুষ মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা শরণার্থী হিসেবে কক্সবাজারের টেকনাফ শরণার্থী শিবির  থাকে। সেখান থেকে দীর্ঘদিন যাবত কৌশলে ইয়াবা চোরাচালান করে আসছিল।
শুক্রবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্ররেণ করা হয়েছে। এর সাথে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা- এ বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
 

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন