‘বাবুনগরীকে সরকার থেকে দূরে সরানোর ষড়যন্ত্র হচ্ছে’
jugantor
‘বাবুনগরীকে সরকার থেকে দূরে সরানোর ষড়যন্ত্র হচ্ছে’

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

২৫ অক্টোবর ২০২০, ২২:৪৮:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

নাজিরহাট মাদ্রাসা নিয়ে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারীর সংবাদ সম্মেলন, পাশে মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী।  ছবি: সংগৃহীত

সরকারের কাছে বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্য একটি পক্ষ জুনায়েদ বাবুনগরীকে জামায়াত-শিবির তকমা লাগানোর ষড়যন্ত্র করছে বলে দাবি করেছেন তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী।

রোববার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে ফটিকছড়ির নাজিরহাট মাদ্রাসার উদ্ভূত সংকট নিরসনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তিনি। এ সময় হেফাজত মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকে সংগঠনটির আমির করার প্রস্তাবও করেন এ সংসদ সদস্য।

বাবুনগরীকে সরকারের পাশ থেকে দূরে সরানোর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে মন্তব্য করে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী বলেন, আমি জানি কে জামায়াতের, আর কে জামায়াতের নয়। জুনায়েদ বাবুনগরী জামায়াত-শিবির করেন না। বাবুনগরী জামায়াতের বিরুদ্ধে বই লিখেছেন। তিনি ও তার মামা মাওলানা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী জামায়াত বিদ্বেষী।

জুনায়েদ বাবুনগরীর নির্দেশনায় নাজিরহাট মাদ্রাসায় এসেছেন এমনটা দাবি করে তিনি আরও বলেন, জুনায়েদ বাবুনগরীর নির্দেশনায় আমি এ মাদ্রাসায় এসেছি। তাছাড়া আমি ফটিকছড়ির সংসদ সদস্য। এখানে কেউ আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে পারবে না। শনিবার যারা মাদ্রাসায় হামলা করেছে তাদের গ্রেফতার করার জন্য আমি পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে শূরা কমিটির প্রধান আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সায়েদুল আরেফিন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হোসাইন মুহাম্মদ আবু তৈয়ব উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে দায়িত্ব নিয়ে শূরা কমিটির বৈঠক আয়োজনে যা করা প্রয়োজন তা করতে বলেছেন। শূরা কমিটির বৈঠকে আগত সকল ওলামায়ে কেরামদের প্রশাসন নিরাপত্তা দেবে। বৈঠকে কেউ যদি কোন গোলযোগ সৃষ্টি করতে চায়, তাহলে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

‘বাবুনগরীকে সরকার থেকে দূরে সরানোর ষড়যন্ত্র হচ্ছে’

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
২৫ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নাজিরহাট মাদ্রাসা নিয়ে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারীর সংবাদ সম্মেলন, পাশে মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী।  ছবি: সংগৃহীত
নাজিরহাট মাদ্রাসা নিয়ে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারীর সংবাদ সম্মেলন, পাশে মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। ছবি: সংগৃহীত

সরকারের কাছে বিভ্রান্তি ছড়ানোর জন্য একটি পক্ষ জুনায়েদ বাবুনগরীকে জামায়াত-শিবির তকমা লাগানোর ষড়যন্ত্র করছে বলে দাবি করেছেন তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী।  

রোববার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে ফটিকছড়ির নাজিরহাট মাদ্রাসার উদ্ভূত সংকট নিরসনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তিনি।  এ সময় হেফাজত মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকে সংগঠনটির আমির করার প্রস্তাবও করেন এ সংসদ সদস্য।  

বাবুনগরীকে সরকারের পাশ থেকে দূরে সরানোর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে মন্তব্য করে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী বলেন,  আমি জানি কে জামায়াতের, আর কে জামায়াতের নয়।  জুনায়েদ বাবুনগরী জামায়াত-শিবির করেন না। বাবুনগরী জামায়াতের বিরুদ্ধে বই লিখেছেন। তিনি ও তার মামা মাওলানা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী জামায়াত বিদ্বেষী।

জুনায়েদ বাবুনগরীর নির্দেশনায় নাজিরহাট মাদ্রাসায় এসেছেন এমনটা দাবি করে তিনি আরও বলেন, জুনায়েদ বাবুনগরীর নির্দেশনায় আমি এ মাদ্রাসায় এসেছি।  তাছাড়া আমি ফটিকছড়ির সংসদ সদস্য। এখানে কেউ আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে পারবে না।  শনিবার যারা মাদ্রাসায় হামলা করেছে তাদের গ্রেফতার করার জন্য আমি পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছি। 

সংবাদ সম্মেলনে শূরা কমিটির প্রধান আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সায়েদুল আরেফিন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হোসাইন মুহাম্মদ আবু তৈয়ব উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে দায়িত্ব নিয়ে শূরা কমিটির বৈঠক আয়োজনে যা করা প্রয়োজন তা করতে বলেছেন।  শূরা কমিটির বৈঠকে আগত সকল ওলামায়ে কেরামদের প্রশাসন নিরাপত্তা দেবে। বৈঠকে কেউ যদি কোন গোলযোগ সৃষ্টি করতে চায়, তাহলে প্রশাসন তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন