বিষখালী নদীর চরে মিলল যুবকের লাশ
jugantor
বিষখালী নদীর চরে মিলল যুবকের লাশ

  কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি  

২৬ অক্টোবর ২০২০, ১৫:০৩:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বিষখালী নদীর চরে মিলল যুবকের লাশ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার বিষখালী নদীর চর থেকে মনির হোসেন (২২) নামে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার সকালে উপজেলার শৌলজালিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ কচুয়া পঞ্চানন্দ এলাকায় বিষখালী নদীর চর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মনির হোসেন ওই এলাকার শাহ আলম জোমাদ্দারের ছেলে। তিনি পেশায় জেলে।

স্বজনরা জানান, রোববার রাত ৯টার দিকে লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে কচুয়ার পঞ্চানন্দর বিষখালীর নদীর চরের একটি গাছের নিচে অচেতন অবস্থায় মনিরকে উদ্ধার করা হয়। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে (আমুয়া) নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থলের ১৫০ গজ দূরে একটি দড়ি ফালানো ছিল বলে জানান তারা।

মনিরের স্ত্রী রোজিনা বেগম জানান, রোববার বিকালে বড় কাঁঠালিয়া গ্রামের সফিজ উদ্দীনের ছেলে এনায়েত গাজী নামের এক লোক তাদের বাড়ি এসে প্রকাশ্যে মনিরকে দেখিয়ে নেয়ার হুমকি দিয়ে যান।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন যুগান্তরকে জানিয়েছেন, নিহত মনিরের মা শাহনাজ বেগমের সঙ্গে এনায়েত গাজীর পরকীয়া সম্পর্কের কারণে তাকে পরিকল্পিভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাদের দাবি, মনির নিহত হওয়ার আগে এবং পরে তার মা শাহনাজ বেগমের কথাবার্তা ও আচরণে তার সম্পৃক্ততা রয়েছেন বলে ধারণা তাদের।

কাঁঠালিয়া থানার ওসি পুলক চন্দ্র রায় জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘটনের চেষ্টা চলছে।

বিষখালী নদীর চরে মিলল যুবকের লাশ

 কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি 
২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৩:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বিষখালী নদীর চরে মিলল যুবকের লাশ
ফাইল ছবি

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার বিষখালী নদীর চর থেকে মনির হোসেন (২২) নামে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার সকালে উপজেলার শৌলজালিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ কচুয়া পঞ্চানন্দ এলাকায় বিষখালী নদীর চর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মনির হোসেন ওই এলাকার শাহ আলম জোমাদ্দারের ছেলে। তিনি পেশায় জেলে।

স্বজনরা জানান, রোববার রাত ৯টার দিকে লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে কচুয়ার পঞ্চানন্দর বিষখালীর নদীর চরের একটি গাছের নিচে অচেতন অবস্থায় মনিরকে উদ্ধার করা হয়। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে (আমুয়া) নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থলের ১৫০ গজ দূরে একটি দড়ি ফালানো ছিল বলে জানান তারা।

মনিরের স্ত্রী রোজিনা বেগম জানান, রোববার বিকালে বড় কাঁঠালিয়া গ্রামের সফিজ উদ্দীনের ছেলে এনায়েত গাজী নামের এক লোক তাদের বাড়ি এসে প্রকাশ্যে মনিরকে দেখিয়ে নেয়ার হুমকি দিয়ে যান।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন যুগান্তরকে জানিয়েছেন, নিহত মনিরের মা শাহনাজ বেগমের সঙ্গে এনায়েত গাজীর পরকীয়া সম্পর্কের কারণে তাকে পরিকল্পিভাবে হত্যা করা হয়েছে। তাদের দাবি, মনির নিহত হওয়ার আগে এবং পরে তার মা শাহনাজ বেগমের কথাবার্তা ও আচরণে তার সম্পৃক্ততা রয়েছেন বলে ধারণা তাদের।

কাঁঠালিয়া থানার ওসি পুলক চন্দ্র রায় জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘটনের চেষ্টা চলছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন