সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না
jugantor
সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না

  বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি  

২৬ অক্টোবর ২০২০, ১৯:৪৬:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না

বানারীপাড়ায় উপজেলা মৎস্য অধিদফতরের দায়সারা অভিযানের কারণে সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না। ফলে প্রতিনিয়ত জেলেরা সন্ধ্যা নদীতে কারেন্ট জাল দিয়ে অবাধে মা ইলিশ নিধন করার পাশাপাশি অনেকে ধরাও পড়ছেন। এক্ষেত্রে ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যা নদীতে মৎস্য অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে উপজেলা মৎস্য অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী এ পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল উদ্ধার ও ১৭ জন জেলেকে আটক করে জেল-জরিমানা করার পাশাপাশি ৯০ কেজি মা ইলিশ জব্দ এবং একটি ট্রলার আটক করতে সক্ষম হয়েছেন।

এর সত্যতা স্বীকার করে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, মো. জামাল হোসেন যুগান্তরকে জানান, সরকারকে সীমিত বরাদ্দ দিয়ে মা ইলিশ নিধন বন্ধে দিন-রাত সন্ধ্যা নদীতে অভিযান পরিচালনা করে যাচ্ছি। এরপরও জেলেরা পেছন থেকে সন্ধ্যা নদীতে জাল দিয়ে মা ইলিশ নিধন করছেন। এক্ষেত্রে তিনি মা ইলিশ নিধন বন্ধে স্থানীয় জেলেদের সচেতন করার জন্য সন্ধ্যা নদীর দুই তীরে থাকা জনপ্রতিনিধি ও সচেতন মহলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

রোববার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌর শহরের ১নং ওয়ার্ডে এসকেন্দার মোল্লার বাসার ভাড়াটিয়া ও নাজিরপুর উপজেলার ঝনঝনিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. তোতা মিয়ার ছেলে ট্রলার শ্রমিক রেজাউলের বাসায় অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.মফিজুর রহমান ১৫ হাজার মিটার কারেন্ট জাল আটক ও ১২ কেজি মা ইলিশ জব্দ করেন। তাকে ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ প্রদান করেন। তাকে মঙ্গলবার সকালে বরিশাল কারাগারে প্রেরণ করা হয় বলে থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হেলাল উদ্দিন যুগান্তরকে জানান।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদ যুগান্তরকে জানান, মৎস্য অভিযান শুরু হওয়ার পূর্ব থেকেই অভিযান সফল করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। এরপরও মৎস্য অভিযান ব্যর্থ হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না

 বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি 
২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না
সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না

বানারীপাড়ায় উপজেলা মৎস্য অধিদফতরের দায়সারা অভিযানের কারণে সন্ধ্যা নদীতে মা ইলিশ নিধন বন্ধ হচ্ছে না। ফলে প্রতিনিয়ত জেলেরা সন্ধ্যা নদীতে কারেন্ট জাল দিয়ে অবাধে মা ইলিশ নিধন করার পাশাপাশি অনেকে ধরাও পড়ছেন। এক্ষেত্রে ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যা নদীতে মৎস্য অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে উপজেলা মৎস্য অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী এ পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত ৫০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল উদ্ধার ও ১৭ জন জেলেকে আটক করে জেল-জরিমানা করার পাশাপাশি ৯০ কেজি মা ইলিশ জব্দ এবং একটি ট্রলার আটক করতে সক্ষম হয়েছেন।

এর সত্যতা স্বীকার করে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, মো. জামাল হোসেন যুগান্তরকে জানান, সরকারকে সীমিত বরাদ্দ দিয়ে মা ইলিশ নিধন বন্ধে দিন-রাত সন্ধ্যা নদীতে অভিযান পরিচালনা করে যাচ্ছি। এরপরও জেলেরা পেছন থেকে সন্ধ্যা নদীতে জাল দিয়ে মা ইলিশ নিধন করছেন। এক্ষেত্রে তিনি মা ইলিশ নিধন বন্ধে স্থানীয় জেলেদের সচেতন করার জন্য সন্ধ্যা নদীর দুই তীরে থাকা জনপ্রতিনিধি ও সচেতন মহলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

রোববার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পৌর শহরের ১নং ওয়ার্ডে এসকেন্দার মোল্লার বাসার ভাড়াটিয়া ও নাজিরপুর উপজেলার ঝনঝনিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. তোতা মিয়ার ছেলে ট্রলার শ্রমিক রেজাউলের বাসায় অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.মফিজুর রহমান ১৫ হাজার মিটার কারেন্ট জাল আটক ও ১২ কেজি মা ইলিশ জব্দ করেন। তাকে ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ প্রদান করেন। তাকে মঙ্গলবার সকালে বরিশাল কারাগারে প্রেরণ করা হয় বলে থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হেলাল উদ্দিন যুগান্তরকে জানান। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদ যুগান্তরকে জানান, মৎস্য অভিযান শুরু হওয়ার পূর্ব থেকেই অভিযান সফল করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। এরপরও মৎস্য অভিযান ব্যর্থ হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন