সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় রিফাতের বাবা
jugantor
সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় রিফাতের বাবা

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৭ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪৮:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় রিফাতের বাবা

বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় ১৪ কিশোর আসামির রায় কিছুক্ষণের মধ্যে ঘোষণা করা হবে। ছেলে হত্যার সর্বোচ্চ শাস্তির আশায় আদালতপাড়ায় প্রতীক্ষার প্রহর গুণছেন বাবা দুলাল শরীফ।

বরগুনা জেলা শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান কিছুক্ষণের মধ্যেই এ রায় ঘোষণা করবেন।

নিহত রিফাত ফরাজীর বাবার দুলাল ফরাজী বলেন, আমার একমাত্র ছেলেকে যারা নির্মমভাবে খুন করেছে তাদের সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় আছি। আমার ছেলের হত্যার এমন রায় আশা করছি যা বরগুনা নয় সারা বাংলাদেশে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনার নারী ও শিশু আদালতের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, মামলাটির রায়ের জন্য পূর্ব নির্ধারিত সময় বেলা ১১ টা দিকে। তবে একটু বিলম্ব হচ্ছে তবে বেলা ১২ দিকে বিচারক রায় পড়া শুরু করবেন।

জানা যায়, রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে ৭৪ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হওয়ার পর সব আসামির পক্ষে-বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

ওই দিন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ পিপি মোস্তাফিজুর রহমান আসামিপক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিখণ্ডন শেষ করেন। এর পর আদালতের বিচারক রায়ের দিন ধার্য করেন।

অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলো- মো. রাশিদুল হাসান রিশান ফরাজী (১৭), মো. রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার (১৫), মো. আবু আবদুল্লাহ রায়হান (১৬), মো. ওলিউল্লাহ অলি (১৬), জয় চন্দ্র সরকার চন্দন (১৭), মো. নাইম (১৭), মো. তানভীর হোসেন (১৭), নাজমুল হাসান (১৪), রাকিবুল হাসান নিয়ামত (১৫), মো. সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহ মহিবুল্লাহ (১৭), মারুফ মল্লিক (১৭), প্রিন্স মোল্লা (১৫) রাতুল সিকদার জয় (১৬) ও আরিয়ান হোসেন শ্রাবণ (১৬)। রায়ের দিন তাদের সবাইকে আদালতে হাজির থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

চলতি বছরের গত ১ জানুয়ারি নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান অভিযোগ গঠন করেন।

এর আগে গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নিকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ২৪ জনের নামে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ূন কবির।

এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন। ৩০ সেপ্টেম্বর বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান মিন্নিসহ ৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও ৪ আসামিকে খালাস দেন।

উল্লেখ্য, বছরের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তার স্ত্রী মিন্নির সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা।

এর পর তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর ওই দিন বিকালে রিফাত শরীফ মারা যায়।

পর দিন ২৭ জুন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেন।

সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় রিফাতের বাবা

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৭ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় রিফাতের বাবা
ছবি: সংগৃহীত

বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় ১৪ কিশোর আসামির রায় কিছুক্ষণের মধ্যে ঘোষণা করা হবে।  ছেলে হত্যার সর্বোচ্চ শাস্তির আশায় আদালতপাড়ায় প্রতীক্ষার প্রহর গুণছেন বাবা দুলাল শরীফ। 

বরগুনা জেলা শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান কিছুক্ষণের মধ্যেই এ রায় ঘোষণা করবেন।

নিহত রিফাত ফরাজীর বাবার দুলাল ফরাজী বলেন, আমার একমাত্র ছেলেকে যারা নির্মমভাবে খুন করেছে তাদের সর্বোচ্চ শাস্তির অপেক্ষায় আছি।  আমার ছেলের হত্যার এমন রায় আশা করছি যা বরগুনা নয় সারা বাংলাদেশে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। 

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনার নারী ও শিশু আদালতের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, মামলাটির রায়ের জন্য পূর্ব নির্ধারিত সময় বেলা ১১ টা দিকে।  তবে একটু বিলম্ব হচ্ছে তবে বেলা ১২ দিকে বিচারক রায় পড়া শুরু করবেন।

জানা যায়, রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে ৭৪ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হওয়ার পর সব আসামির পক্ষে-বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

ওই দিন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ পিপি মোস্তাফিজুর রহমান আসামিপক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিখণ্ডন শেষ করেন। এর পর আদালতের বিচারক রায়ের দিন ধার্য করেন।

অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলো- মো. রাশিদুল হাসান রিশান ফরাজী (১৭), মো. রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার (১৫), মো. আবু আবদুল্লাহ রায়হান (১৬), মো. ওলিউল্লাহ অলি (১৬), জয় চন্দ্র সরকার চন্দন (১৭), মো. নাইম (১৭), মো. তানভীর হোসেন (১৭), নাজমুল হাসান (১৪), রাকিবুল হাসান নিয়ামত (১৫), মো. সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহ মহিবুল্লাহ (১৭), মারুফ মল্লিক (১৭), প্রিন্স মোল্লা (১৫) রাতুল সিকদার জয় (১৬) ও আরিয়ান হোসেন শ্রাবণ (১৬)। রায়ের দিন তাদের সবাইকে আদালতে হাজির থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

চলতি বছরের গত ১ জানুয়ারি নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান অভিযোগ গঠন করেন।

এর আগে গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নিকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ২৪ জনের নামে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ূন কবির।

এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন। ৩০ সেপ্টেম্বর বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান মিন্নিসহ ৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও ৪ আসামিকে খালাস দেন।

উল্লেখ্য, বছরের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তার স্ত্রী মিন্নির সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা।

এর পর তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর ওই দিন বিকালে রিফাত শরীফ মারা যায়।

পর দিন ২৭ জুন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেন।

 

ঘটনাপ্রবাহ : রিফাতকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন