ইলিশ রক্ষা করতে গিয়ে হামলায় আহত পুলিশ
jugantor
ইলিশ রক্ষা করতে গিয়ে হামলায় আহত পুলিশ

  লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি  

২৮ অক্টোবর ২০২০, ২২:৪০:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলার লালমোহনে মা ইলিশ রক্ষা অভিযানের সময় দুটি টিমের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় জেলেদের ছোড়া ইটের আঘাতে পুলিশের এক কনস্টেবল আহত হন। হামলার ঘটনায় এক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেছে পুলিশ।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে লালমোহন মেঘনা নদীর বাতিরখাল ও তেঁতুলিয়া নদীর দেবিরচর এলাকায় মা ইলিশ রক্ষার পৃথক অভিযানকালে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ্ত মিশ্র জানান, বুধবার সকাল ১০টার দিকে মা ইলিশ রক্ষার জন্য মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে দুটি অভিযান টিম নামে। মেঘনার অভিযান দলের নেতৃত্বে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ্ত মিশ্র ও সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স ছিলেন।

এছাড়া তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযান দলের নেতৃত্বে ছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট সালেহ আহমেদ ও সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স। মেঘনা নদীর বাতিরখাল ঘাটসংলগ্ন কোপখালী কাঠিরমাথা এলাকায় নদীতে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মাছ ধরাকালে জেলেদের বাধা দেয়া হয়।

এ সময় সংঘবদ্ধ জেলেদের একটি দল লাঠিসোটা ও ইটপাটকেল নিয়ে আভিযানিক দলের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা ইটপাটকেল মারতে থাকলে পুলিশের কনস্টেবল ফাহাদ হোসেন মারাত্মক আহত হন। তাকে জরুরিভিত্তিতে ভোলা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এ সময় মাছধরার দুটি ট্রলার ও ৬ জেলেকে আটক করা হয়েছে।

হামলার ঘটনায় মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ্ত মিশ্র বাদী হয়ে ৮ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

অপরদিকে তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযানকালে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দেবিরচর এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট সালেহ আহমেদের নেতৃত্বাধীন অভিযান দলের ওপর হামলা চালায় জেলেরা।

এ সময় ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে পুলিশ এক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে। পরে অভিযান চালিয়ে হামলাকারীদের ৫ জনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২ জনের ১ বছর করে কারাদণ্ড ও ৩ জনের ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

ইলিশ রক্ষা করতে গিয়ে হামলায় আহত পুলিশ

 লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি 
২৮ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলার লালমোহনে মা ইলিশ রক্ষা অভিযানের সময় দুটি টিমের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় জেলেদের ছোড়া ইটের আঘাতে পুলিশের এক কনস্টেবল আহত হন। হামলার ঘটনায় এক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেছে পুলিশ।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে লালমোহন মেঘনা নদীর বাতিরখাল ও তেঁতুলিয়া নদীর দেবিরচর এলাকায় মা ইলিশ রক্ষার পৃথক অভিযানকালে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ্ত মিশ্র জানান, বুধবার সকাল ১০টার দিকে মা ইলিশ রক্ষার জন্য মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে দুটি অভিযান টিম নামে। মেঘনার অভিযান দলের নেতৃত্বে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ্ত মিশ্র ও সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স ছিলেন।

এছাড়া তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযান দলের নেতৃত্বে ছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট সালেহ আহমেদ ও সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স। মেঘনা নদীর বাতিরখাল ঘাটসংলগ্ন কোপখালী কাঠিরমাথা এলাকায় নদীতে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মাছ ধরাকালে জেলেদের বাধা দেয়া হয়।

এ সময় সংঘবদ্ধ জেলেদের একটি দল লাঠিসোটা ও ইটপাটকেল নিয়ে আভিযানিক দলের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা ইটপাটকেল মারতে থাকলে পুলিশের কনস্টেবল ফাহাদ হোসেন মারাত্মক আহত হন। তাকে জরুরিভিত্তিতে ভোলা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এ সময় মাছধরার দুটি ট্রলার ও ৬ জেলেকে আটক করা হয়েছে।

হামলার ঘটনায় মৎস্য কর্মকর্তা সুদীপ্ত মিশ্র বাদী হয়ে ৮ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

অপরদিকে তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযানকালে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দেবিরচর এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট সালেহ আহমেদের নেতৃত্বাধীন অভিযান দলের ওপর হামলা চালায় জেলেরা।

এ সময় ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে পুলিশ এক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে। পরে অভিযান চালিয়ে হামলাকারীদের ৫ জনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২ জনের ১ বছর করে কারাদণ্ড ও ৩ জনের ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন