বাউফলে গলা কেটে হত্যার হুমকির অডিও ভাইরাল
jugantor
বাউফলে গলা কেটে হত্যার হুমকির অডিও ভাইরাল

  বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি  

২৯ অক্টোবর ২০২০, ২০:২৩:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

মোবাইল ফোনে কল করে অপর প্রান্ত থেকে একজন বলেন, তোর নাম রোমান? এ প্রান্ত থেকে কে আপনি? জানতে চাইলে অপর প্রাপ্ত থেকে বলেন, তোর বাহে (বাবা) শফি হাওলাদার।

কথা বলার কোনো সুযোগ না দিয়ে তিনি আরও বলেন, ’তোর কল্লাডা (গলা) কাইটা (কেটে) লইয়া আমু। আমি বাউফল থানার রংবাজ, তুই জানস না? তোরে বাড়ি থেকে ধইরা আনমু গুলি করতে করতে। আমি কিন্তু মানুষ কোপাইয়া রক্ত চুইষা খাই। তোরে মাইরা ফালামু।’

এক মিনিট ৩৩ সেকেন্ডের ওই কথোপকথনে অশালীনভাবে গালাগালসহ আরও অনেক হুমকি দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার হুমকির অডিও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

বুধবার সন্ধ্যার দিকে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার নাজিরপুর ছোট ডালিমা গ্রামের বাসিন্দা মো. রাজিব হোসেন রোমান (৪৪) নামে এক যুবককে ওই হুমকি দেয় শফি হাওলাদার (৪৮) নামে এক যুবক। শফি হাওলাদার কালাইয়া-বড়ডালিমা গ্রামের বাসিন্দা। সে কালাইয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজিব হোসেন বাউফল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

বাউফল থানা সূত্রে জানা গেছে, শফি হাওলাদারের বিরুদ্ধে চারটি মামলা রয়েছে।

লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, শফি হাওলাদারের এক স্বজনের সঙ্গে রাজিবের পূর্ববিরোধ রয়েছে। ওই বিরোধের জেরে মোবাইল ফোনে গলা কেটে ও গুলি করে হত্যার হুমকি দেয় শফি হাওলাদার।

রাজিব হোসেন বলেন, ‘সে একজন সন্ত্রাসী। প্রকাশ্যে এক যুবককে নির্মমভাবে কুপিয়ে রক্তমাখা রামদা নিয়ে কালাইয়া বন্দরে ঘুরে বেরিয়েছে। এক সাংবাদিককে প্রকাশ্যে মেরেছে। সরকারদলীয় শীর্ষ এক নেতার ছত্রছায়ায় থাকার কারণে তার বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। সব সময় অস্ত্র নিয়ে ঘুরে বেড়ায়।’

রাজিব আরও বলেন, শফি হাওলাদারের ভয়ে তিনি এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে শফি হাওলাদারের এক ঘনিষ্ঠজন বলেন, তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। অদৃশ্য কারণে পুলিশ গ্রেফতার করছে না।

এ বিষয়ে জানার জন্য শফি হাওলাদারের মোবাইল ফোনে কয়েকবার কল করলেও সে ফোন ধরেনি। খুদেবার্তা দিলেও কোনো ফিরতি বার্তা পাঠায়নি।

বাউফল থানার ওসি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাউফলে গলা কেটে হত্যার হুমকির অডিও ভাইরাল

 বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি 
২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৮:২৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মোবাইল ফোনে কল করে অপর প্রান্ত থেকে একজন বলেন, তোর নাম রোমান? এ প্রান্ত থেকে কে আপনি? জানতে চাইলে অপর প্রাপ্ত থেকে বলেন, তোর বাহে (বাবা) শফি হাওলাদার।

কথা বলার কোনো সুযোগ না দিয়ে তিনি আরও বলেন, ’তোর কল্লাডা (গলা) কাইটা (কেটে) লইয়া আমু। আমি বাউফল থানার রংবাজ, তুই জানস না? তোরে বাড়ি থেকে ধইরা আনমু গুলি করতে করতে। আমি কিন্তু মানুষ কোপাইয়া রক্ত চুইষা খাই। তোরে মাইরা ফালামু।’

এক মিনিট ৩৩ সেকেন্ডের ওই কথোপকথনে অশালীনভাবে গালাগালসহ  আরও অনেক হুমকি দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার হুমকির অডিও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

বুধবার সন্ধ্যার দিকে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার নাজিরপুর ছোট ডালিমা গ্রামের বাসিন্দা মো. রাজিব হোসেন রোমান (৪৪) নামে এক যুবককে ওই হুমকি দেয় শফি হাওলাদার (৪৮) নামে এক যুবক। শফি হাওলাদার কালাইয়া-বড়ডালিমা গ্রামের বাসিন্দা। সে কালাইয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজিব হোসেন বাউফল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

বাউফল থানা সূত্রে জানা গেছে, শফি হাওলাদারের বিরুদ্ধে চারটি মামলা রয়েছে।

লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, শফি হাওলাদারের এক স্বজনের সঙ্গে রাজিবের পূর্ববিরোধ রয়েছে। ওই বিরোধের জেরে মোবাইল ফোনে গলা কেটে ও গুলি করে হত্যার হুমকি দেয় শফি হাওলাদার।

রাজিব হোসেন বলেন, ‘সে একজন সন্ত্রাসী। প্রকাশ্যে এক যুবককে নির্মমভাবে কুপিয়ে রক্তমাখা রামদা নিয়ে কালাইয়া বন্দরে ঘুরে বেরিয়েছে। এক সাংবাদিককে প্রকাশ্যে মেরেছে। সরকারদলীয় শীর্ষ এক নেতার ছত্রছায়ায় থাকার কারণে তার বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। সব সময় অস্ত্র নিয়ে ঘুরে বেড়ায়।’

রাজিব আরও বলেন, শফি হাওলাদারের ভয়ে তিনি এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে শফি হাওলাদারের এক ঘনিষ্ঠজন বলেন, তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। অদৃশ্য কারণে পুলিশ গ্রেফতার করছে না।

এ বিষয়ে জানার জন্য শফি হাওলাদারের মোবাইল ফোনে কয়েকবার কল করলেও সে ফোন ধরেনি। খুদেবার্তা দিলেও কোনো ফিরতি বার্তা পাঠায়নি।

বাউফল থানার ওসি মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন