টাঙ্গাইলে সালিশে মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে গলাটিপে হত্যা
jugantor
টাঙ্গাইলে সালিশে মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে গলাটিপে হত্যা

  টাঙ্গাইল ও বাসাইল প্রতিনিধি  

৩০ অক্টোবর ২০২০, ২২:৫৪:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

মুক্তিযোদ্ধার পরিবার ও স্বজনদের আহাজারি

টাঙ্গাইলের বাসাইলে সালিশ বৈঠকে আবদুল লতিফ (৭০) নামে এক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে ও গলাটিপে হত্যা করেছে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। শুক্রবার বিকালে উপজেলার হাবলা ইউনিয়নের মটরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের ছোট ভাই আবদুর রৌফ খান জানান, কয়েক দিন যাবত মুক্তিযোদ্ধা লতিফ খানের সঙ্গে প্রতিবেশী আবু খান ও তার ছেলে পাভেল ও পারভেজের দুটি পুকুর মাছ নিয়ে বিরোধ চলছিল।বৃহস্পতিবার ওই পুকুরের মাছ নিয়ে আবু খান, তার ছেলে পাভেল ও পারভেজের সঙ্গে আবদুল লতিফের কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে শুক্রবার বিকালে স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান খানের বাড়িতে একটি সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

তিনি জানান, সালিশ বৈঠক চলকালে আবু খান, তার ছেলে পাভেল ও পারভেজ আবদুল লতিফকে পিটিয়ে ও গলাটিপে ধরে। এসময় তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান খান জানান, বিষয়টি মীমাংসার জন্য তার বাড়িতেই সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই এক পক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল লতিফকে পিটিয়ে ও গলাটিপে হত্যা করে। তিনি এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এ ব্যাপারে বাসাইল থানার ওসি হারুনুর রশিদ বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর ঘটনায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানান।

টাঙ্গাইলে সালিশে মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে গলাটিপে হত্যা

 টাঙ্গাইল ও বাসাইল প্রতিনিধি 
৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মুক্তিযোদ্ধার পরিবার ও স্বজনদের আহাজারি
মুক্তিযোদ্ধার পরিবার ও স্বজনদের আহাজারি

টাঙ্গাইলের বাসাইলে সালিশ বৈঠকে আবদুল লতিফ (৭০) নামে এক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে ও গলাটিপে হত্যা করেছে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। শুক্রবার বিকালে উপজেলার হাবলা ইউনিয়নের মটরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের ছোট ভাই আবদুর রৌফ খান জানান, কয়েক দিন যাবত মুক্তিযোদ্ধা লতিফ খানের সঙ্গে প্রতিবেশী আবু খান ও তার ছেলে পাভেল ও পারভেজের দুটি পুকুর মাছ নিয়ে বিরোধ চলছিল।বৃহস্পতিবার ওই পুকুরের মাছ নিয়ে আবু খান, তার ছেলে পাভেল ও পারভেজের সঙ্গে আবদুল লতিফের কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে শুক্রবার বিকালে স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান খানের বাড়িতে একটি সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

তিনি জানান, সালিশ বৈঠক চলকালে আবু খান, তার ছেলে পাভেল ও পারভেজ আবদুল লতিফকে পিটিয়ে ও গলাটিপে ধরে। এসময় তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান খান জানান, বিষয়টি মীমাংসার জন্য তার বাড়িতেই সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই এক পক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল লতিফকে পিটিয়ে ও গলাটিপে হত্যা করে। তিনি এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এ ব্যাপারে বাসাইল থানার ওসি হারুনুর রশিদ বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর ঘটনায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানান।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন