বিয়ের এক মাসের মাথায় গৃহবধূকে নিয়ে পালাতে গিয়ে...
jugantor
বিয়ের এক মাসের মাথায় গৃহবধূকে নিয়ে পালাতে গিয়ে...

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

৩১ অক্টোবর ২০২০, ২১:১৭:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার বারহাট্টায় বিয়ের এক মাসের মাথায় গৃহবধূকে অপহরণ করে পালানোর সময় আটক হয়েছেন সোহাগ মিয়া (১৯) নামে এক যুবক।

শুক্রবার রাতে উপজেলার গোপালপুর বাজার এলাকা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। আটক সোহাগ মিয়া উপজেলার টেঙ্গা গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবেশী সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলার শুনই গ্রামের এতিম এক মেয়েকে বেশ কিছুদিন ধরে একই গ্রামের সোহাগ মিয়া উত্যক্ত করত। সোহাগের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য প্রায় এক মাস আগে মেয়েটিকে অপ্রাপ্ত বয়সেই বারহাট্টা উপজেলার রৌহা গ্রামে বিয়ে দেয়া হয়।

শুক্রবার সন্ধ্যায় সোহাগসহ কয়েক তরুণ রৌহা গ্রামে যায়। মোবাইলের মাধ্যমে ফুসলিয়ে মেয়েটিকে অপহরণ করে রিকশাযোগে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পালানোর সময় গোপালপুর বাজার এলাকা থেকে গৃহবধূকে উদ্ধার ও সোহাগ মিয়াকে আটক করে পুলিশ। এ সময় অন্যরা পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে অপহৃতার মামা বাদী হয়ে শনিবার দুপুরে সোহাগ মিয়া, তার বাবা গিয়াস উদ্দিন, মা হাজেরা আক্তারের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

বারহাট্টা থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা হয়েছে। মামলার অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। আটক হওয়া সোহাগকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

বিয়ের এক মাসের মাথায় গৃহবধূকে নিয়ে পালাতে গিয়ে...

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৯:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার বারহাট্টায় বিয়ের এক মাসের মাথায় গৃহবধূকে অপহরণ করে পালানোর সময় আটক হয়েছেন সোহাগ মিয়া (১৯) নামে এক যুবক। 

শুক্রবার রাতে উপজেলার গোপালপুর বাজার এলাকা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। আটক সোহাগ মিয়া উপজেলার টেঙ্গা গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে। 

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবেশী সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা উপজেলার শুনই গ্রামের এতিম এক মেয়েকে বেশ কিছুদিন ধরে একই গ্রামের সোহাগ মিয়া উত্যক্ত করত। সোহাগের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য প্রায় এক মাস আগে মেয়েটিকে অপ্রাপ্ত বয়সেই বারহাট্টা উপজেলার রৌহা গ্রামে বিয়ে দেয়া হয়। 

শুক্রবার সন্ধ্যায় সোহাগসহ কয়েক তরুণ রৌহা গ্রামে যায়। মোবাইলের মাধ্যমে ফুসলিয়ে মেয়েটিকে অপহরণ করে রিকশাযোগে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পালানোর সময় গোপালপুর বাজার এলাকা থেকে গৃহবধূকে উদ্ধার ও সোহাগ মিয়াকে আটক করে পুলিশ। এ সময় অন্যরা পালিয়ে যায়। 

এ ব্যাপারে অপহৃতার মামা বাদী হয়ে শনিবার দুপুরে সোহাগ মিয়া, তার বাবা গিয়াস উদ্দিন, মা হাজেরা আক্তারের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন।  

বারহাট্টা থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা হয়েছে। মামলার অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। আটক হওয়া সোহাগকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন