রাতের আঁধারে যুগান্তরের ঘাটাইল প্রতিনিধির ওপর হামলা
jugantor
রাতের আঁধারে যুগান্তরের ঘাটাইল প্রতিনিধির ওপর হামলা

  মধুপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

০২ নভেম্বর ২০২০, ১১:২৫:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

রাতের আঁধারে যুগান্তরের ঘাটাইল প্রতিনিধির ওপর হামলা

পূর্ব শত্রুতার জেরে রাতের আঁধারে দৈনিক যুগান্তরের টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল প্রতিনিধি ফজলুর রহমান খানের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় তাকে পিটিয়ে ও মাথা ফাটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।

রোববার রাত ৯টার দিকে ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ গেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আহত ফজলুরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মী উত্তম কুমার জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষ গ্রুপের আতা খন্দকার ও হায়দার রাহমান কোনো কারণ ছাড়াই স্টিলের পাইপ নিয়ে খান মো. ফজলুর রহমানের ওপর হামলা চালিয়ে মাথায় প্রচণ্ড বেগে আঘাত করে।

কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই হামলাকারীদের আঘাতে ফজলুর মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তার মাথা ফেটে রক্তাক্ত হয়ে যায়। এ সময় শরীরের বিভিন্ন স্থানে তাকে পিটিয়ে জখম করা হয়। এর পর নির্বিঘ্নে হামলাকারীরা স্থান ত্যাগ করে।

এদিকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তার মাথায় পাঁচটি সেলাই দিয়েছেন।

এ ঘটনায় সাংবাদিকবৃন্দ দায়ীদের গ্রেফতারের দাবি করেছেন। অন্যথায় তারা আন্দোলনে যাবেন বলে জানান।

ইত্তেফাক ঘাটাইল প্রতিনিধি নুরুজ্জামান জানান, একাধিক সামাজিক সংগঠনের যৌথ প্রতিষ্ঠান দখল নিয়ে দুপক্ষের দ্বন্দ্বের জেরে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি।

এ ঘটনা নিয়ে অভিযুক্ত আতা খন্দকারের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি জানান, বঙ্গবন্ধু কর্নারসহ ৬টি সামাজিক সংগঠনের যৌথ প্রতিষ্ঠান রাতের অন্ধকারে দখল করে নেয়ার প্রতিবাদ করতে গিয়ে ধাক্কাধাক্কি হয়েছে।

সংবাদকর্মী বাদল জানান, খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এর পর হাসপাতালে যায়।

ঘাটাইল থানার এসআই মতিউর রহমান জানান, হাসপাতালে গিয়ে ফজলুর রহমানকে চিকিৎসাধীন দেখেন। এ ঘটনায় তদন্ত করতে মাঠে আছে পুলিশ।

রাতের আঁধারে যুগান্তরের ঘাটাইল প্রতিনিধির ওপর হামলা

 মধুপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
০২ নভেম্বর ২০২০, ১১:২৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রাতের আঁধারে যুগান্তরের ঘাটাইল প্রতিনিধির ওপর হামলা
ছবি: যুগান্তর

পূর্ব শত্রুতার জেরে রাতের আঁধারে দৈনিক যুগান্তরের টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল প্রতিনিধি ফজলুর রহমান খানের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।  এ সময় তাকে পিটিয়ে ও মাথা ফাটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।  

রোববার রাত ৯টার দিকে ঘাটাইল উপজেলা পরিষদ গেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আহত ফজলুরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মী উত্তম কুমার জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষ গ্রুপের আতা খন্দকার ও হায়দার রাহমান কোনো কারণ ছাড়াই স্টিলের পাইপ নিয়ে খান মো. ফজলুর রহমানের ওপর হামলা চালিয়ে মাথায় প্রচণ্ড বেগে আঘাত করে।

কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই হামলাকারীদের আঘাতে ফজলুর মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তার মাথা ফেটে রক্তাক্ত হয়ে যায়। এ সময় শরীরের বিভিন্ন স্থানে তাকে পিটিয়ে জখম করা হয়। এর পর নির্বিঘ্নে হামলাকারীরা স্থান ত্যাগ করে।

এদিকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তার মাথায় পাঁচটি সেলাই দিয়েছেন।

এ ঘটনায় সাংবাদিকবৃন্দ দায়ীদের গ্রেফতারের দাবি করেছেন। অন্যথায় তারা আন্দোলনে যাবেন বলে জানান।

ইত্তেফাক ঘাটাইল প্রতিনিধি নুরুজ্জামান জানান, একাধিক সামাজিক সংগঠনের যৌথ প্রতিষ্ঠান দখল নিয়ে দুপক্ষের দ্বন্দ্বের জেরে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি।

এ ঘটনা নিয়ে অভিযুক্ত আতা খন্দকারের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি জানান, বঙ্গবন্ধু কর্নারসহ ৬টি সামাজিক সংগঠনের যৌথ প্রতিষ্ঠান রাতের অন্ধকারে দখল করে নেয়ার প্রতিবাদ করতে গিয়ে ধাক্কাধাক্কি হয়েছে।

সংবাদকর্মী বাদল জানান, খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এর পর হাসপাতালে যায়।

ঘাটাইল থানার এসআই মতিউর রহমান জানান, হাসপাতালে গিয়ে ফজলুর রহমানকে চিকিৎসাধীন দেখেন। এ ঘটনায় তদন্ত করতে মাঠে আছে পুলিশ।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন