লালমনিরহাটের জুয়েলকে পিটিয়ে-পুড়িয়ে হত্যার দ্রুত বিচার দাবি
jugantor
লালমনিরহাটের জুয়েলকে পিটিয়ে-পুড়িয়ে হত্যার দ্রুত বিচার দাবি

  গাইবান্ধা প্রতিনিধি  

০৩ নভেম্বর ২০২০, ১৮:৩৫:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

লালমনিরহাটের বুড়িমারীতে আবু ইউসুফ মো. শহীদুন্নবী জুয়েলকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা ও লাশে আগুন দেয়ার ঘটনায় বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার সকালে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। গাইবান্ধা জেলা সামাজিক সংগ্রাম পরিষদ এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।

‘ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে জেগে ওঠো বিবেক ও মনুষ্যত্ব, ধর্মান্ধ উগ্র মৌলবাদী অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও’- এ প্রতিবাদী স্লোগান নিয়ে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সাংবাদিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা অংশ নেন।

গাইবান্ধা সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক বর্ষীয়ান রাজনীতিক আমিনুল ইসলাম গোলাপের সভাপতিত্বে ও আয়োজক সংগঠনের সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর কবীর তনুর সঞ্চালনায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সাবু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের জেলা সভাপতি আলমগীর কবীর বাদল, উদীচী গাইবান্ধার সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল গণি রিজন, জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মারুফ মনা, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হক জনি, বাসদ মার্কসবাদী জেলা পাঠচক্র ফোরামের সদস্য সচিব মনজুর আলম মিঠু, আবু রাহেন শফিউল্লাহ খোকন, কৃষক-শ্রমিক জনতা লীগের জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট মোস্তফা মনিরুজ্জামান, জেলা বাসদ সমন্বয়ক গোলাম রব্বানী, নারীনেত্রী ইশরাত জাহান লিপি, জাতীয় যুবজোট জেলা সভাপতি সুজন প্রসাদ, শ্রমিক নেতা নুর মোহাম্মদ বাবু, বাংলাদেশ ছাত্র যুব পরিষদ জেলা সভাপতি পলাশ চাকী, নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংস্থার খন্দকার শামিম আহমেদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে নিরীহ মানুষকে পিটিয়ে হত্যা ও লাশ পুড়িয়ে ফেলার মতো নৃশংস ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও এর উস্কানিদাতাদের বিচারের আওতায় আনতে না পারলে দেশে আরও এমন ঘটনা ঘটতে থাকবে। সাধারণ মানুষের জীবন বিপন্ন হয়ে উঠবে। সাম্প্রতিক সময়ে যে কারও বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

উস্কানি ও গুজবে কান দিয়ে আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়ার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, বিশ্ববিবেককে নাড়িয়ে দেয়া এ বর্বর পৈশাচিকতা মেনে নেয়া যায় না। মানবতা ও শান্তি বজায় রাখার স্বার্থে এ বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুতবিচার ও ফাঁসির দাবি করেন বক্তারা। সেই সঙ্গে ধর্মান্ধ উগ্র মৌলবাদী অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য সমাজের সর্বস্তরের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন বিবেকবান মানুষের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

লালমনিরহাটের জুয়েলকে পিটিয়ে-পুড়িয়ে হত্যার দ্রুত বিচার দাবি

 গাইবান্ধা প্রতিনিধি 
০৩ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লালমনিরহাটের বুড়িমারীতে আবু ইউসুফ মো. শহীদুন্নবী জুয়েলকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা ও লাশে আগুন দেয়ার ঘটনায় বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার সকালে গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। গাইবান্ধা জেলা সামাজিক সংগ্রাম পরিষদ এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।

‘ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে জেগে ওঠো বিবেক ও মনুষ্যত্ব, ধর্মান্ধ উগ্র মৌলবাদী অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও’- এ প্রতিবাদী স্লোগান নিয়ে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সাংবাদিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা অংশ নেন।

গাইবান্ধা সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক বর্ষীয়ান রাজনীতিক আমিনুল ইসলাম গোলাপের সভাপতিত্বে ও আয়োজক সংগঠনের সদস্য সচিব জাহাঙ্গীর কবীর তনুর সঞ্চালনায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সাবু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের জেলা সভাপতি আলমগীর কবীর বাদল, উদীচী গাইবান্ধার সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল গণি রিজন, জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মারুফ মনা, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হক জনি, বাসদ মার্কসবাদী জেলা পাঠচক্র ফোরামের সদস্য সচিব মনজুর আলম মিঠু, আবু রাহেন শফিউল্লাহ খোকন, কৃষক-শ্রমিক জনতা লীগের জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট মোস্তফা মনিরুজ্জামান, জেলা বাসদ সমন্বয়ক গোলাম রব্বানী, নারীনেত্রী ইশরাত জাহান লিপি, জাতীয় যুবজোট জেলা সভাপতি সুজন প্রসাদ, শ্রমিক নেতা নুর মোহাম্মদ বাবু, বাংলাদেশ ছাত্র যুব পরিষদ জেলা সভাপতি পলাশ চাকী, নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংস্থার খন্দকার শামিম আহমেদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে নিরীহ মানুষকে পিটিয়ে হত্যা ও লাশ পুড়িয়ে ফেলার মতো নৃশংস ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও এর উস্কানিদাতাদের বিচারের আওতায় আনতে না পারলে দেশে আরও এমন ঘটনা ঘটতে থাকবে। সাধারণ মানুষের জীবন বিপন্ন হয়ে উঠবে। সাম্প্রতিক সময়ে যে কারও বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

উস্কানি ও গুজবে কান দিয়ে আইন নিজের হাতে তুলে না নেয়ার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, বিশ্ববিবেককে নাড়িয়ে দেয়া এ বর্বর পৈশাচিকতা মেনে নেয়া যায় না। মানবতা ও শান্তি বজায় রাখার স্বার্থে এ বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুতবিচার ও ফাঁসির দাবি করেন বক্তারা। সেই সঙ্গে ধর্মান্ধ উগ্র মৌলবাদী অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য সমাজের সর্বস্তরের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন বিবেকবান মানুষের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন