বাবার বদলে ছেলে চালক, অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় কৃষক নিহত
jugantor
বাবার বদলে ছেলে চালক, অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় কৃষক নিহত

  ঝালকাঠি প্রতিনিধি  

০৫ নভেম্বর ২০২০, ১৯:০৪:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় সরকারি অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় পথচারী অধীর চন্দ্র মাতুব্বর (৫৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার বিকালে আমুয়া-কাঁঠালিয়া সড়কের বটতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বাবার বদলে ছেলে অ্যাম্বুলেন্সটি চালাচ্ছিলেন। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে।

নিহতের ছেলে শেখর চন্দ্র মাতুব্বর জানান, তার বাবা তাদের নার্সারি থেকে গাছের চারা নিয়ে বাজারে বিক্রি করে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় ঝালকাঠিগামী কাঁঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স তাকে ধাক্কা দেয়। এতে রাস্তার পাশে ছিটকে পড়ে তিনি গুরুতর আহত হন।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে আমুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

কাঁঠালিয়া থানার ওসি পুলক চন্দ্র রায় জানান, অ্যাম্বুলেন্সের চালক আবু হানিফ। তিনি না চালিয়ে তার ছেলে মো. মঞ্জু চালাচ্ছিলেন। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটে। লাশ উভয়পক্ষের সম্মতির পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বাবার বদলে ছেলে চালক, অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় কৃষক নিহত

 ঝালকাঠি প্রতিনিধি 
০৫ নভেম্বর ২০২০, ০৭:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় সরকারি অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় পথচারী অধীর চন্দ্র মাতুব্বর (৫৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার বিকালে আমুয়া-কাঁঠালিয়া সড়কের বটতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বাবার বদলে ছেলে অ্যাম্বুলেন্সটি চালাচ্ছিলেন। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটেছে।

নিহতের ছেলে শেখর চন্দ্র মাতুব্বর জানান, তার বাবা তাদের নার্সারি থেকে গাছের চারা নিয়ে বাজারে বিক্রি করে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় ঝালকাঠিগামী কাঁঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স তাকে ধাক্কা দেয়। এতে রাস্তার পাশে ছিটকে পড়ে তিনি গুরুতর আহত হন।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে আমুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

কাঁঠালিয়া থানার ওসি পুলক চন্দ্র রায় জানান, অ্যাম্বুলেন্সের চালক আবু হানিফ। তিনি না চালিয়ে তার ছেলে মো. মঞ্জু চালাচ্ছিলেন। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটে। লাশ উভয়পক্ষের সম্মতির পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন