মাদরাসার সুপারকে পেটাল অফিস সহকারী 
jugantor
মাদরাসার সুপারকে পেটাল অফিস সহকারী 

  ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৯ নভেম্বর ২০২০, ২৩:৪৬:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

আহত সুপার

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মাদরাসার সুপারকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে। সোমবার উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের কাজির বলসা দাখিল মাদরাসায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।

মাদরাসার সুপার নজরুল ইসলাম জানান, ইবতেদায়ীর শাখার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির ইংরেজি বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের খাতা মূল্যায়নের সহায়তা করার জন্য সহকারী শিক্ষিকা শাহানা ইয়াসমিন অফিস সহকারী কাজী মাহমুদুল হাসানকে অনুরোধ করেন।

কিন্তু মাহমুদুল হাসান অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন। কাজের ব্যস্ততা থাকায় সহকারী শিক্ষিকা শাহানা ইয়াসমিন বিষয়টি সুপারকে জানালে সুপারও অফিস সহকারীকে খাতাগুলো মূল্যায়ন করে দেয়ার নির্দেশ দেন।

এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে মাদরাসা থেকে বের হয়ে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর অফিস সহকারী মাহমুদুল হাসান মাদরাসায় প্রবেশ করে সুপারের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে অফিস সহকারী কাজী মাহমুদুল হাসান চেয়ার দিয়ে সুপারের মাথায় আঘাত করলে সুপার গুরুতর আহত হন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত অফিস সহকারী মাহমুদুল হাসানের মোবাইলে একাধিকবার কল দিয়েও রিসিভ না করায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে ইউএনও জাকির হোসেন জানান, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল কাদের মিয়া জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পুলিশ পাঠানো হয়। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাদরাসার সুপারকে পেটাল অফিস সহকারী 

 ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৯ নভেম্বর ২০২০, ১১:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আহত সুপার
আহত মাদরাসা সুপার। ছবি: যুগান্তর

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মাদরাসার সুপারকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে। সোমবার উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের কাজির বলসা দাখিল মাদরাসায় এ ঘটনাটি ঘটেছে। 

মাদরাসার সুপার নজরুল ইসলাম জানান, ইবতেদায়ীর শাখার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির ইংরেজি বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের খাতা মূল্যায়নের সহায়তা করার জন্য সহকারী শিক্ষিকা শাহানা ইয়াসমিন অফিস সহকারী কাজী মাহমুদুল হাসানকে অনুরোধ করেন। 

কিন্তু মাহমুদুল হাসান অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন। কাজের ব্যস্ততা থাকায় সহকারী শিক্ষিকা শাহানা ইয়াসমিন বিষয়টি সুপারকে জানালে সুপারও অফিস সহকারীকে খাতাগুলো মূল্যায়ন করে দেয়ার নির্দেশ দেন। 

এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে মাদরাসা থেকে বের হয়ে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর অফিস সহকারী মাহমুদুল হাসান মাদরাসায় প্রবেশ করে সুপারের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে অফিস সহকারী কাজী মাহমুদুল হাসান চেয়ার দিয়ে সুপারের মাথায় আঘাত করলে সুপার গুরুতর আহত হন। 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত অফিস সহকারী মাহমুদুল হাসানের মোবাইলে একাধিকবার কল দিয়েও রিসিভ না করায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে ইউএনও জাকির হোসেন জানান, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তিনি।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল কাদের মিয়া জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পুলিশ পাঠানো হয়। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন