হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা
jugantor
হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

  ঝিনাইদহ প্রতিনিধি  

১১ নভেম্বর ২০২০, ২২:০৪:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরের হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে একজন হিজড়াকে হত্যার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শহরের চাকলাপাড়ার মৃত আলীজান মীরের সন্তান বর্ষা মীর (তৃতীয় লিঙ্গ) বাদী হয়ে ঝিনাইদহের একটি আমলি আদালতে মামলাটি দায়ের করেছেন।

বুধবার জুডিসিয়াল আমলি ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কোটচাঁদপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া বিনতে জাহিদ পিটিশন মামলাটি এজাহার হিসেবে গণ্য করার জন্য সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আক্তার ওরফে লাবনী, বর্ষা মীর ও কারিশমা হিজড়ার সঙ্গে বর্তমান কোটচাঁদপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুন ওরফে সাবিনা আক্তার ওরফে লিয়াকতের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

এ কারণে লাবনী সুকৌশলে কোটচাঁদপুর উপজেলা শহরের জনৈক হাসেম বিশ্বাসের বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। তাকে হত্যার হুমকি দেয়ার পরে বাসা পরিবর্তন করে একই শহরের বলুহর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন একটি ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন।

মামলার বাদী আরও উল্লেখ করেন, চলতি বছরের ৭ জুন একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে ওই বাসা থেকে লাবনী ওরফে আক্তারকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে লাবনী প্রকৃতপক্ষে হিজড়া সম্প্রদায়ের লোক না। তার স্ত্রী ও দুই সন্তান রয়েছে। তারা চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনার শস্তিপুর গ্রামে বসবাস করে।

ঘটনার দিন গত ৭ জুন সকাল ১০টার দিকে লাবনীর দুই হাতের রগ কেটে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ গুম করতে ব্যর্থ হয়ে একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দিতে করোনা রোগী হিসেবে গোপনে লাবনীর নিজ গ্রাম চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনার শস্তিপুরে দাফন করা হয়।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, এ হত্যার ঘটনায় কোটচাঁদপুরের তৃতীয় লিঙ্গের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুনসহ ৬ জন জড়িত।

মামলার বাদী জানান, লাবনী প্রকৃত হিজড়া ছিলেন না। পিংকি তাকে হিজড়া বানিয়ে রাখে।

এ বিষয়ে কোটচাঁদপুরের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুন জানান, তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ভিত্তিহীন অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানান তিনি।

মামলার বাদী বর্ষা মীরের দেয়া তথ্যমতে, মিথ্যা তথ্য দিয়ে উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন পিংকি ওরফে লিয়াকত।

এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন অফিসার রোকনুজ্জামান জানান, মহিলা ভোটার তালিকা হিসেবে পিংকি খাতুনের নাম রয়েছে। তথ্য গোপন করে এমনটি করা হলেও নির্বাচনের সময় কেউ আপত্তি তোলেনি। যে কারণে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়। হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গের কেউ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার সুযোগ নেই বলে জানান তিনি।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী মো. নজরুল ইসলাম জানান, আদালতের আদেশ কোটচাঁদপুর থানার ওসি বরাবর পাঠানো হয়েছে।

তবে কোটচাঁদপুর থানার ওসি মাহবুব আলম জানান, আদালতের আদেশ পাওয়ার পর মামলাটি রেকর্ড করা হবে।

হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

 ঝিনাইদহ প্রতিনিধি 
১১ নভেম্বর ২০২০, ১০:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরের হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে একজন হিজড়াকে হত্যার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শহরের চাকলাপাড়ার মৃত আলীজান মীরের সন্তান বর্ষা মীর (তৃতীয় লিঙ্গ) বাদী হয়ে ঝিনাইদহের একটি আমলি আদালতে মামলাটি দায়ের করেছেন। 

বুধবার জুডিসিয়াল আমলি ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কোটচাঁদপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া বিনতে জাহিদ পিটিশন মামলাটি এজাহার হিসেবে গণ্য করার জন্য সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আক্তার ওরফে লাবনী, বর্ষা মীর ও কারিশমা হিজড়ার সঙ্গে বর্তমান কোটচাঁদপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুন ওরফে সাবিনা আক্তার ওরফে লিয়াকতের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। 

এ কারণে লাবনী সুকৌশলে কোটচাঁদপুর উপজেলা শহরের জনৈক হাসেম বিশ্বাসের বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। তাকে হত্যার হুমকি দেয়ার পরে বাসা পরিবর্তন করে একই শহরের বলুহর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন একটি ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। 

মামলার বাদী আরও উল্লেখ করেন, চলতি বছরের ৭ জুন একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে ওই বাসা থেকে লাবনী ওরফে আক্তারকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে লাবনী প্রকৃতপক্ষে হিজড়া সম্প্রদায়ের লোক না। তার স্ত্রী ও দুই সন্তান রয়েছে। তারা চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনার শস্তিপুর গ্রামে বসবাস করে। 

ঘটনার দিন গত ৭ জুন সকাল ১০টার দিকে লাবনীর দুই হাতের রগ কেটে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ গুম করতে ব্যর্থ হয়ে একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দিতে করোনা রোগী হিসেবে গোপনে লাবনীর নিজ গ্রাম চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনার শস্তিপুরে দাফন করা হয়। 

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, এ হত্যার ঘটনায় কোটচাঁদপুরের তৃতীয় লিঙ্গের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুনসহ ৬ জন জড়িত। 

মামলার বাদী জানান, লাবনী প্রকৃত হিজড়া ছিলেন না। পিংকি তাকে হিজড়া বানিয়ে রাখে। 

এ বিষয়ে কোটচাঁদপুরের ভাইস চেয়ারম্যান পিংকি খাতুন জানান, তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ভিত্তিহীন অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানান তিনি। 

মামলার বাদী বর্ষা মীরের দেয়া তথ্যমতে, মিথ্যা তথ্য দিয়ে উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন পিংকি ওরফে লিয়াকত।

এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন অফিসার রোকনুজ্জামান জানান, মহিলা ভোটার তালিকা হিসেবে পিংকি খাতুনের নাম রয়েছে। তথ্য গোপন করে এমনটি করা হলেও নির্বাচনের সময় কেউ আপত্তি তোলেনি। যে কারণে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়। হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গের কেউ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার সুযোগ নেই বলে জানান তিনি।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী মো. নজরুল ইসলাম জানান, আদালতের আদেশ কোটচাঁদপুর থানার ওসি বরাবর পাঠানো হয়েছে। 

তবে কোটচাঁদপুর থানার ওসি মাহবুব আলম জানান, আদালতের আদেশ পাওয়ার পর মামলাটি রেকর্ড করা হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন