সাটুরিয়ায় অবৈধ ড্রেজারের বালুর গর্তে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রীর
jugantor
সাটুরিয়ায় অবৈধ ড্রেজারের বালুর গর্তে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রীর

  সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৩ নভেম্বর ২০২০, ২০:৪৫:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় অবৈধ ড্রেজারের উত্তোলন করা বালুর গর্তে পড়ে ইমা আক্তার (১২) নামের এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও ২ শিশু। রোববার বিকালে উপজেলার ধানকোড়া ইউনিয়নের কামতা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ইমা কামতা গ্রামের হোটেল ব্যবসায়ী ইয়াদ আলীর মেয়ে। সে ধানকোড়া গিরীশ ইন্সটিটিউটের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। এ ঘটনায় নিহত শিশুর বাড়িতে বইছে কান্নার রোল, আর গ্রামজুড়ে বইছে শোকের মাতম।

স্থানীয়রা জানান, নিহত স্কুলছাত্রীর বাড়ির পাশেই ধলেশ্বরী নদী থেকে অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করে ফসলের জমি ভরাট করছে বালু ব্যবসায়ীরা। এতে এক সময়ে নদী তীরে কৃষকের আবাদি জমি এখন বিশাল জলাশয়ে পরিণত হয়েছে। ড্রেজারের বালু জমিতে আটকে রাখতে জমির পাশে মাটি দিয়ে বড় বাঁধ তৈরি করতে গর্ত করা হয়েছে।

রোববার বিকালে সেখানে খেলতে গিয়ে বালুর চাপ ভেঙ্গে ইমা ও একই এলাকার দুই শিশু গর্তে মাটিচাপা পড়ে যায়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় দুই শিশুকে উদ্ধার করা হলেও শিক্ষার্থী ইমাকে জীবিত উদ্ধার করা যায়নি।

এ ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। তারা অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের দায়িত্বহীন ও গাফিলতির বিষয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। তবে বালু ব্যবসায়ীদের কাউকে ঘটনাস্থলে খুঁজে পাওয়া যায়নি। দুর্ঘটনার পরপরই তারা পালিয়ে গেছে বলে স্থানীয়রা জানান।

এ বিষয়ে রোববার সন্ধ্যায় সাটুরিয়া থানার ওসি মো.মতিয়ার রহমান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ওসি বলেন, শিশু নিহত ও অবৈধ ড্রেজার মেশিন চালানোর ব্যাপারে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাটুরিয়ায় অবৈধ ড্রেজারের বালুর গর্তে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রীর

 সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৩ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় অবৈধ ড্রেজারের উত্তোলন করা বালুর গর্তে পড়ে ইমা আক্তার (১২) নামের এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও ২ শিশু। রোববার বিকালে উপজেলার ধানকোড়া ইউনিয়নের কামতা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ইমা কামতা গ্রামের হোটেল ব্যবসায়ী ইয়াদ আলীর মেয়ে। সে ধানকোড়া গিরীশ ইন্সটিটিউটের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। এ ঘটনায় নিহত শিশুর বাড়িতে বইছে কান্নার রোল, আর গ্রামজুড়ে বইছে শোকের মাতম।

স্থানীয়রা জানান, নিহত স্কুলছাত্রীর বাড়ির পাশেই ধলেশ্বরী নদী থেকে অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করে ফসলের জমি ভরাট করছে বালু ব্যবসায়ীরা। এতে এক সময়ে নদী তীরে কৃষকের আবাদি জমি এখন বিশাল জলাশয়ে পরিণত হয়েছে। ড্রেজারের বালু জমিতে আটকে রাখতে জমির পাশে মাটি দিয়ে বড় বাঁধ তৈরি করতে গর্ত করা হয়েছে।

রোববার বিকালে সেখানে খেলতে গিয়ে বালুর চাপ ভেঙ্গে ইমা ও একই এলাকার দুই শিশু গর্তে মাটিচাপা পড়ে যায়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় দুই শিশুকে উদ্ধার করা হলেও শিক্ষার্থী ইমাকে জীবিত উদ্ধার করা যায়নি।

এ ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। তারা অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের দায়িত্বহীন ও গাফিলতির বিষয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। তবে বালু ব্যবসায়ীদের কাউকে ঘটনাস্থলে খুঁজে পাওয়া যায়নি। দুর্ঘটনার পরপরই তারা পালিয়ে গেছে বলে স্থানীয়রা জানান।

এ বিষয়ে রোববার সন্ধ্যায় সাটুরিয়া থানার ওসি মো.মতিয়ার রহমান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম  ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ওসি বলেন, শিশু নিহত ও অবৈধ ড্রেজার মেশিন চালানোর ব্যাপারে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন