নার্সিং কলেজ হোস্টেলে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু
jugantor
নার্সিং কলেজ হোস্টেলে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু

  দিনাজপুর প্রতিনিধি  

২৩ নভেম্বর ২০২০, ২২:৩৪:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুর নার্সিং কলেজের মিডওয়াইফারির প্রথম বর্ষের পরীক্ষা দিতে এসে কলেজের হোস্টেলে তিথি আক্তার (২০) নামে এক শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু ঘটেছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষ এটিকে আত্মহত্যা বলে দাবি করলেও পুলিশ বলছে ময়নাতদন্তসাপেক্ষেই নিশ্চিত হওয়া যাবে মৃত্যুর আসল রহস্য।

তিথি আক্তার ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ভুল্লি কুমারপুর গ্রামের মো. আলমগীরের কন্যা।

দিনাজপুর নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ মার্কবালেনা সরেন জানান, দীর্ঘ ছুটির পর গত ২২ নভেম্বর দিনাজপুর নার্সিং কলেজের প্রথম বর্ষের মিডওয়াইফারির প্রথম পরীক্ষা শুরু হয়। সেই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে আসে শিক্ষার্থী তিথি আক্তার। সোমবার পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না করায় দুপুরে সহপাঠীরা হোস্টেলের তৃতীয়তলায় তার ৩০৭নং কক্ষে গিয়ে তাকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়।

পরে তাকে উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অধ্যক্ষ দাবি করেন, গাইনিসহ শারীরিক সমস্যার কারণেই সে ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স) মো. মাহবুবুর রহমান সরকার জানান, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর পুলিশকে ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনাটি জানানো হয়। বিকাল ৫টায় হাসপাতালে তার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়। মঙ্গলবার ময়নাতদন্ত শেষে শিক্ষার্থীর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতেই মৃত্যুর আসল রহস্য উদঘাটন করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

নার্সিং কলেজ হোস্টেলে শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 
২৩ নভেম্বর ২০২০, ১০:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুর নার্সিং কলেজের মিডওয়াইফারির প্রথম বর্ষের পরীক্ষা দিতে এসে কলেজের হোস্টেলে তিথি আক্তার (২০) নামে এক শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু ঘটেছে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষ এটিকে আত্মহত্যা বলে দাবি করলেও পুলিশ বলছে ময়নাতদন্তসাপেক্ষেই নিশ্চিত হওয়া যাবে মৃত্যুর আসল রহস্য।

তিথি আক্তার ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ভুল্লি কুমারপুর গ্রামের মো. আলমগীরের কন্যা।

দিনাজপুর নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ মার্কবালেনা সরেন জানান, দীর্ঘ ছুটির পর গত ২২ নভেম্বর দিনাজপুর নার্সিং কলেজের প্রথম বর্ষের মিডওয়াইফারির প্রথম পরীক্ষা শুরু হয়। সেই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে আসে শিক্ষার্থী তিথি আক্তার। সোমবার পরীক্ষায় অংশগ্রহণ না করায় দুপুরে সহপাঠীরা হোস্টেলের তৃতীয়তলায় তার ৩০৭নং কক্ষে গিয়ে তাকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়।

পরে তাকে উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অধ্যক্ষ দাবি করেন, গাইনিসহ শারীরিক সমস্যার কারণেই সে ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স) মো. মাহবুবুর রহমান সরকার জানান, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর পুলিশকে ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনাটি জানানো হয়। বিকাল ৫টায় হাসপাতালে তার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়। মঙ্গলবার ময়নাতদন্ত শেষে শিক্ষার্থীর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতেই মৃত্যুর আসল রহস্য উদঘাটন করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন